রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ১৬ প্রস্তাব

নিজস্ব সংবাদদাতা : রোহিঙ্গাদের উপর চালানো নিপীড়নকে গণহত্যা, গণসহিংসতা, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং জাতিগত নিধনের ঘটনা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে ঢাকায় অনুষ্ঠিত একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে। এতে অংশ নেয় বাংলাদেশসহ সাতটি দেশের প্রতিনিধি।

‘রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকট: টেকসই সমাধানের লক্ষ্যে’ শিরোনামে দুই দিনের এই সম্মেলন শেষ হয়েছে মঙ্গলবার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে হয় এই আয়োজন।

সম্মেলন শেষে নেয়া হয় ‘ঢাকা ঘোষণা’ যাতে অবিলম্বে রোহিঙ্গাদেরকে মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

ঘোষণাটি জাতিসংঘ, বাংলাদেশ, মিয়ানমারসহ বিভিন্ন দেশের সরকার, বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিক মিশনসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানও ব্যক্তির কাছে পাঠানো হবে।

ঘোষণায় বলা হয়, ‘দ্রত বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের সম্মানজনক, সর্বজন স্বীকৃত এবং নিরাপদ প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করতে হবে। একই সঙ্গে যারা এই ঘটনায় দায়ীদের বিচারের আওতায় এনে রোহিঙ্গাদের পর্যাপ্ত মানবিক এবং অন্যান্য সহায়তা দিতে হবে।’

একশন এইড, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ আয়োজিত সম্মেলনের সমাপনী দিনে বাংলাদেশ সরকার, সাবেক ও বর্তমান কূটনৈতিক, গবেষক ও ১১টি দেশের প্রতিনিধিরা এই ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন।

ঘোষণায় বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, থাইল্যান্ড, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, সুইডেন এবং সিঙ্গাপুরের বিশেষজ্ঞরা সংহতি জানান।

১৬ সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব

ঢাকা ঘোষণায় ১৬টি সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব তুলে ধরা হয়। যেখানে বলা হয়, জাতিংঘের চার্টার অনুসারে গণহত্যা এবং গণ-দেশান্তরের মত পরিস্থিতিতে রোহিঙ্গা সংকটের টেকসই সমাধানের আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসতে হবে।

রোহিঙ্গা নারী, শিশু এবং অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ গোষ্ঠীর নিরাপত্তা এবং অধিকার নিশ্চিতে জাতিসংঘ এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সদস্যদের যথাযথ কূটনৈতিক চ্যানেলসমূহ ব্যবহারের মাধ্যমে পর্যাপ্ত মানবিক এবং অন্যান্য সহায়তা প্রদানের আহ্বান জানানো হয় ঢাকা ঘোষণায়।

মিময়ানমারে চলমান গণহত্যা, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং জাতিগত নিধনেও তদন্ত এবং অপরাধীদের বিচারের দাবিও করা হয় ঘোষণায়। রোহিঙ্গাদের রক্ষায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সক্রিয়ভাবে কাজ করার আহ্বান জানানো হয় এতে।

রোহিঙ্গাদের সামাজিক-সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক অধিকার সমুন্নত রাখতে আইন প্রণয়নসহ সকলের জন্য নাগরিক অধিকার ও মর্যাদা পুনরুদ্ধার ও রক্ষায় মিয়ানমারের দায়িত্বের উপরও জোর দেয়া হয়।

রোহিঙ্গাদের উপর সহিংসতা প্রতিরোধে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ের শক্তিশালী সহযোগিতার উপর জোর দেয়া, রোহিঙ্গা সংকটের স্থায়ী সমাধানে বাংলাদেশকে সহায়তা প্রদান, রোহিঙ্গা শরণার্থীর কারণে বাংলাদেশিদের ওপর যে প্রভাব পড়েছে তার স্বীকৃতি দেয়ার সুপারিশও করা হয় এতে।

জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে টেকসই সমাধানে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে ন্যায়বিচার প্রাপ্তি, লিঙ্গভিত্তিক ন্যায্যতা ও সমতা; শিশু সুরক্ষা, সুশাসনের নীতি, স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতার বিষয়গুলো অন্তর্ভূক্ত এবং বাস্তবায়ন করার সুপারিশও করা হয়।

মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ জরুরি

আয়োজকদের পক্ষ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ ‘ঢাকা ঘোষণা’ উপস্থাপন করেন।

এরপর এর ওপর উপর বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী। তিনি বলেন, `মিয়ানমার আন্তর্জাতিক নীতি অনুসারে কাজ করছে না বলেই সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।’

‘আমাদের মনে রাখতে হবে এই সমস্যা আমাদের কারণে তৈরি হয়নি। তাই সমাধানও শুধু আমরা করতে পারব না। যেখান থেকে সমস্যার উৎপত্তি হয়েছে সেখান থেকেই সমাধান সম্ভব হবে।’

‘মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের অধিকার। তবে আন্তর্জাতিক চাপ এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ছাড়া কোনভাবেই মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানো সম্ভব হবে না। কারণ মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের জন্য নিরাপদ নয়।’

প্রশ্নোত্তর পর্বে ইমিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘রোহিঙ্গারা, ভারত, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া এবং সৌদি আরবসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে আছে। তাদের উপর যে গণসহিংসতা চালানো হয়েছে তা কোনভাবে অবজ্ঞা করা যাবে না। এর বিচার হবেই।’

সমাপনী বক্তব্যে একশন এইড বাংলাদেশ-এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ্ কবির বলেন, ‘আমরা চাই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই মানুষগুলোর সহযোগিতায় এগিয়ে আসুক।’

এর আগে প্রথম অধিবেশনের আলোচনায় সাবেক কূটনৈতিক মোহাম্মদ জমির বলেন, ‘মিয়ানমারে যে গণহত্যা হয়েছে তা এক কথায় অমানবিক। বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ওপ্রতিষ্ঠান সমস্যার সমাধানে ভূমিকা পালন করেনি। উল্টো ক্ষমতাবানরা মিয়ানমারে বিনিয়োগ, নতুন ব্যবসা নিয়ে বেশি চিন্তিত ছিল। যেটা খুবই দুঃখজনক।’

রোহিঙ্গা নেতার করুণ বর্ণনা

সম্মেরনে যোগ দেন যুক্তরাজ্যে বার্মিজ রোহিঙ্গা সংগঠন-এর সভাপতি তুন কিন। তিনি এক সময় মিয়ানমারে থাকলেও পরে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান।

রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে কী পরিস্থিতিতে আছে, সেটি তুলে ধরে তুন কিন বলেন, ‘১৯৮২ সালের পর থেকে মিয়ানমারে আমরা পরগাছার মতো বসবাস করেছি। রোহিঙ্গাদের অধিকার বলতে কিছু নাই।’

‘আইনগতভাবে সেখানে আমরা বিয়ে করতে পারি না। চাকরি করতে পারি না। পড়াশুনা করতে পারি না। আমরা সেখানের নাগরিক না।’

‘আইন করে আমাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিনোদন তারা বন্ধ করে দিয়েছে। তারা আমাদের হত্যা করেছে। আমি জানি না কোন মানবিকতায় এই কাজ করছে।’

‘সব সময় মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ক্যাম্পেইন চলে। জনসম্মুখে কথাও বলতে পারে না রোহিঙ্গারা। এত কিছুরপরও আমরা আমাদের জমিতে টিকে ছিলাম। তবে ২৫ আগস্ট ২০১৭ সালে শেষ পেরেক মারল মিয়ানমার সরকার। গণহত্যা চালালো আমাদের উপর।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.