মনের আলোয় আলোকিত ভাই-বোন

নওগাঁর প্রতিনিধি:নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার খট্রেশ্বর গ্রামের বড় বোন মাফিয়া বৃষ্টি (২১) ছোট ভাই আশিক (১১) জন্মগতভাবেই দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। মাফিয়া অনেক চড়াই-উতরাই পার করে বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএ পড়া লেখা করছে। ছোট ভাই আশিক রাজশাহী রাণী বাজারে ফিজিক্যাল হ্যান্ডিক্যাপ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ালেখা করছে।
দুজনই পড়াশুনায় ভালো করায় আক্ষেপ করে বললেন, আল্লাহ আমাদের চোখের আলো না দিলেও মনের আলো দেওয়ায় আলোকিত করতে চাই আমাদের জীবন। সেই আশা নিয়েই সামাজিক-পারিবারিক অনেক বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে আমরা ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছি। করোনা মহামারির কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় আমাদের দুই ভাই-বোনের কিছুটা অসুবিধা হচ্ছে। পাশাপাশি আর্থিক কষ্ট পিছু ছাড়ছে না। গরিব-অসহায় ভ্যানচালক বাবা এত কষ্টের পরও আমাদের পড়ালেখা করাচ্ছেন।
জানা গেছে, রাণীনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের খট্রেশ্বর খন্দকার পাড়া গ্রামের ভ্যানচালক আমজাদ হোসেনের চার ছেলে-মেয়ের মধ্যে দুজন জন্মগতভাবে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। এর মধ্যে মাফিয়া মেজ ও আশিক সবার ছোট। জন্মের পর থেকেই অসহায় বাবা আমজাদ হোসেন দুজনকে চোখের আলো ফুটানোর জন্য দেশের বিভিন্ন চক্ষু হাসপাতালে চিকিৎসা করান। কিন্তু তাদের চোখে আলো ফোটেনি।
মাফিয়া সাত বছর বয়সেই তাদের এক আত্মীয়র সুবাদে রাজশাহীর পিএইচটি প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি হয়। শুরুতে ভালো ফলাফল হওয়ায় পরে বরিশালের এআরএস মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে পড়ালেখা ভালো করায় ওই স্কুল থেকে ২০১৬ সালে জিপিএ ৩.৭৪ পেয়ে এসএসসি পাস করে। উচ্চশিক্ষার জন্য ঢাকার বেগম বদরুননেছা সরকারি কলেজ বকশীবাজার ঢাকা থেকে ২০১৮ সালে জিপিএ ৪.০০ পেয়ে এইচএসসি পাস করে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছে। পড়ালেখার পাশাপাশি মাফিয়া গানের চর্চা ও করছেন।
মাফিয়া বৃষ্টি জানান, যেহেতু আমি জন্মগতভাবেই দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হওয়ায় পড়াশুনা করতে পারব এটা আমার পিতা-মাতা ছাড়া প্রতিবেশি আত্মীয়-স্বজন কেউ বিশ্বাস করত না। ধীরে ধীরে যখন আমি এসএসসি পাস করলাম তখন তারা বুঝতে পারলেও অর্থিক অসুবিধা আমার পিছু ছাড়ছিল না। চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন আমি ভর্তি হতে যাব টাকার অভাবে ভর্তি একপর্যায় অনিশ্চিত হয়ে পড়ে। প্রতিবেশী এক ভাইয়ের সহযোগিতায় তৎকালীন নওগাঁ জেলা প্রশাসক মিজানূর রহমান স্যারের সাথে দেখা করলে আমার বিষয়টি শুনে তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে নগদ ১০ হাজার টাকা দিয়ে আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি হওয়ার সুযোগ করে দেন। পড়াশোনার জন্য আমরা দুই ভাই-বোন প্রতিবন্ধী ভাতা পাই। আমার স্বপ্ন শিক্ষক হব। আর এই স্বপ্ন সফলের আশায় এগিয়ে যাচ্ছি।
রাণীনগর সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান পিন্টু জানান, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ভাই-বোন মাফিয়া ও আশিক সম্পর্কে আমার জানা আছে। তারা যদি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে, আমার পরিষদের পক্ষ থেকে সরকারি যে সকল সুযোগ-সুবিধা আছে ওই পরিবারকে সহযোগিতা করব। যেহেতু মেয়েটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছে তাতে অনেক খরচ। প্রয়োজনে আমি ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সহযোগিতার চেষ্টা করব।
রাণীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল-মামুন জানান, মাফিয়া ও আশিকের পরিবার সম্পর্কে আমার জানা আছে। মাফিয়াকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ব্যাপারে আমি সহযোগিতা করেছি। আগামীতেও এ সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।