1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. sharifnews24@gmail.com : sharif ahmed : sharif ahmed
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:২৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ব্যাংক হিসাব চাওয়া নিয়ে সাংবা‌দিক ‌নেতা‌দের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই….তথ‌্যমন্ত্রী সিলেটে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে বাবরের মিথ্যা মামলার প্রতিবাদে সার্চের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত। আফগানিস্তানে নারী শিক্ষা কুমিল্লা-৭ আসনের উপ-নির্বাচনে প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা বিদেশ থেকে আপত্তিকর প্রতিবেদন প্রকাশ করলে ব্যবস্থা…তথ্যমন্ত্রী নবম-দশম শ্রেণিতে থাকছে না কোনো বিভাগ….শিক্ষামন্ত্রী নাঙ্গলকোটে ৪ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ডিসেম্বরের মধ্যে ২০ কোটি ডোজ টিকা আসবে নাঙ্গলকোটে দুই স্কুলের ৪ তলা ২ ভবন টেলিকন্ফারেন্সের টেলিকন্ফারেন্সের উদ্বোধন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল লোটাস নাঙ্গলকোটে নববধূ ধর্ষণ স্বামীকে হত্যার অভিযোগ, আটক-১

বান্দরবানের পাহাড়ে আমের বাম্পার ফলন

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : শনিবার, ১২ মে, ২০১৮
  • ৪৫ বার পড়া হয়েছে

বান্দরবান, ১২ মে, ২০১৮ : : এবারও আশানুরুপ ফলন ফলেছে বান্দরবানের পাহাড়ে পাহাড়ে নানাপ্রজাতি আমের। পরিবেশ ও আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি মৌসুমেও পাহাড়ের নানাস্থানে আ¤্রপালি,রাংগৈ এবং স্থানীয়জাতের আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফলে পাহাড়ি কৃষকদের জীবনমানও বদলে যাচ্ছে। তারা ক্রমইে স্বাবলম্বী হয়ে উঠছেন আর্থিকভাবেও।
বান্দরবান জেলা সদর,রুমা,থানচি এবং রোয়াংছড়ি উপজেলার নানাস্থানে চলতি মৌসুমেও ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বাগানে আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। বান্দরবান সদর উপজেলায় বম ও মারমা,থানছি উপজেলায় মারমা ও ¤্রাে এবং রোয়াংছড়ি উপজেলায় মারমা ও তংচ্যঙ্গা সম্প্রদায় তাদের নির্ধারিত বাগানে আ¤্রপালি,রাংগৈ এবং দেশিজাতের রকমারী আমের আবাদ করে আসছেন। বান্দরবান জেলার মাটি ও প্রকৃতির কারণে এখানে উৎপাদিত নানাপ্রজাতির আম খেতে সুস্বাদু এবং মিষ্টিও।
জেলার আমচাষিরা বলেন, জেলায় উৎপাদিত কাঁচা ও পাকা আমের চাহিদা রয়েছে সরাদেশেই। বিষমুক্ত এসব আম পাইকারী ব্যবসায়ীরা আগাম অর্থ দিয়েই চাষিদের কাছ থেকে কিনে নেয়। এখন আম সংগ্রহ ও বিক্রির ভরামৌসুম। কেবল জেলা সদরের ফারুকমুনপাড়া,কেৎসিমানি পাড়া,সারণপাড়া,লাইমীপাড়া এবং চিম্বুক এলাকা থেকে প্রতিদিনই ২০ থেকে ২৫টি ট্রাকযোগে আম সরবরাহ করা হচ্ছে দেশের নানাস্থানে।
বান্দরবান-রুমা ও থানছি সড়কের দুইপাশে এবং পাহাড়ের পাদদেশে শত শত একর পাহাড়ি(তৃতীয়-দ্বিতীয় শ্রেণীর জমি) জমিতে সৃজিত বাগান থেকে আম সংগ্রহ করার কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন বম,মারমা,¤্রাে এবং তনচংগ্যা উপজাতীয় চাষিরা। তারা প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ আম জেলার বাইরে সরবরাহ করা ছাড়াও স্থানীয়ভাবে সংরক্ষণ করছেন। সুবিধামত সময়ে সংরক্ষণ করা আম জেলার বাইরে সরবরাহ করা হচ্ছে নিয়মিত।
গেৎসিমানি পাড়ার আমচাষি ও ইউপি সদস্য লাল হাই বম বলেন,এবারে বাগানে বাগানে বাম্পার ফলন হয়েছে রাংগৈ ও আ¤্রপালি আমের। জেলা সদর থেকে ১২ মাইল দীর্ঘ প্রধান সড়কজুড়েই দুইপাশের শত শত বাগানে এবার বিপুল পরিমাণ আমের ফলন হয়েছে। কেবল এসব এলাকায় প্রায় ১ হাজার একর পাহাড়ি জমিতে হাজারও চাষি এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন বাগান থেকে আমসংগ্রহের কাজে। রুমা উপজেলার মিরজিরি এবং আমতলীপাড়ার আমচাষি চিংপ্রু মারমা এবং শৈচিং মারমা বলেন,তাদের বাগানেও এবারে আমের বিপুল ফলন হয়েছে। তারা উচিত দাম পাচ্ছেন পাইকারী ও খুচরা ক্রেতাদের কাছ থেকে। থানচি উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এবং আদর্শ আমচাষিখামলাই ¤্রাে বলেন,এবারে তার আম বাগানে বিপুল পরিমাণ রাংগৈ এবং আ¤্রপালি আমের ফলন হয়েছে। কাঁচা আম প্রতিমণ ১২ শ” টাকা এবং পাকা আম প্রতিমণ ১৫০০ থেকে ১৬০০টাকা দামে বিক্রি করা হচ্ছে। পাইকারে ব্যবসায়ীরাও বাগানস্থল থেকে আম ক্রয় করে নিচ্ছেন বলেও তিনি জানান। এবার তিনি বাগান থেকে উৎপাদিত আম বিক্রি করে ৫ লাখ টাকা আয় করবেন বলে আশাবাদী। তবে আমচাষিরা বলছেন, জেলা সদর কিংবা উপজেলা সদরে সরকারি পর্যায়ে এখনও পর্যন্ত কোন হিমাগার গড়ে না উঠায় আমচাষিরা ফি বছরই বিপুল অংকের নিশ্চিত অর্থ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সংরক্ষণের অভাবে। কারণ বর্ষার সময় বা অতিগরমের সময়ই বাগানে আমের পাকা শুরু হয়। তাই পাকা আম সংরক্ষণ করা সম্ভব হয়না। ফলে চাষিরা সময় মতে আম বিক্রি করতে না পারায় পঁচে-বিনষ্ট হয়ে যায় বিপুল আম।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে,নিজেদের উদ্যোগ ছাড়াও পার্বত্য জেলা পরিষদের সহায়তায় ৭টি উপজেলায় ৪হাজার ৮২০ হেক্টর জমিতে আম্রপালি ও রাংগৈ আম,৭হাজার ৯১০ হেক্টর জমিতে নানাপ্রজাতির কলা,৬ হাজার ৫হেক্টর জমিতে পেঁপে,৪হাজার ৭৮০ হেক্টর জমিতে আনারস,৩হাজার হেক্টর জমিতে কাঁঠাল,২ হাজার ৭৫ হেক্টের জমিতে কমলা,১হাজার ১০হেক্টর জমিতে লিচু,১৪ হাজার ৬৪১ হেক্টর জমিতে অন্যান্য মৌসুমী ফলের চাষ হয়েছে।
জেলার কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক মো.আলতাফ হোসেন বলেন, জেলায় মারমা,¤্রাে এবং বম আদিবাসীদের মিশ্র ফলচাষ ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে,ফলে তাদের জীবনমানও উন্নতি হচ্ছে। তারা আর্থিকভাবেই লাভবান হচ্ছেন বলে তিনি জানান। তিনি তথ্যদিয়ে বলেন, জেলার পাহাড়ি মাটি আমসহ ফলদ উৎপাদনে খুবই উপযোগী এবং পরিবেশ বান্ধবও। অধিকতর লাভজনক হওয়ায় জুমচাষ ছেড়ে অনেকেই আমচাষে এগুচ্ছেন। তিনি বলেন, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ থেকে আমচাষিসহ ফলদ চাষিদের টেকসই আবাদসহ কৃষি-খামার গড়ে তোলার বিষয়ে সাধ্যমত সাধারণ ও বিশেষ প্রশিক্ষণ প্রদান কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার)
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা :
উপদেষ্টা : জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা : এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা : শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা : অবসরপ্রাপ্ত জামিল আর্মি,

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!