মধুর সমস্যায় পড়েছে ইংল্যান্ড টিম ম্যানেজমেন্ট

ক্রীড়া ডেস্ক: করোনাপরবর্তী সময়ে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ দিয়েই আবারো মাঠে গড়িয়েছে ক্রিকেট। প্রথম দুই ম্যাচ শেষে সমতায় রয়েছে দুই দল। সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্টের আগে মধুর সমস্যায় পড়েছে ইংল্যান্ড টিম ম্যানেজমেন্ট।
সমস্যাটি সব দল ও কোচের কাছেই কাঙ্ক্ষিত। দলে পারফর্মারের সংখ্যা এতটাই বেড়েছে যে ইংলান্ডের কোচ ক্রিস সিলভারউড ভেবে পাচ্ছেন না ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে শেষ টেস্টের একাদশে কাকে রেখে কাকে নেবেন!
মূলত পেস আক্রমণে জায়গা পাওয়া নিয়েই হচ্ছে প্রধান লড়াই। প্রথম দুই টেস্টে সম্পূর্ণ ভিন্ন দুটি পেস আক্রমণ খেলিয়েছে ইংল্যান্ড। প্রথম টেস্টে অভিজ্ঞ জিমি অ্যান্ডারসনের সঙ্গে একাদশে ছিলেন মার্ক উড ও জোফরা আর্চার। পরের টেস্টে স্টুয়ার্ট ব্রডের সঙ্গী ছিলেন ক্রিস ওকস ও স্যাম কারান। শুধুমাত্র পেস বোলিং অলরাউন্ডার বেন স্টোকসই দুই টেস্টের একাদশে ছিলেন।
পেসারদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সই একাদশে জায়গা পাওয়ার লড়াই জমিয়ে তুলেছে। প্রথম টেস্টে অ্যান্ডারসন ও আর্চার দুজনই নিয়েছিলেন তিনটি করে উইকেট, মার্ক উড দুটি। পরের টেস্টে অ্যান্ডারসন ও উডকে বিশ্রাম দেয়া হয়, শৃঙ্খলাভঙ্গের ঘটনায় বাদ পড়েন আর্চার।
প্রথম টেস্টের দলে জায়গা না পাওয়ায় প্রকাশ্যেই নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করেন ব্রড। দ্বিতীয় টেস্টে আগুনে বোলিংয়ে দুই ইনিংস মিলিয়ে ৬ উইকেট নিয়েছেন তিনি। এছাড়া দারুণ বোলিংয়ে এই টেস্টে ৫ উইকেট নিয়েছেন ক্রিস ওকস, চমৎকার সুইং বোলিংয়ে কারান নিয়েছেন ৩টি উইকেট।
শেষ টেস্ট যারা জিতবে সিরিজ হবে তাদেরই। এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে টেস্ট ইতিহাসের সফলতম পেসার অ্যান্ডারসনকে বাইরে রাখার ঝুঁকি নিতে চাইবে না ইংল্যান্ড। গতি-বাউন্সের জন্য আর্চারকে বাইরে রাখাও কঠিন। সেক্ষেত্রে লড়াই হবে আরেকটি জায়গা নিয়ে।
অভিজ্ঞতার পাশাপাশি গত টেস্টের অসাধারণ বোলিং মিলিয়ে তৃতীয় বোলার হওয়ার ক্ষেত্রে নিশ্চিতভাবেই এগিয়ে থাকবেন ব্রড। গত দুই বছরের পরিসংখ্যানে বিশ্ব ক্রিকেটেই দ্বিতীয় সফলতম টেস্ট পেসার তিনি। কিন্তু ওকস তার কার্যকারিতা দেখিয়েছেন, বাঁহাতি পেসার কারানও সুইং আক্রমণে বৈচিত্র যোগ করছেন। ফলে তাদেরকে উপেক্ষা করাও হবে কঠিন।
এতজনের লড়াইয়ে আপাতত কিছুটা পিছিয়ে আছেন উড। এদিকে নেটে দারুণ বোলিং করে গেলেও ক্রেইগ ওভারটন, অলিভার স্টোন ও অলিভার রবিনসনের এই ম্যাচে খেলার আশা নেই বললেই চলে।
তিনজনের কার্যকর পেস আক্রমণ বাছতে ইংল্যান্ডকে যে কঠিন ভাবনার মধ্য দিয়ে যেতে হবে সেটা নিশ্চিত। কিন্তু ইংল্যান্ড কোচ সিলভারউডকে বাদ পড়াদের ঠিকভাবে সামলানো নিয়েও ভাবতে হবে। ম্যাচের আগে মঙ্গলবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে ইংল্যান্ড কোচ এইটুকু নিশ্চিত করেছেন, শেষ টেস্টে কোনো বিশ্রাম বা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পথে যাবেন না তারা।
তিনি বলেন, সম্ভাব্য সবচেয়ে শক্তিশালী বোলিং আক্রমণ নিয়েই আমাদের মাঠে নামতে হবে। সবাইকে সবসময় খুশি করা কঠিন। ব্যাপারটি হলো সিদ্ধান্ত গ্রহণে সৎ থাকা এবং যা করতে চাচ্ছি সেটি নিয়ে খোলামেলা কথা বলা।
তিনি আরো যোগ করেন, সবাই সব ম্যাচে খেলতে চায়। ওরা সবসময় খেলতে না চাইলেই বরং আমি হতাশ হব। তবে যখন বিশ্বমানের ক্রিকেটারদেরও একাদশের বাইরে রাখতে হয়, তখন বুঝতে হবে ইংল্যান্ড দল দারুণ অবস্থায় আছে। যতটা সম্ভব সৎ সিদ্ধান্ত নেয়ার চেষ্টা করতে হবে।
পেস আক্রমণ ছাড়াও আরো দুটি জায়গা নিয়ে আলোচনা চলছে। দলের একমাত্র স্পিনার ডমিনিক বেস ও উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান জস বাটলারকে নিয়ে নিয়মিতই প্রশ্ন উঠছে। বাঁহাতি স্পিনার জ্যাক লিচ ও জনি বেয়ারস্টোকে অনেকেই সুযোগ দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। তবে পরের টেস্টেও বেস ও বাটলারের ওপর ভরসা রাখার ইঙ্গিত দিয়েছেন সিলভারউড।