বাল্যবিবাহর কারণে ঝরে গেল সোনামনি

তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : বদলে গেছে বাল্য বিবাহের ধরণ। বাল্য বিবাহকে না বললেও, তবে বন্ধ হচ্ছেনা বাল্য বিবাহ। গোপনে অহরহ চলছে বাল্য বিবাহের কাজ। অকালে ঝরে যাচ্ছে জীবন। ইউনিয়নে রেজিস্ট্রেশন না করেই কোর্টে গিয়ে নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে চলছে অহরহ বাল্য বিবাহ। স্কুলে শতশত সেমিনার করেও বন্ধ হচ্ছেনা এই বিবাহ। আর এই বাল্য বিবাহর কারনেই জীবন দিতে হল দশম শ্রেণীর মেধাবী ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার সোনামনি (১৫) ।
সুরাইয়া আক্তার সোনামনি সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নের নলতা গ্রামের মৃত শেখ নজরুল ইসলামের মেয়ে । মাত্র দুই বছর বয়সেই পিতাকে হারায় তারপর মায়ের সাথে খেশরা ইউনিয়নের ডুমুরিয়ায় নানার বাড়ি চলে যায়। মা সোনামনিকে রেখে আবার বিয়ে করেন । তাই পরের ঘরে চলে যায় মা। নানার বাড়িতে বড় হয় মেধাবী ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার সোনামনি।
অর্থলোভ-লালসার কারনেই মা আর নানি থেকেই বিয়েতে রাজি করান ড়মুরিয়া স্কুলের দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্রী সোনামনিকে। কিন্তু এই বিয়েই যে প্রাণ নেবে সোনামনির কে জানতো। ৩ মাস আগে খুলনার দাকোপ উপজেলার নলিয়ান গ্রামের সাহবুদ্দিন সানার পুত্র শামীম সানার (৩৫) সাথে বিয়ে হয় সোনামনির। শামীম বাইরে দেশে থাকে, দেশে ফিরেই বিয়ে করে। তার দ্বিতীয় বধু সোনামনি। বিয়ের পরও নানার বাড়িতে থাকতে হয় তাকে। বিয়ের পর স্বামীর বাড়িতে না থাকা, বিভিন্ন ধরনের মানসিক চাপেই দিন পার করতে হয় সোনামনিকে।
সেদিনও সূর্য উঠেছিল, অস্ত গিয়েছিল কিন্তু রাত আসতে না আসতে জীবন হারাতে হয় সোনামনির। হ্যাঁ গত ২২শে অক্টোবর রবিবার ছিল সোনামনির সূর্য দেখার শেষদিন। সন্ধায় স্বামী এবং সতীনের সাথে কথা হয় ফোনে। তাকে কি বলেছিল শামীম যে তার জন্য প্রাণ দিতে হল অল্প বয়সী সোনামনির। কি কথা হয়েছিল তার সতীনের সাথে।
বাল্য বিয়ের বলি হয়ে মানসিকভাবে বিপর্যন্ত হয়ে অবশেষে বিষপান করে। তার নানি বুঝতে পেরে লোকজন যোগাড় করলে তাৎক্ষনিক ভাবে তালা উপজেলা সরকারি হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১টার তার মৃত্যু হয়
এলাকায় পড়েছে শোকের ছায়া। কিন্তু শেষ বারের মত নিজের স্ত্রীকে দেখতে আসেনি শামীম সানা। এভাবেই নিস্পাপ প্রাণ শেষ হয়ে যাবে দিনে দিনে। যার কোন বিচার হবেনা।
ডুমুরিয়া স্কুলের শিক্ষকরা বলেন, এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল সুরাইয়া আক্তার সোনামনি। সে বরাবরের মত মেধাবী। এ কথা বলে কেঁদে ফেলেন কোন কোন শিক্ষক।
খেশরা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান এসএম লিয়াকত হোসেন বলেন, বল্যবিবাহের কারণেই ঝরে গেল সুরাইয়ার মত মেধাবী ছাত্রী। আইন করেও এর কোন প্রয়োগ হচ্ছেনা।
তালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাসান হাফিজুর রহমান বলেন, ময়না তদন্তে কোন আলামত না পাওয়ায় থানাতে একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!