মিরপুরের ‘রহস্যময়’ উইকেটে মহাবিরক্ত মাশরাফি-তামিম

সিলেট ও চট্টগ্রামে বেশ ভালোই রান হয়েছে। ওখানকার উইকেট পুরোপুরি স্পোর্টিং না হলেও মোটামুটি খুশি ছিলেন ক্রিকেটাররা। কিন্তু ঢাকার উইকেট তাদের জন্য মহা বিরক্তের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখানকার রহস্যময় উইকেট তাদের জন্য রীতিমতো দুর্বোধ্য। ব্যাটসম্যানরা শুধু নন, উইকেটের আচরণে তাজ্জব বনে যাচ্ছেন বোলাররাও।

শনিবার প্রথমে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ৯৭ রান তুলতে পারে রংপুর রাইডার্স। সামান্য এই স্কোর চেজ করে যেভাবে জেতা উচিৎ ছিল সেটা পারেনি কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এই রান চেজ করতেই গলদঘর্ম অবস্থা তামিমদের। ম্যাচ শেষে দুই দলের অধিনায়ক রাজ্যের ক্ষোভ ঝাড়লেন মিরপুরের উইকেটের উপর।

মাশরাফি বললেন, ‘এমন উইকেটে টি-টোয়েন্টি হলে দশর্করা দেখে মজা পাবেন না। আমরা তো উইকেটের রহস্যই ভেদ করতে পারছি না। যে বল দুই হাত উপর ওঠার কথা সে বল উঠছে কোমর সমান। অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজে এমন আচরণ করেছিল। কিন্তু এটা তো টি-টোয়েন্টি। এখানে ভালো উইকেট না হলে খেলা জমবে না। আমরা খেলে যেমন মজা পাব না, তেমনি দর্শকরাও মজা পাবে না। উইকেট যারা বানিয়েছেন তারা নিশ্চিয়ই অনভিজ্ঞ নন। এর আওে তারা ভালো উইকেট বানিয়েছেন। কিন্তু বিপিএলে এমন উইকেট কেন? সবার উচিৎ উইকেট পর্যবেক্ষণ করা। কী কারণে উইকেট এমন আচরণ করছে তা বের করা। এমন উইকেটে খেলা সত্যিই খুব কঠিন ব্যাপার।’

ম্যাচ জিতেও উইকেট প্রশ্নে মাশরাফির সমালোচনা ছাড়িয়ে গেলেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স অধিনায়ক তামিম ইকবাল খান। ঢাকার উইকেট নিয়ে এতটাই বিরক্ত যে, বিপিএলের ফাইনাল প্রয়োজনে চট্টগ্রামে সরিয়ে নিতে বললেন তিনি। তামিম বলেন, ‘অন্য সময় তো এমন আচরণ করে না। শুধু বিপিএল আসলেই উইকেট এমন হয় কেন? যে বানিয়েছেন তাকে জিজ্ঞাস করা উচিৎ, উইকেট এমন হলো কেন? উইকেটের যা অবস্থা তাতে ফাইনাল এখানে নয়, চট্টগ্রামে হলেই ভালো হবে। ৯৮ রান চেজ করে যেভাবে জেতা দরকার ছিল সেটা আমরা পারিনি। ১০-১২ ওভারেই শেষ হতে পারত। অথচ..।’

তামিম শঙ্কিত জানুয়ারি সিরিজ নিয়েও। বলেন, ‘আগের উইকেট অনেক ভালো ছিল। আউটফিল্ডও সুন্দর এবং ফাস্ট ছিল। আউট ফিল্ড দেখতেও ভালো লাগতো। এখনকার ঘাস দেখতেও ভালো লাগে না। সামনে সিরিজের আগে তো সময় কম। তার আগে উইকেট ঠিক করাও কঠিন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.