রোগ-ব্যাধির কারণ অলস জীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিশ্বের অন্যনা দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষের রোগ-ব্যাধি বাড়ছে। এর মূল কারণ অলস জীবন যাপন করা। এমনটাই জানালেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ড. আবুল কালাম আজাদ।

বৃহস্পতিবার ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের দ্বিতীয় দিন বিকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. আজাদ বলেন, অন্যন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষে রোগব্যাধিতে আক্রান্তের হার বেশি। রোগে আক্রান্তদের ঝুঁকি সারা বিশ্বের তুলনায় ৫ থেকে ৯ শতাংশ বেড়েছে।

সেমিনারের বিষয় ছিল ট্রান্সফর্মিং অব হেলথকেয়ার ইন ডিজিটাল স্পেস অ্যান্ড ইটস ফিউচার।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নাগরিকদের কল্যাণে বিভিন্ন ডিভাইস নিয়ে কাজ করছে জানিয়ে আবুল কালাম আজাদ বলেণ, ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি ডিভাইস উদ্ভাবন করা হয়েছে। এসব ডিভাইসের সহায়তায় ঘরে ঘরে বসেই স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার সুযোগ মিলছে।

তিনি আরও জানান, চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে দীর্ঘ লাইন দিতে হয়। এছাড়াও, টেস্টের খরচও বেশি। এই সমস্যা সমাধানে জনপ্রিয় হচ্ছে হেলথ টুলস। এর মাধ্যমে আক্রান্ত হওয়ায় আগেই স্বাস্থ্যঝুঁকি পরিমাপ করে অনেকক্ষেত্রে মৃত্যুঝুঁকি এড়ানো সম্ভব।

সেমিনারে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রান্তিক জনগণের স্বাস্থ্য সেবায় এগিয়ে আসা প্রতিষ্ঠানকে অর্থ বরাদ্দসহ যাবতীয় সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়।

স্মার্ট টুলস ও মোবাইল অ্যাপসের সমন্বয়ে ব্লাড পেসার, পালস, ব্লাড অক্সিজেন স্যাচুরেশন, শরীরের তাপমাত্রা, ওজন ও উচ্চতা অনুযায়ী ওবিসিটি পরীক্ষাসহ নানা ধরনের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করছে অনেকেই। পরীক্ষা পরবর্তী ফলাফলে ধরা পড়ছে রোগ।

হাসপাতালে না গিয়ে ১০ মিনিটেই এর মাধ্যমে রোগ নির্ণয়ে সক্ষম হচ্ছেন ব্যবহারকারীরা।

প্রয়োজন অনুযায়ী স্বল্পমূল্যে স্মার্ট হেলথ টুলস কিনে এক একটিতে ১০ হাজার বার পর্যন্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো সম্ভব। এছাড়া পর্যায়ক্রমে এলাকাভিত্তিক সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে ১০০ টাকায় ১০ টি স্বাস্থ্য পরীক্ষার সুযোগ তৈরি করে দেয়ার পরিকল্পনা করেছে সিমেড।

অন্যদিকে, শুধুমাত্র হাসপাতালে যেতেই যেই খরচ হয় সেই খরচে পরীক্ষাগুলো করাতে পারছেন সাধারণ রোগীরা। হাসপাতালের বিড়ম্বনা এড়িয়ে মাত্র ১০০ টাকা খরচেই এ সুবিধা পাচ্ছেন তারা।

আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হওয়ায় ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মত রিপোর্ট প্রিন্ট করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া যায়। প্রতিটি ইউজারের অ্যাকাউন্টে হেলথ ডাটা রেকর্ডের সুযোগ থাকায় পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকে তা দেখার সুযোগ রয়েছে পরিবার প্রিয়জনদের।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, দেশে প্রতিবছর বিভিন্ন রোগে মৃত্যুর শতকরা ৬২ ভাগ মারা যায় অসংক্রামক ব্যাধিতে। আক্রান্ত হওয়ার আগেই নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার মাধ্যমে এসব স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়ানো সম্ভব। তবে দেশের প্রান্তিক জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষার পাশাপাশি অসংক্রামক ব্যাধি নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসার আহ্বান সরকারের।

সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) প্রফেসর ডা. আবুল কালাম আজাদ।

‘ট্রান্সফরমেশন অব হেলথকেয়ার ইন ডিজিটাল স্পেস অ্যান্ড ইটস ফিউচার’অনুষ্ঠানের ব্রিফিং করেন সিমেড হেলথের প্রতিষ্ঠাতা ড. খন্দকার আবদুল্লাহ আল মামুন। মামুন বলেন, প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যেই এ সেবা চালু করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, প্রফেসর ডা. হুমায়ূন কবির, প্রফেসর ডা. হান্নান, ডা. রয়সহ আরো অনেকে। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রফেসর ডা. আশরাফ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.