ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলা ডি সিলভার আত্মসমর্পণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : অবশেষে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছেন ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলা ডি সিলভা। দুর্নীতির দায়ে ১২ বছরের কারাদণ্ডের আদেশের তিন দিন পর তিনি আত্মসমর্পণ করলেন।

রায় ঘোষণার পর তিনি একটি স্টিলওয়ার্কার্স ইউনিয়নের বিল্ডিংয়ে অবস্থান করছিলেন। শনিবার তিনি ওই বিল্ডিং ছেড়ে সাওপাওলো নিকটবর্তী তার বাড়ির দিকে রওনা হন। তখন পুলিশ ৭২ বছর বয়সি এ নেতাকে গাড়িতে করে নিয়ে যায়। সে সময় বেশ কয়েকজন সমর্থক তার গাড়ি ঘিরে ছিলেন।

আত্মসমর্পণের পর লুলা ডি সিলভা বলেন, তিনি তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা মেনে চলবেন, তবে তিনি নির্দোষ।

ব্রাজিল এর গ্লোবোনিউজ এর ফুটেজে দেখা যায় যে, লুলা এবং তার দেহরক্ষীরা বিল্ডিং থেকে ভিড় ঠেলে বাইরে বেরিয়ে আসছেন। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর কুরিতিবার কারাগারে কারাবাস করবেন তিনি।

আগামী অক্টোবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অন্যতম প্রার্থী ছিলেন লুলা ডি সিলভা। তবে কারাদণ্ডের পর তিনি দীর্ঘ সময়ের জন্য নির্বাচন থেকে ছিটকে পড়লেন।

২০০৩ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন লুলা। তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানি পেট্রোব্রাসকে কাজ পাইয়ে দেয়ার শর্তে ১ দশমিক ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ আনা হয়েছে। এই অর্থ তিনি সমুদ্র তীরে তার একটি অ্যাপার্টমেন্টের সৌন্দর্য বাড়ানোর কাজে ব্যয় করেন।

৭২ বছর বয়সী লুলা ডি সিলভা রায়ের পর দাবি করেন, তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। অক্টোবরে অনুষ্ঠিতব্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচন থেকে বিরত রাখার জন্য তার বিরুদ্ধে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।
লুলা ব্রাজিলের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা। তিনি ৭ অক্টোবর নির্বাচনের প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। লুলা ডি সিলভার রাজনৈতিক দল ওয়ার্কার্স পার্টি জানায়, এই রায় গণতন্ত্র এবং ব্রাজিলের জন্য একটি দুঃখজনক দিন।

কারাগারে যাওয়া এড়াতে লুলার আবেদনের ওপর ১১ বিচারক গত ৪ থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত ১০ ঘণ্টার বেশি সময় বিবেচনা ও তর্কবিতর্ক উপস্থাপন করেন। ছয়জন বিচারক লুলার আবেদনের বিপক্ষে আর পাঁচজন পক্ষে রায় দেন।

লুলার আবেদনের পক্ষে বিপক্ষে ৫-৫ ভোট পড়ে। এমন অবস্থায় আদালতের সভাপতি কারমেন লুসিয়া ‘টাই ব্রেকিং’ ভোটটি দেন। তিনি তার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করে বলেন, সাজাকে বিলম্বিত করা হলে তা দায়মুক্তির দিকে যেতে পারে।

লুলার বামপন্থী সমর্থকরা জানিয়েছে, তার শাসন আমলে হাজার হাজার মানুষের দারিদ্র্য ঘোচাতে এই রাষ্ট্রীয় অর্থ ব্যয় করা হয়েছে। নির্বাচনে লুলাকে ঠেকাতেই সরকারের পক্ষ থেকে এই মামলা করা হয়েছে বলে তারা অভিযোগ করেছে। সূত্র: বিবিসি

Leave a Reply

Your email address will not be published.