1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন

ভারতীয় গরু কম আসায় স্বপ্ন দেখছে খামারিরা

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : রবিবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৭
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের সীমান্তবর্তী উপজেলা শার্শা ও বেনাপোলের তিন হাজার খামারে ২১ হাজার গবাদিপশু মজুদ রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন পশু খামারে পরিচর্যা ও নিবিড় পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে গরু ও ছাগলগুলো হয়ে উঠছে হৃষ্টপুষ্ট ও সুন্দর। এবার ভারত থেকে গরু কম আসায় কোরবানির বাজার স্থানীয় খামারিদের দখলে থাকবে বলে আশা করছেন তারা।বেনাপোল বাজার থেকে পাঁচ কিলোমিটার দক্ষিণে ভারত সীমান্তঘেঁষা গ্রাম পুটখালীতে ছয় বছর আগে নাছির উদ্দিন নিজ উদ্যোগে গড়ে তোলেন একটি গরুর খামার, সেখানে ২০০ গরুর সার্বক্ষণিক পরিচর্যার দায়িত্বে আছেন ২২ জন কর্মচারী।নাসির বলেন, ‘আগে ভারতীয় গরুর ব্যবসা করতাম। বিএসএফের কড়াকড়ির কারণে ছয় বছর আগে নিজেই খামার গড়ে তুলি। স্থানীয় বাজার থেকে কেনা প্রতিটি গরু ৬-৭ মাস খামারে রেখে পরিচর্যা করার পর বিক্রি করলে ভালো লাভ হয়। বর্তমানে আমার দুটি খামার রয়েছে। ভারতীয় গরু কম আসায় এ বছর ভালো লাভ হবে আশা করি।’উপজেলার সামটা বাজারের পাশে মনোয়ারা বেগমের গরুর খামারে আটটি গরু। মনোয়ারা বলেন, ‘পাঁচ বছর আগে ১২ হাজার টাকা দিয়ে একটি গরু কিনে এই ব্যবসায় শুরু করি। ভারত থেকে গরু আসার কারণে প্রতিবছর লোকসানে পড়ছিলাম। এবছর গরু আসা কমে যাওয়ায় ভালো লাভের আশা করছি। প্রতিটি গরু অন্তত এক লাখ টাকা দরে বিক্রির আশা রাখি। উপজেলার ত্রিমোহিনী শ্যামলাগাছির আশানুর রহমান, সাদিকুর রহমান, খলিলুর রহমান, নারায়ণপুরের তারিক হোসেন, মিজানুর রহমান, উলাশীর তুহিনা বেগম, শার্শার সমর সরকারসহ অন্তত দেড় হাজার খামারি কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে তাদের পশু প্রস্তুত করছেন।পুটখালি খাটালের ইজারাদার নাসিম রেজা পিন্টু ও অগ্রভুলোট খাটালের ইজারাদার আব্দুর রশিদ বলেন, ‘সীমান্তেরআট কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থিত হাটগুলো বিএসএফ সরিয়ে নিতে বলেছে। ফলে ভারতের উত্তর ২৪ পরগনার পাঁচপোতা, নদীয়ার হাকনাবাড়ি, মালদার পাপুয়াহাট আর মুর্শিদাবাদের কৃষ্ণপুর, ধনিরামপুর ও ধুলিয়ানহাট বিএসএফের কড়াকড়ির ফলে এখন আর জমছে না। ওইসব হাট থেকেই মূলত আমাদের দেশে গরু আসে। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা জয়দেব সিংহ বলেন শার্শা উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন ও বেনাপোল পৌরসভায় মোট পশু খামারের সংখ্যা তিন হাজার ২৫২টি। যেখানে কোরবানি-উপযুক্ত পশু আছে ২০ হাজার ৭৩৭টি। এর মধ্যে গরু ১৫ হাজার, ছাগল পাঁচ হাজার ১৬০টি আর ভেড়া আছে ৫৭৭টি। এই উপজেলায় কোরবানির পশুর আনুমানিক চাহিদা পাঁচ হাজার ছাগল ও ভেড়া এবং তিন হাজার গরু। বেশিরভাগ খামারে গরু মোটাতাজা করা হয়। গাভী ও ছাগলের কয়েকটি খামারও রয়েছে বলেও জানান তিনি। ভারতীয় গরু-ছাগল এবার কম আসায় ঈদকে সামনে রেখে খামারিরা এ বছর ভালো লাভ করবেন বলেও জানান। ভারতীয় গরু যে এবার কম আসছে, তা নাভারন পশু করিডোরের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা সোমা রানী পালও জানালেন। তিনি জানান, পুটখালি, দৌলতপুর, অগ্রভুলোট, গোগা ও রুদ্রপুর খাটাল দিয়ে চলতি আগস্ট মাসে ভারত থেকে পশু এসেছে মাত্র সাড়ে আট হাজার। আগে যেখানে প্রতিদিন তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার পশু আসতো। চলতি মাসে কোরবানি পর্যন্ত এ সংখ্যা ক্রমান্নয়নে আরও বাড়বে বলে কাস্টম ও গরু ব্যবসায়ীরা ধারণা করছেন। এ থকে রাজস্ব আয় হযেছে ৪২ লাখ টাকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!