পলাশবাড়ীতে বাড়ছে তালগাছ রোপণের আগ্রহ

গাইবান্ধা : জলবায়ু পরিবর্তন ও বজ্রপাত প্রতিরোধে পলাশবাড়ীর মানুষের মধ্যে তালগাছ রোপণে আগ্রহ বাড়ছে। এই বর্ষায় সড়কের ধার, বসত ভিটাসহ যেখানে ফাঁকা জায়গা পাচ্ছেন সেখানেই তাল বীজ রোপণ করেছেন। এর আগে লাগানো তাল গাছগুলো এরই মধ্যে প্রাকৃতিক শোভা বাড়িয়ে দিয়েছে।
বজ্রপাতে মানুষ ও গবাধিপশু হতাহতের হাত থেকে রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি মোকাবেলায় পলাশবাড়ী সরকারি উদ্যোগে এবছর ৫০ হাজার তাল বীজ রোপণ করা হয়েছে। বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানও আলাদা করে তাল গাছ রোপণ করছে।
পলাশবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষ্ণ কুমার রায় জানান, সদর উপজেলার গাইবান্ধ –পলাশবাড়ী জেলা সড়কে ১০ বছর আগে পাঁচ কিলোমিটার সড়কের দুই পাশে লাগানো তালগাছগুলো সুন্দর হয়ে উঠেছে। এই উদ্যোগ এখনো অব্যাহত রয়েছে।
হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যায়ের পরিবেশ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডক্টর মো, সরিফুল বারী জানিয়েছেন, বজ্রপাতের ক্ষতি কমিয়ে আনার পাশাপাশি তালগাছ জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। অর্থনৈতিক বিবেচনায়ও তালগাছ গুরুত্বপূর্ণ বলে মত দেন তিনি। তিনি বলেন, উঁচু গাছেই বেশি বজ্রপাত হয়। উঁচু গাছ থাকলে এলাকায় বজ্রপাতে প্রাণহানি লাঘব হয়। বজ্রপাতে মৃত্যু ঠেকানোর জন্য উঁচু তালগাছই সবচেয়ে কার্যকর।
তিনি আরো জানান, তালগাছ বজ্রপাতে শুধু প্রাণহানিরোধই নয়, পরিবেশের ভারসাম্যও রক্ষা হবে। তাই দেশে মাঠ-ঘাটে ফাঁকা জায়গায় তালগাছ লাগানোর কোনো বিকল্প নাই।
বজ্রপাতের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রতিরোধ ও জলবায়ু পরিবর্তন রোধে পলাশবাড়ীতে তালগাছ লাগানো জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সড়কের দুই ধারে ছাড়াও বসত ভিটার আশপাশে তালগাছের বীজ রোপণ করছে অনেকেই। ১০ বছর আগে লাগানে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কের দুই ধারে তালগাছগুলো দৃষ্টিনন্দিত হয়ে উঠেছে। সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগেও চলছে তাল বীজ বপনের কাজ।
পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় পলাশবাড়ীতে ১০ বছর আগে থেকে একটি সংগঠন প্রায় পাঁচ কিলো মিটার দীর্ঘ সড়কের দুই ধারে লাগাচ্ছে তাল গাছ। ইতোমধ্যে তাল গাছগুলো দৃষ্টি নন্দিত হয়ে উঠেছে। কৃষক সমবায় সমিতির নামে এই সংগঠনটি ২০০৭ সালে থেকে প্রায় ৫০ হাজার তাল গাছ লাগিয়েছে।
বজ্রপাত থেকে প্রাণ বাঁচাতে সরকার সারা দেশে বেশি করে তালগাছ রোপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে পলাশবাড়ীতে সরকারিভাবে ৫০ হাজারের মতো তাল বীজ বোপন করা হয়েছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রোপন করেছে এ তাল বীজ।
তালগাছ বজ্রপাতের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রতিরোধ ও জলবায়ু পরিবর্তন রোধে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। উঁচু গাছেই বেশি বজ্রপাত হয়। উঁচু গাছ থাকলে এলাকায় বজ্রপাতে প্রাণহানি লাঘব হয়। বজ্রপাতে মৃত্যু ঠেকানোর জন্য উঁচু তালগাছই সবচেয়ে কার্যকর বলে জানিয়েছেন পরিবেশবিদরা।
এছাড়া তালগাছ দীর্ঘদিন জীবিত থেকে মানুষের উপকার করে। তালগাছ থেকে ঘর নির্মাণের মূল্যবান কাঠ ও জ্বালানি পাওয়া যায়। এ গাছ রস ছাড়াও কাঁচা ও পাকা সুস্বাদু ফল দিয়ে থাকে। তাল গাছের নানা উপকারিতা রয়েছে। যেমন তাল পাতা দিয়ে ঘর ছাওয়া, হাতপাখা, চাটাই, মাদুর এবং কাণ্ড দিয়ে বাড়ি ও নৌকা তৈরির কাজ হয়। তালের ফল এবং তালশাঁস পুষ্টিকর খাদ্য। তাল গাছের কাণ্ড থেকে রস সংগ্রহ হয় এবং তা থেকে গুড়, পাটালি, মিছরি তৈরি হয়। এই গাছ দীর্ঘজীবী। কমবেশি ১০০ বছর বাঁচে এবং ফল দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.