যেসব উৎস থেকে বিসিবি’র আয়

স্পোর্টস ডেস্ক:বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড- বিসিবি একটি সম্পূর্ণ স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান। আলাদা কিছু আয়ের উৎস রয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থার। সেসব আয় থেকেই মূলত বেতন দেয়া হয় ক্রিকেটারদের। নির্বাহ করা হয় অন্যান্য খরচাপাতিও।
সম্প্রতি যেসকল দাবিতে ক্রিকেটাররা ধর্মঘটের ডাক দেয় তার মাঝে অন্যতম হলো বেতন ভাতা বৃদ্ধি করতে হবে। দাবিগুলোর অন্যতম ছিল ক্রিকেটারদের বেতন-ভাতাদি বাড়ানো। তাদের এ দাবি নিঃসন্দেহে যুক্তিসঙ্গত। কারণ বিসিবির সেই সামর্থ্য আছে।
কিন্তু এ দাবির ব্যাপারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন ধরণের বক্তব্য দেখা যায়। অধিকাংশ মানুষের ধারণা ক্রিকেটাররা সরকারের থেকে বেতন নেন। অর্থাৎ দেশের মানুষের করের টাকা থেকে বেতন পান ক্রিকেটাররা। তবে এটি সম্পূর্ণ একটি ভ্রান্ত ধারণা।
বর্তমানে বিশ্বের পঞ্চম ধনী ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি। প্রশ্ন আসতেই পারে, কীভাবে এ পর্যায়ে এলো দেশের ক্রিকেট সংস্থা। তাদের আয়ের উৎসই বা কী কী?
বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের আয়ের একটি বড় উৎস আইসিসি থেকে পাওয়া অর্থ। বর্তমানে সেখান থেকে প্রতি বছর ১২ কোটি ৮০ লাখ ডলার পায় বিসিবি।
এছাড়া আইসিসি আয়োজিত বিভিন্ন টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে বিসিবি। এসব টুর্নামেন্টও বিসিবির আয়ের একটি উৎস। প্রতিটি ম্যাচ জয়ের উপর এখানে অর্থের পরিমাণ নির্ভর করে।
বিসিবির আয়ের আরেকটি বড় খাত টিভি স্বত্ব। ২০১৪ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত টিভি স্বত্ব পেয়েছে গাজী টিভি। ছয় বছরে এখান থেকে ১৬০ কোটি টাকার বেশি পাবে বোর্ড।
এ ছাড়া ডিজিটাল রাইটস ও টিমের স্পন্সর থেকে আয় করে বিসিবি। অর্থ আসে বিভিন্ন টুর্নামেন্টের স্পন্সর থেকেও। হোম সিরিজে স্টেডিয়ামের ভেতরে দেয়াল, গ্যালারি, সাইটস্ক্রিন, বাউন্ডারি সীমানায় আমরা প্রচুর বিজ্ঞাপন দেখতে পারি। এসব বিজ্ঞাপন থেকেও মোটা অঙ্কের অর্থ আসে বিসিবিতে।
ফলে একথা নিশ্চিতভাবে বলা যায়, ক্রিকেটারদের পারফরমেন্সের সঙ্গে সঙ্গে স্পন্সর ও অন্যান্য অসংখ্য উৎস থেকে আয় করে বিসিবি। যা এই ক্রিকেট বোর্ডকে অন্যতম ধনী ক্রিকেট বোর্ডে পরিণত করেছে।