1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন

মানুষ আগে চাইত খাবার, এখন চায় জিম: প্রধানমন্ত্রী

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৫ জুলাই, ২০১৭
  • ১০ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : সরকারের টানা আট বছরের শাসনামলে দেশে ব্যাপক অর্থনৈতিক উন্নয়ন হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ক্রয়ক্ষমতা বাড়ায় এখন মানুষের চাহিদাও পাল্টে গেছে। ধামরাইয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক প্রধান সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদের একটি বৈঠকের উদাহরণ টেনে সরকার প্রধান বলেন, সেখানে নারীরা এখন চায় জিম, আর ছেলেরা চায় ফিজিওথেরাপি।মঙ্গলবার নিজ কার্যালয়ে জেলা প্রশাসক সম্মেলন উদ্বোধনের আগে দেয়া বক্তব্য এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। দেশের উন্নয়নে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ এবং ২০০৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত সরকারের নানা পদক্ষেপ তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।
‘আমাদের পাঁচ কোটি মানুষ নিম্নবিত্ত থেকে মধ্যবিত্তে উঠে এসেছে। শুধু দারিদ্র্য হ্রাসই নয়, মানুষের জীবনমান, জীবনযাত্রা উন্নত হচ্ছে, তাদের চাহিদাও পরিবর্তন হচ্ছে।’-বলেন প্রধানমন্ত্রী। জানান, উন্নয়নের কারণে মানুষের চাহিদাও পাল্টে গেছে অনেকাংশে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে দেশের মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে, ৮০ ভাগ মানুষ পাচ্ছে, বিদ্যুতের চাহিদাটাও বাড়ছে, যেহেতু অর্থনৈতিকভাবে তাদের ক্রয়ক্ষমতা বাড়ছে, উন্নতি হচ্ছে, আমাদের হিসাবনিকাশ পাল্টে যাচ্ছে, তাদের চাহিদাটাও বাড়ছে।’‘৮১ সালে বাংলাদেশে আসার সময় যখন গ্রাম বাংলায় যখন ঘুরে বেড়াতাম, মানুষ একটা জিনিসই চাইত। পেটের ক্ষুধা মেটাতে খাবার চাইতো। তাদের পরনে তখন জীর্ণ কাপড়, তারা তখন ভাত-কাপড় চাইত, মাথা গোঁজার ঠাঁই চাইত। এখন কিন্তু গ্রামে গেলে চাহিদাটাও পাল্টে গেছে। আপনারা তো মাঠ পর্যায়ে কাজ করেন, আপনারা গিয়ে জিজ্ঞেস করলেই জানতে পারবেন। তারা যেটা চায় এখন যেটা হলো, বিদ্যুৎ, রাস্তাঘাট।’সাভারের ধামরাইয়ের একটি গ্রামে মানুষ কী চায় সেটি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘চাহিদাটা আরও পরিবর্তন হয়ে গেছে কিছু কিছু এলাকায়। একটা ছোট্ট কথা বলি, আমাদের এসডিজি কোয়র্ডিনেটর আজাদ, সে গিয়েছিল ধামরাইয়ের একটি গ্রামে। সেখানে ৭ বছর বয়সের ওপর যারা, তাদের সঙ্গে আলোচনা করে জিজ্ঞেস করেছিল আপনাদের কী চাই। তাদের চাহিদাটা ছিল, যারা জানেন তারা জানেন, আর যারা জানেন না তারা কেউ বলতেই পারবেন না।’তাদের চাহিদাটা ছিল, মহিলারা জিম চায় জিম… জিনমেশিয়াম। আর ছেলেরা চায় ফিজিওথেরাপি। কাজেই আপনারা বুঝতে পারছেন, তাদের চাহিদাটা কিন্তু…’শেখ হাসিনা বলেন, ‘এটা সবচেয়ে অবাক হওয়ার খবর, খুশির খবর। মানুষ এখন স্বাস্থ্য সচেতন। এটাই তো আমরা চেয়েছি, মানুষের মধ্যে এই চেতনাটা আসুক। আমরা সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করছি।’টানা আট বছর ক্ষমতায় থাকতে পেরেছে বলেই উন্নয়নের সুফল সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়া গেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের নীতিমালা ছিল, আমরা দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নেব। কিন্তু বিএনপি এডহক ভিত্তিতে প্রকল্প নিত। ২০০৯ সালে সরকার গঠন করে আমরা ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা গ্রহণ করি, সেই সাথে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করি। এটা হলো ১০ বছর মেয়াদী প্রেক্ষিত পরিকল্পনা।’বিএনপি আমলে বাজেট ছিল ৬২ হাজার কোটি টাকা, সেখান থেকে আমার চার লক্ষ ২৬৬ কোটি টাকার বাজেট দিতে পেরেছি। এই সক্ষমতা আমরা অর্জন করেছি। আমরা এক লক্ষ ৫৩ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট দিয়েছি। আমরা এটা চাই, এই উন্নয়ন প্রকল্পগুলো যেন যথাযথভাবে বাস্তবায়িত হয়।’উন্নয়নের পাশাপাশি দেশে আয় বৈষম্যও কমেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পৃথিবীর অনেক দেশ উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে, কিন্তু মূল্যস্ফীতি ধরে রাখতে পারে না। আয় বৈষম্য হ্রাস করতে পারে না। তবে আমাদের উন্নয়ন পরিকল্পনার মূল লক্ষ্যটাই হচ্ছে মাঠ পর্যায়ে, তৃণমূল পর্যায়ে মানুষের সার্বিক উন্নতি। দারিদ্র্য বিমোচন ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন গ্রাম পর্যায় থেকেই যেন হতে পারে, তাহলেই এর সুফল আসবে, আয় বৈষম্য দূর হবে। এবং আমরা তা সফলতার সাথে করতে পেরেছি।’দেশে বন্যার পাশাপাশি নদী ভাঙন দেখা দিচ্ছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, নদী ভাঙনে যারা গৃহহারা হয়েছে তাদের তালিকা করা এবং তাদের ঘরবাড়ি তৈরির ব্যবস্থা করা এবং তাদেরকে যথাযথ সহযোগিতা করতে হবে। এর জন্য যা প্রয়োজন, তা সরকার করবে।সারা বাংলাদেশে একটি মানুষও গৃহহারা থাকবে না, এটাই হচ্ছে আমার সিদ্ধান্ত’ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের হিসাবে দেশে দুই লক্ষ ৮০ হাজার মানুষ এখনও গৃহহীন মানুষ আছে। কাজেই আপনাদের (ডিসি) জেলায় কে কে গৃহহীন, ভূমিহীন, নিঃস্ব, তাদের তালিকা করে যেখানে খাস জমি আছে, সেখানে ঘর করে দিতে পারেন। গুচ্ছগ্রাম, আদর্শ গ্রামসহ আমাদের বিভিন্ন প্রকল্প আছে, তাদেরকে ঘর বাড়ি তৈরি করে দিতে হবে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!