বছরে ৪ মাস থাকে পানিতে তলিয়ে, তালার নওয়াপড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়

তালা(সাতক্ষীরা)সংবাদদাতা : সাংবাদিক দেখেই এগিয়ে এলো দশম শ্রেনীর শিক্ষার্থী ইমন’ তার কন্ঠে ক্ষোভের সাথে উচ্চারিত হলো ’আধুনিক সভ্যতা ও সাংস্কৃতির সাথে তালা মিলিয়ে বাংলাদেশ যখন উন্নয়নশীল দেশের কাতারে শামিল হতে যাচ্ছে তখন একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় কতটুকু অবহেলিত-অনুন্নত অবস্থায় শিক্ষার আলোক বার্তিকা ছড়িয়ে যাচ্ছে সে’টি স্বচক্ষে দেখার আহবান জানানো হলো। কিন্ত স্বচক্ষে দেখেও যেন বিশ্বাস হতে চায় না এটি একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়! যেখানে কি-না ষষ্ঠ শ্রেনী থেকে দশম শ্রেনী পর্যন্ত ৩ শতাধিক শিক্ষার্থীকে পড়ানো হয়। পরীক্ষায় পাসের হার ৯৭.৮৭। হ্যা পাঠক বিদ্যালয়টি তালা উপজেলার ঐতিহ্যবাহি তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের নওয়াপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়। যে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ভালো বসার যায়গা তো দূরের কথা মাথার উপর ঠিকমতো ছাউনি পর্যন্ত নেই। বর্ষা মৌসুমে ক্লাস রুম পানিতে তলিয়ে থাকায় বছরের প্রায় ৪ মাস বন্ধ রাখতে হয় প্রতিষ্ঠানটি। ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠা লাভের পর ২০০৩ সালে নিম্ন মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত এমপি ভুক্ত হলেও মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষক কর্মচারিরা এমপি ভুক্ত না হতে পেরে ভোগ করছেন মানবেতর জীবন যাপন । কিন্ত শত অবহেলা আর বঞ্চনা সহ্য করেও অত্যন্ত আন্তরিকতার সাথে স্কুলের শিক্ষার মান বজায় রাখতে সচেষ্ট রয়েছেন শিক্ষক-কর্মচারিরা। কিন্ত শুধুমাত্র নজর কাড়তে পারেনি জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট মহলের। স্বাধীনতা দিবস সহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজনের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধিদের স্কুলে দাওয়াত করে এনে প্রতিষ্ঠানের করুন পরিস্থিতি দেখানোর পরও শুধু আশ্বাস ছাড়া এযাবৎ মিলেছে ৩ বান ঢেউ টিন আর উপজেলা পরিষদ থেকে ৫০ হাজার টাকার অনুদান। ৩ শতাধিক শিক্ষার্থী আর ১৪ জন শিক্ষক কর্মচারি এক প্রকার খোলা আকাশের নিচে বছরের পর বছর স্বাভাবিক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন আর ৪ মাস পানিতে নিমজ্জিত থাকায় ১২ মাসের পরিবর্তে ৮ মাসের শিক্ষা পদ্ধতি চালু করেছেন। স্কুলের প্রধান শিক্ষক তপন কুমার সাধু জানান,স্কুলে একটি সরকারি বিল্ডিং এর জন্য শিক্ষক- কর্মচারিরা দৌড়-ঝাপ করতে করতে এখন সকলেই ক্লান্ত তারপরও আশা ছাড়িনি। একদিন কারো না কারো সুদৃষ্টি হয়তো প্রতিষ্ঠানটির দিকে পড়বে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.