1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৩:০৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
“লালমাই উপজেলা বাংলাদেশের দৃষ্টান্ত হবে,আপনারা ইউপিকে জনবান্ধব করুন” (প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অতিরিক্ত সচিব সিদ্দিকুর রহমান) জাফলং সীমান্তে আবারও বেপরোয়া চোরাচালান নেতৃত্ব দিচ্ছে নতুন লাইনম্যান বাহিনী ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় মানিকগঞ্জে একজনের যাবজ্জীবন নাটোরে ১১৭ পূজামণ্ডপে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা উপহার ভারতের করোনা পরিস্থিতি বিপজ্জনক করে তুলবে বায়ুদূষণ কুমিল্লায় লরি চাপায় রিকশা চালক নিহত মোস্তাক-জিয়ার মরণোত্তর বিচার হবে …..তথ্য প্রতিমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরো মৃত্যু ২৪ জন শনাক্ত ১ হাজার ৫৪৫ ‘সড়ক দুর্ঘটনা রোধে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে সরকার’ রুহুল আমিন মেম্বার সাথে ভূলইন উত্তর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময়

পেঁয়াজের সঙ্গে এবার আদার ঝাঁজ চড়েছে

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : শনিবার, ২৮ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৪ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : এ যেন নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির রুটিন। কদিন এ পণ্য লাগামছাড়া হবে তো দুদিন পর আরেক পণ্য। চাল, কাঁচামরিচ, সবজির পর লাগাতার বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। এবার এই পেয়াঁজের সঙ্গে শামিল হলো আদার ঝাঁজ।

গত দুই সপ্তাহ ধরেই পেঁয়াজের বাজার চড়া। পাল্লা দিয়ে বেড়ে বেড়ে পেঁয়াজের দাম এ সপ্তাহে আকাশছোঁয়া। ৩৫ টাকা থেকে বেড়ে গত সপ্তাহে ৫৫ টাকা বিক্রি হওয়া দেশি পেঁয়াজ এখন খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৭০-৭৫ টাকায়। পাঠক, কত বেড়েছে হিসাব করে নিন।

আর আমদানি করা পেঁয়াজ সপ্তাহের ব্যবধানে ৫০ টাকা থেকে বেড়ে এখন ৫৫-৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির ঘোড়ায় লাগাম পড়ার আগেই এর সঙ্গে এখন যুক্ত হলো আদা। চলতি সপ্তাহে কেজিপ্রতি আদা ১০০ টাকা থেকে এক লাফে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫০ টাকায়। কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা।

কেন এই মূল্যবৃদ্ধি? ব্যবসায়ীদের মুখে উত্তর যেন সাজানো আছেই। আমদানি কমে গেছে। চালের দাম যখন বাড়ল তখনো আমদানির দোহাই, কাঁচামরিচ বাড়ল তখনো আমদানিস্বল্পতার কথা, এবার পেঁয়াজ-আদার বেলায়ও তা-ই। পেঁয়াজ ও আদার দাম শিগগির কমবে বলেও মনে করছেন না তারা।

কারওয়ান বাজারের আদা ও পেঁয়াজ বিক্রেতা জসিম বলেন, ‘আদা ও পেঁয়াজের আমদানি কম, তাই দাম বেড়ে গেছে। তাছাড়া বৃষ্টি ও বন্যায় ক্ষতি হয়েছে দেশীয় পেঁয়াজের চাষের জমিন। তার জন্য মজুদ ঠিকমতো করা যায়নি। বাড়তি দাম দিয়ে কিনে এখন আমাদের বাড়তি দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে।’

সরবরাহ স্বাভাবিক থাকায় মোটা ও সরু চালের বাজারে আরেক দফা দাম কিছুটা কমেছে। এই পরিবর্তনের হাওয়া শুধু পাইকারি বাজারে নয়, খুচরা বাজারেও বইতে শুরু করেছে। খুচরা বাজারে মোটা চাল এখন ৪৩-৪৪ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর সরু চালের কেজি ৫২-৫৮ টাকায়। চালের দাম আরও কমার সম্ভাবনার কথা জানান ব্যবসায়ীরা।

কাঁঠালবাগান বাজারের খুচরা ব্যবসায়ী সেলিম বলেন, ‘বৃহস্পতিবার চালের দাম আরেক দফা কমেছে। মোটা চাল প্রতি বস্তায় ৩৫০-৪০০ টাকা কমেছে, আর চিকন চালে কমেছে ৩০০-৩৫০ টাকা পর্যন্ত। সামনে নতুন চাল এলে দাম আরও কমবে।’

রাজধানীর কাওরান বাজার, হাতিরপুল, কাঁঠালবাগান ও ফার্মগেট কাঁচাবাজার সরেজমিনে ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

এদিকে গত এক মাস ধরে সবজির বাজার অস্থিতিশীল। সবজির দামের অসহনীয় চড়া মূল্য কোনোভাবেই যেন স্থিতিশীল হচ্ছে না। শিগগির ফিরবে বলেও মনে করছেন না সবজি ব্যবসায়ীরা। বিক্রেতাদের ভাষ্য, শীতের আগে সবজির দাম কমার কোনো সম্ভাবনা নেই।

কাঁঠালবাগান কাঁচাবাজারের সবজি বিক্রেতা জলিল বলেন, ‘বন্যা ও বৃষ্টির কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সবজির ক্ষেত ব্যাপক হারে নষ্ট ও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই চাহিদা অনুযায়ী আমদানি নেই, তাই মূল্য বেশি।’

সবজির খুচরা বাজারের তথ্য অনুযায়ী প্রতিকেজি বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৬০-৮০ টাকা, শসা ৬০-৮০ টাকা, ফুলকপি ৩০-৪০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০-৫০ টাকা, করলা ৬০-৮০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা, ঢেঁড়স ৭০-৮০ টাকা, চিচিঙ্গা ৭০-৮০ টাকা, পটল ৬০-৭০ টাকা, পেঁপে ২৫-৩০ টাকা, টমেটো ১২০ টাকা, কাকরোল ৭০-৮০ টাকা, কচুলতি ৬০-৭০ টাকা, কাঁচামরিচ ১২০-১৪০ টাকা, লাউ প্রতি পিস ৪০-৬০ টাকা, গাজর ৮০-১২০ টাকা, সিম ১২০-১৬০ টাকা, মূলা ৬০-৮০ টাকা, ধনেপাতা কেজি ১৫০-২০০ টাকা, কচুমুখি ৪০ টাকা, ধুন্দুল ৭০-৮০ টাকা, কলা প্রতি হালি ৩০-৪০ টাকা, লালশাক প্রতি আঁটি ১৫ টাকা, পালংশাক ২০ টাকা, কলমিশাক ১০ টাকা ও পুঁইশাক ৩০ টাকা রাখা হচ্ছে।

হাতিরপুল বাজারে সবজি কিনতে এসে বাংলামোটর এলাকার বাসিন্দা রাজন সাহা বলেন, ‘বাজার করতে আসলেই দেখি, সবজির একেক দিন একেক দর। কমার কোনো লক্ষণ দেখছি না। আমাদের যেসব সবজি পছন্দের সেগুলোর দামটাই বেশি রাখা হচ্ছে। গত এক মাস ধরে ৬০ টাকার নিচে সবজি কেনা যাচ্ছে না। আমরা আর পারছি না।’

টানা ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার পর জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়েছে। ফলে বাজারে ইলিশের সরবরাহ বেড়েছে। এদিকে, নদী-নালার পানি কমায় বাজারে দেশি মাছের সরবরাহও বেড়েছে। এতে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে মাছের বাজারে।

মাছের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ৬০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকায়, ৭৫০ গ্রাম ইলিশ প্রতি জোড়া বিক্রি হচ্ছে ১১০০ টাকায় ও ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ জোড়া বিক্রি হচ্ছে ১৩০০ টাকায়।

অন্যান্য মাছের মধ্যে প্রতি কেজি বড়, মাঝারি ও ছোট চিংড়ি যথাক্রমে ৭৫০, ৭০০ ও ৬৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি রুই মাছ ২৫০-৩০০ টাকা, কাতল ১৮০-২৮০ টাকা, শিং মাঝারি ৩৫০-৩৮০ টাকা, পাঙ্গাশ ১২০ টাকা, তেলাপিয়া ১৩০ টাকা এবং প্রতি কেজি কই ১৬০ থেকে ২৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাংসের বাজার গত সপ্তাহের দাম অনুযায়ী ব্রয়লার মুরগি কেজিতে ১৩০-১৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া পাকিস্তানি লেয়ার কেজিতে ১৫০-১৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি গরুর মাংস ৪৮০-৫০০ টাকা, খাসির মাংস ৭০০-৭৫০ টাকা, ছাগল ৬৫০-৭০০ টাকা, মহিষ ৪৪০-৪৫০ টাকা এবং প্রতি হালি ফার্মের ডিম ৩০-৩২ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!