1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ১০:১৭ অপরাহ্ন

বাধা ঠেলেই মেয়েদের এগোতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : শনিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ১৮ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : অন্যের মুখাপেক্ষী না হয়ে নিজের পায়ে দাঁড়াতে মেয়েদেরকে আত্মবিশ্বাসী হয়ে চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, ‘কিছু বাধা থাকবেই, বাধা আসবেই। সেটা অতিক্রম করেই এগিয়ে যেতে হবে।’

নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া দিবসে শনিবার রাজধানীতে রোকেয়া পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

নারী উন্নয়নে অবদান রাখায় এই অনুষ্ঠানে দেশের স্বনামধন্য পাঁচ নারীর হাতে ২০১৭ সালের বেগম রোকেয়া পদক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

স্বাধীনতার পর থেকেই নারী উন্নয়নে আওয়ামী লীগ সরকারের নানা চেষ্টা করে যাচ্ছে বলে জানান অনুষ্ঠানে জানান প্রধানমন্ত্রী। আর সম্মিলিত চেষ্টায় নারীরা আজ সব ক্ষেত্রে জায়গা করে নেয়ায় গর্বিত তিনি।

‘স্বাধীনতা অর্জনের পেছনে অনেক অবদান রয়েছে আমাদের নারী সমাজের। আজ আমাদের মেয়েরা আজকে সব জায়গায় স্থান করে নিতে পেরেছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মেয়েদেরকে ভাবতে হবে তার যে মেধা, তার যে শক্তি সেটাকে যেন বিকশিত করা যায়, সে জন্য নিজেদেরও উদ্যোগ নিতে হবে। কারও মুখাপেক্ষী হয়ে না, নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে চলতে হবে।’

নারীরা ব্যবসা করতে চাইলে সাধারণ সুদের হারের চেয়ে পাঁচ থেকে সাত শতাংশ কমে ঋণ দেয়ার কথাও জানান শেখ হাসিনা। এ জন্য এসএমই ফাউন্ডেশন থেকে বিশেষ ঋণের ব্যবস্থা করার কথা জানান তিনি।

‘আমরা চাই আমাদের দেশে সবাই, নারী পুরুষ নির্বিশেষে এই দেশকে উন্নত করার কাজে নিবেদিতপ্রাণ হয়ে কাজ করব।’

সমাজে একেবারে নিচু স্তরে ও যারা অবহেলিত জনগোষ্ঠী তাদের পাশে দাঁড়ানো সবার দায়িত্ব-এ কথাটি স্মরণ করিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘তাদের মধ্যে আত্মবিশ্বাস তৈরি করা এবং তাদের সহযোগিতা করা… সেটা সকলে মিলে করলে নিশ্চয় এই সমাজ গড়ে উঠবে।’

নারীদের বাধা উপেক্ষা করে কাজ করে যাওয়ার তাগাদা দিয়ে কয়েকটি উদাহরণ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, এশিয়ার মধ্যে আজকে বাংলাদেশ লিঙ্গ সমতায় শীর্ষ স্থানে বাংলাদেশ আছে। কিন্তু এক সময় এমন পিছিয়ে ছিলাম যে, যখন প্রথমবার মহিলা ফুটবল টিম তৈরি করলাম, অনেক জেলায় খেলার সুযোগ পেলাম। কিন্তু রাজশাহীতে যখন খেলতে গেল প্রবল আপত্তি সেখানে। সেখানে মেয়েরা ফুটবল খেলতে পারেনি।’

‘পরবর্তীতে আমি শুরু করলাম প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে মেয়েদের মধ্য থেকে একটা কম্পিটিশন। ছেলে ও মেয়ে উভয়ই বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা ফুটবল টুর্মামেন্ট এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফুটবল টুর্নামেন্ট করে আমরা প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করেছি, এখন সময় জায়গায় মেয়েরা এখন ক্রিকেট, ফুটবল থেকে শুরু করে অনেক ক্ষেত্রেই, আর্চারিতেও আমাদের মেয়েরা নিজেদের সুযোগ করে নিচ্ছে। মেয়েরা কিন্তু ভালোও করছে।’

আবার ১৯৯৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদে নারীদের জন্য সংরক্ষিত কোটার ব্যবস্থা করার পরও বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তি বাধা দিয়েছিল বলে জানান শেখ হাসিনা। বলেন, ‘প্রথম যখন এটা করলাম, তখন অনেক বাধা মোকাবেলা করতে হয়েছে। মেয়েরা ইলেকশনে নামবে, প্রচার করতে যাবে? আমাদের অনেক জন, কিছু সংগঠন তো হুমকি ধামকি দিতে শুরু করল। মেয়েরাও বাধার সম্মুখীন হলো, শ্বশুর, ভাসুর-অনেকের কাছ থেকে বাধা। কিন্তু যখন ইলেকশন শুরু হয়ে গেল, তখন দেখা গেল যারা এক সময় বাধা দিয়েছে তারাই কিন্তু ঘুরে ঘুরে তাদের সাথে ভোট চাচ্ছে।’

আবার ১৯৯৬ সালে দেশে কোনো নারী সচিব, এসপি, হাইকোর্ট জজ না থাকার কথাও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, তিনি নিজে উদ্যোগ নিয়ে এসব পদে নারীদের নিয়োগ দিয়েছেন।

বর্তমান পরিস্থিতি বর্ণনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকে সশস্ত্র বাহিনীতে মেয়েরা এখন পাইলট হিসেবে কাজ করছে। শান্তি রক্ষা মিশনে মেয়েরা সবচেয়ে ভালো কাজ করছে। পুলিশের একটা মহিলা কন্টিনজেন্ট ওখানে আছে, আর্মিতেও দুইজন মেয়ে পাইলটও গেছে কঙ্গোতে। আজকে কিন্তু প্রতিটি জায়গায় মেয়েদের ভালো অবস্থান নিশ্চয় দেখতে পাচ্ছেন।’

‘এখন পার্লামেন্টে স্পিকার, সংসদ নেতা, বিরোধীদলীয় নেতা, ডেপুটি লিডার- চারটি উচ্চপদই মেয়েরা দখল করে বসে আছে। কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশনেও স্পিকার জয়ী হয়েছেন।’

নারী উন্নয়ন, নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সরকারের নানা উদ্যোগ, আইন ও নীতিমালার কথাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। মাতৃত্বকালীন ছুটি চার মাস থেকে বাড়িয়ে ছয় মাস করা এবং সন্তানের পরিচয়ে মায়ের নাম যুক্ত করার কথাও তুলে তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১০ মাস কষ্ট করে পেটে রেখে প্রসব বেদনা সহ্য করে সন্তান জন্ম দেব, আর রাত জেগে জেগে পালব, আর পরিচয়ের সময় মায়ের নাম থাকবে না এটা কেমন কথা?’।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!