মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক কুদ্দুস আজাদের মৃত্যুবার্ষিকী বুধবার

নিজস্ব সংবাদদাতা : মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক আব্দুল কুদ্দুস আজাদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী আগামীকাল বুধবার।

তিনি নেত্রকোণার মোহনগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও পরে সভাপতি ছিলেন। পরপর দুইবার মোহনগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন।

১৯৭১ সালে সম্মুখযুদ্ধে আহত হলে মহেশখোলা ক্যাম্পে চিকিৎসা নেয়ার সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী অন্যান্য যুদ্ধাহতদের সঙ্গে আব্দুল কুদ্দুস আজাদের সঙ্গে দেখা করেছিলেন।

পৌরসভা চেয়ারম্যান হিসেবে দ্বিতীয়বার নির্বাচিত হওয়ার পর এরশাদ সরকারের রোষানলে পড়ায় চেয়ারম্যানের মেয়াদ পুরো করতে পারেননি। তিনি ১৯৮২ সাল থেকে ’৯০ সাল পর্যন্ত এরশাদের স্বৈরাচারী নীতির বিরোধিতা করে দলকে স্থানীয়ভাবে ঐক্যবদ্ধ রেখেছিলেন। তার সাংগঠনিক দক্ষতা, দেশপ্রেম ও জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে চেয়ারম্যান পদ হারান।

স্থানীয়ভাবে খবর নিয়ে জানা যায়, চেয়ারম্যানের পদ গেলেও নীতির সঙ্গে কোনো সময় আপস করেননি আব্দুল কুদ্দুস আজাদ। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ তথা বঙ্গবন্ধুর নীতি আদর্শের প্রতীক হয়ে কাজ করে গেছেন। জোট সরকারের আমলেও তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের ক্ষমতার দাপটের কাছে নতিস্বীকার না করে দলের পতাকা তুলে ধরেছেন। নেতাকর্মীদের মনোবল দিয়ে মাঠে রেখেছেন। কুদ্দুস আজাদ জীবিত থাকাকালে মোহনগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তি মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি।

আব্দুল কুদ্দুস আজাদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করে তার পরিবারের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা শফী আহমেদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.