লাইসেন্স ব্যতিতই হাসপাতালের কার্যক্রম চালানোর অভিযোগে চৌদ্দগ্রামে ফ্যামিলি হসপিটাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার বন্ধ ঘোষনা

নিজস্ব প্রতিবেদক : কুমিল্লার গত এক সপ্তাহে ১২টি হসপিটাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার বন্ধের পর এবার চৌদ্দগ্রামে লাইসেন্স বিহীন হাসপাতালের কার্যক্রম চালানোর অভিযোগে ফ্যামিলি হসপিটাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার নামক একটি প্রাইভেট হাসপাতাল বন্ধ করে দিয়েছে জেলা সিভিল সার্জন। শনিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মজিবুর রহমানের নেতৃত্বে একটি টিম অভিযান চালিয়ে হসপিটালটি বন্ধ ঘোষণা করেন। জেলা সিভিল সার্জনের বরাত দিয়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ নাছির উদ্দিন হসপিটালটি বন্ধের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ নাছির উদ্দিন জানান, পল্লী চিকিৎসক দিলীপ চন্দ্র পাল ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রাম ট্রেনিং সেন্টারের পুরাতন কৃষি ভবনের দ্বিতীয় তলায় বৈধ কাগজপত্র ছাড়াই ‘ফ্যামিলি হসপিটাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টার’-এ চিকিৎসা কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল। হাসপাতালটি অনুমোদন না পাওয়া শর্তেও দীর্ঘদিন ধরেই সিজার অপারেশনসহ বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম চালিয়ে আসছে।
দীর্ঘদিন ধরে প্রাপ্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে শনিবার দুপুরে সিভিল সার্জন মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কোন প্রকার বৈধ কাগজপত্র বা লাইসেন্স দেখাতে না পাওে নাই। এছাড়াও অভিযানকালে দেখা যায়, একটি হাসপাতালের নিয়মিত ডাক্তার থাকার নিয়ম থাকলেও সেখানে কোন ডিউটি ডাক্তারকে খুঁজে পাওয়া যায় নাই। অনিয়মের মাধ্যমে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর “ব্লাড ট্রান্সফারেশন” করার কথাও তিনি জানান। যার কারণে হাসপাতালটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়।
উল্লেখ্য অনিয়ন এবং লাইসেন্স বিহীন কার্যক্রমের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সে রয়েছে জেলা সিভিল সার্জন। গত ১ সপ্তাতে সরেজমিনে গিয়ে চান্দিনা উপজেলায় ৭টি, লাকসামে ২টি, দাউদকান্দিতে ২টি, সদর উপজেলায় ১টি হাসপাতালের কার্যক্রম বন্ধ ঘোষনা করেছে জেলা সিভিল সার্জন। এছাড়া গত ৮ই নভেম্বর জেলা সদরসহ বিভিন্ন উপজেলার শতাধিক অবৈধ বেসরকারী হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডেন্টাল ক্লিনিক, এনজিও ক্লিনিক, ব্ল্যাড ব্যাংক এবং ডায়াগনষ্টিক সেন্টারকে ১ সপ্তাহ সময়ের মধ্যে কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ প্রদান করে জেলা প্রশাষন। নির্দেশনার শেষ দিন ১৫ই নভেম্বর থেকেই সমগ্র জেলায় সাঁড়াশি অভিযানের মাধ্যমে এসব লাইসেন্সবিহীন হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযানের ঘোষনা দেওয়া হয়। জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। সিলগালা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে যাদের লাইসেন্স নেই তাদের লাইসেন্স নিতে হবে। আর অনিয়মের অভিযোগে বন্ধ হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্তৃপক্ষ আবেদন করলেও সংশোধন ও সমাধান না হওয়া পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!