লন্ডন গেলেন ইলিয়াস আলীর স্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক : আদালতের নির্দেশের পরও নিখোঁজ বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদির লুনাকে লন্ডন যেতে বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন পুলিশ বাধা দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে কিছুক্ষণ পর তাকে যেতে দেয়ায় সন্তানদের নিয়ে লন্ডনের পথে রওয়ানা করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের এই উপদেষ্টা।বুধবার ঢাকার হজরত শাহজালাল (রহ.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে আটকে দেয়। তবে কিছুক্ষণ পর তাকে যাওয়ার দেয় পুলিশ।
এর আগে গত রবিবার বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে তিনি লন্ডন যেতে চাইলে সেদিন ইমিগ্রেশন পুলিশের বাধায় যেতে পারেননি।বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান ইলিয়াস আলীর স্ত্রীর বরাত দিয়ে বলেন, সকাল ১০টার ফ্লাইটে লন্ডন যেতে চেয়েছিলেন তাহসিনা রুশদির লুনা। কিন্তু তাকে আবারো বিদেশে যেতে বাধা দেয় বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশ। এ সময় তিনি তার আইনজীবীর সঙ্গে পরবর্তী পদক্ষেপ সম্পর্কে পরামর্শ করেন। তবে কিছুক্ষণের মধ্যে তাকে যাওয়ার সুযোগ দেয় ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষ।শায়রুল জানান, ইলিয়াস আলী ও তাহসিনা রুশদির লুনা দম্পতির বড় ছেলে আবরার ইলিয়াস লন্ডনের ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্ট ইংল্যান্ড থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেছে। সেখানে তার আনুষ্ঠানিক সম্মেলনে উপস্থিত থাকার কথা ছিল তাহসিনা রুশদির। গত রবিবার সকালে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে তার লন্ডন যাওয়ার শিডিউল ছিল। কিন্তু বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে যেতে দেয়নি।পরে উচ্চ আদালতে রিট করেন ইলিয়াস আলীর স্ত্রী। আদালত তাকে বিদেশ যেতে বাধা না দেয়ার নির্দেশ দেন।প্রসঙ্গত, ইলিয়াস আলী ও লুনা দম্পতির তিন সন্তানের মধ্যে বড় ছেলে আবরার ইলিয়াস যুক্তরাজ্যের বিস্টলে ইউনির্ভাসিটি অব ওয়েস্ট ইংল্যান্ডে এলএলবিতে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেছেন। ছোট ছেলে লাবিব সারার যুক্তরাজ্যের কভেন্ট্রি ইউনির্ভাসিটিতে অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। ইলিয়াস আলী নিখোঁজের সময় ক্লাস থ্রিতে পড়ুয়া একমাত্র মেয়েটি এখন অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!