পৌনে দুই লাখ প্রদীপে যোগীর দীপোৎসব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : উড়ে এল ‘পুষ্পক রথ’, নামল সরযূ নদীর পাড়ে। সেই হেলিকপ্টার-পুষ্পক থেকে বেরিয়ে এলেন রাম-সীতা-লক্ষ্মণ। মালা পরিয়ে তাদের অভ্যর্থনা জানালেন ভারতের উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। সঙ্গে ছিলেন রাজ্যপাল রাম নাইক এবং রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রীও। বুধবার থেকে অযোধ্যায় শুরু হয়েছে ‘দীপোৎসব’। দীপোৎসকে মেগা ইভেন্টে পরিণত করার কথা আগেই ঘোষণা করেছেন যোগী।

কথিত আছে, ১৪ বছরের বনবাস কাটিয়ে রাম-সীতা এবং লক্ষ্মণ পুষ্পক রথে ফিরেছিলেন অযোধ্যায়। তাদের স্বাগত জানাতে অযোধ্যায় অজস্র ‘প্রদীপ’ জ্বালিয়েছিলেন প্রজারা।

যোগী সরকারের দাবি, সেই ঐতিহ্য মেনেই অযোধ্যায় এবার ‘মেগা দীপাবলি’র আয়োজন। রাম-সীতাকে অভ্যর্থনা জানাতে অযোধ্যায় আজ জ্বালানো হয় এক লাখ ৭৫ হাজার মাটির প্রদীপ। সাজানো হয় অজস্র মন্দির। এই বিশাল সংখ্যক প্রদীপ বানানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল অযোধ্যার ৬০ জন কুমোরকে।

যোগী বলেন, ‘অযোধ্যা মানবতার ভূমি। রামরাজ্যের মধ্য দিয়ে অযোধ্যা গোটা দুনিয়াকে মানবতার পাঠ দিয়েছে।’

অযোধ্যার এই দীপাবলি উৎসবে যোগ দিতে এসেছেন বহু অতিথি-অভ্যাগত। তাদের স্বাগত জানাতে সাদতগঞ্জ এলাকায় ২০১ কুইন্টাল ফুল দিয়ে তৈরি করা হয়েছে একটি বিশেষ দরজা। গোটা অনুষ্ঠানটি যাতে সকলে দেখতে পান, তার জন্য অযোধ্যার বিভিন্ন জায়গায় বসানো হয়েছে ২৫টি এলইডি স্ক্রিন।

উত্তরপ্রদেশ সরকার জানিয়েছে, বিশ্বের ধর্মীয় পর্যটন মানচিত্রে অযোধ্যাকে তুলে ধরতেই এই আয়োজন। ইতিমধ্যে সরযূর পাড়ে ১০০ মিটার উঁচু রামের মূর্তি বানানোর তোড়জোড় শুরু করে দিয়েছেন যোগী।

এক বিজেপি নেতা জানিয়েছেন, অদূর ভবিষ্যতে এমন ভাবে রাম-মাহাত্ম্য প্রচার করা হবে যে, তাজমহলের চেয়ে অযোধ্যার গুরুত্ব বেড়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.