1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ১০:৫২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

মুনাফাখোরের পাল্লায় রোহিঙ্গারা

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : সোমবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
  • ৮ বার পড়া হয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : নির্যাতনের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দুর্দশাকে পুঁজি করে এক শ্রেণীর ব্যবসায়ী ও লোকজন মোটা অঙ্কের মুনাফা লুটছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশ পর্যন্ত নৌকায় পৌঁছতে দুপাশেই অনেকে বড় অংকের অর্থ দেয়ার অভিযোগ করেছেন পালিয়ে আসা অনেক শরণার্থী। এছাড়া থাকার খুপরি বানাতে বাঁশ আর পলিথিনের দামও বেড়েছে বলে অভিযোগ তাদের। খবর বিবিসির।

বিবিসির ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, যাতায়াতেও রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে অনেক বেশি অর্থ নেয়া হচ্ছে। তবে এ ধরনের লোকদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে সাজা দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিজিবি ও স্থানীয় পুলিশ।

গত ২৪ আগস্ট রাখাইনে দুই ডজনের বেশি সেনা ও পুলিশ ক্যাম্পে হামলার পর রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের ধরার নাম করে সেনাবাহিনী সেখানে ধারাবাহিক হামলা-নির্যাতন অগ্নিসংযোগ শুরু করে। নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা পেতে হাজার হাজার রোহিঙ্গার ঢল নামে বাংলাদেশ মুখে। ইতোমধ্যে চার লাখের মতো রোহিঙ্গা কক্সবাজারের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে। নৌকায় করে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশ পর্যন্ত আসার সময় দুপাশেই অনেকে বড় অংকের অর্থ দিতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করছেন অনেক রোহিঙ্গা। এছাড়া থাকার খুপরি বানাতে বাঁশ আর পলিথিনের দাম বহুগুণ বেড়েছে।

গতকাল রাতে মংণ্ডূর শিগদাপাড়ার আজিজুর রহমান নৌকায় করে এসে পৌঁছেছেন শাহপরীর দ্বীপ। সেখান থেকে আবারো নৌকায় করে টেকনাফের নয়াপাড়া। তিনি বলেছেন, পরিবারের ১৮ জন সদস্যকে নিয়ে নৌকায় করে আসতে ওপারেই তাকে বার্মিজ মুদ্রায় ১৮ লাখ দিতে হয়েছে।

আজিজুর বলেন, তার পাড়ার প্রায় সব বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। তাই জীবনের ভয়ে বাঁচতে এই অর্থ তাকে খরচ করতে হয়েছে।

বাংলাদেশ অংশে পৌঁছানোর পর তার মতো বিপদগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের সহায়তা করছে বহু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। কিন্তু একই সাথে কক্সবাজার অঞ্চলে রোহিঙ্গাদের দুর্দশাকে কেন্দ্র করে নানা ধরনের ব্যবসা গড়ে উঠেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

টেকনাফের স্থানীয় সাংবাদিক এম আমানুল্লাহ আমান বলছেন, বৃষ্টি থেকে বাঁচতে অনেকেই ছোট খুপরি বানাচ্ছেন। বাঁশ ব্যবসায়ীরা একটা বাঁশ যেখানে বিশ টাকা করে বিক্রি করতো সেটা চল্লিশ পঞ্চাশ টাকায় বিক্রি করছে। এছাড়া পলিথিনের দাম তাও দ্বিগুণ হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীরা রোহিঙ্গাদের নিয়ে ভালোই নানা রকম ব্যবসা শুরু করেছেন। এছাড়া এই এলাকায় চালের দামও বস্তায় পাঁচ থেকে সাতশো টাকা বেড়েছে।

বিজিবির টেকনাফ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফুল ইসলাম বিবিসিকে জানিয়েছেন, নৌকায় করে রোহিঙ্গাদের আনা-নেয়ার একটি ব্যবসা তারা দেখেছেন এবং সেটি বন্ধ করারও চেষ্টা করছেন তারা। তিনি জানান, মাছ ধরার নাম করে তারা সাগরে যাচ্ছেন এবং এমন কাজ করছেন। এখন আমরা জেলা প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছি।’

বাংলাদেশে পৌঁছার পর একটু খুপরি তৈরি করতে বেশ অর্থ খরচ হচ্ছে এমনটা জানতে চাইলে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার একেএম ইকবাল হোসেন বলছেন এ ধরনের ঘটনা ঠেকাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে।

তিনি বলছেন, ‘কেউ যেন অসহায় মানুষদের নিয়ে ব্যবসা না করতে পারে সেজন্য আমরা তৎপর আছি। যদি আমরা এরকম খোঁজ পাই তাহলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়ে নানা মেয়াদে সাজা দেয়া হচ্ছে। এখনো পর্যন্ত আমরা আমরা ভ্রাম্যমাণ আদালত দিয়ে এপর্যন্ত আমরা ২৭০ জনকে সাজা দিয়েছি।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!