পরিবারের দাবি ‘নিরক্ষর’ টিটুর ফেসবুকে স্ট্যাটাস অবাস্তব

রংপুরে যে হিন্দু যুবকের নামে ফেসবুক ওয়ালে ‘ধর্ম অবমাননাকর’ পোস্ট দেয়ার অভিযোগ করছেন স্থানীয় মুসুল্লিরা, সেই যুবক পড়াশোনা করেননি বলে জানিয়েছে তার পরিবার। এমনকি তিনি দীর্ঘদিন ধরে এলাকাতেও যান না।

পড়াশোনা না জানা একজনের পক্ষে কীভাবে ফেসবুকে পোস্ট দেয়া সম্ভব, সে প্রশ্নও তুলেছে তার পরিবার।

ধর্ম নিয়ে অবমাননাকর স্ট্যাটাস দেয়ার অভিযোগ এনে শুক্রবার রংপুর সদর উপজেলার পাগলাপীর ঠাকুরবাড়ি গ্রামে ব্যাপক তা-ব চালান হয়। এ সময় ১১ হিন্দু বাড়িতে আগুন ও ব্যাপক ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশের সঙ্গে হামলাকারীদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে হাবিব মিয়া (২৪) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়, পুলিশসহ আহত হয় অন্তত ৩০ জন।

এরই মধ্যে ঘটনাটি সারাদেশে আলোড়ন তৈরি করেছে। কক্সবাজারে একই ধরনের গুজব ছড়িয়ে রামুতে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের ওপর ব্যাপক আক্রমণ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর তা-বের আগেও একই ধরনের কৌশল অবলম্বন করা হয়েছিল। নাসিরনগরেও নিরক্ষর ব্যক্তির নামে খোলা ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ‘ধর্ম অবমাননাকর’ ছবি পোস্টের পর সেখানে হিন্দুদের বাড়িঘরে ব্যাপক তা-ব চালান হয়। রংপুরেও একই ঘটনা ঘটেছে কি না, সে নিয়েও চলছে আলোচনা।

যে যুবককে নিয়ে আলোচনা, সেই টিটু চন্দ্র রায়ের কোনো প্রাতিষ্ঠানিক কোন শিক্ষা নেই বলে জানিয়েছেন তার ছোট ভাই বিপুল চন্দ্র রায়।

বিপুল জানান, টিটু বেশ কয়েক বছর ধরে এলাকাতেই থাকেন না। তার সঙ্গে পরিবারেরও তেমন যোগাযোগ নেই। তিনি বলেন, ‘ভাই ৫/৬ বছর থেকে ঢাকায় থাকে। সেখানে সে কী করে আমরা কিছুই জানি না। শুধু জানি ঢাকায় থাকে।’

ঢাকায় আসার পর টিটু দ্বিতীয় বিয়ে করে বলে জানান তার ছোট ভাই। বলেন, ‘বিয়ে করার পর বাড়িতে আসে না। বাড়ির কোন খোঁজ খবর নেয় না। ছোট বউকে নিয়ে থাকে সেখানে।’

টিটুর কাছে পাওনাদার অনেক আর টাকা দেয়ার ভয়েও তিনি পালিয়ে গেছেন বলেও জানান বিপুল। বলেন, ‘পাওনাদাররা সব সময় টাকার জন্য বাড়িতে আসত।’
বিপুলের তথ্য অনুযায়ী ‘র’ অদ্যাক্ষরের এক যুবক ফেসবুকে এসব কথা লিখেছেন। আর ওই যুবক এই এলাকার নয়।

টিটু অর্থের জন্য যে কোন প্রতারণার আশ্রয় নিতে পারে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ওই এলাকার ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য সুনীল চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, ‘তার কাছে মানুষজন অনেক টাকা পায়। সে টাউট প্রকৃতির ছেলে। চলাফেরায় মনে হবে না সে সাধারণ ছেলে।’

টিটুর নামে চালানো ফেসবুকে প্রোফাইলে তার স্ত্রী, সন্তানসহ মায়ের ছবি আপলোড করা আছে। যে বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ভাংচুর করা হয়েছে ওই বাড়ির সামনের একটি ছবি আছে গত ২৮ অক্টোবর।

টিটুর এক ছেলে দুই মেয়ে রয়েছে। তার বড় মেয়ে প্রেম করে বিয়ে করার পর ধর্মান্তরিত হয়ে মুসলমান হয়েছেন।

টিটোর বিষয়ে তার পরিবারের দাবির কথা জানালে রংপুরের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, ‘টিটু এখনো গ্রেপ্তা হয়নি। তবে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে। তাকে গ্রেপ্তার করতে পারলেই বোঝা যাবে ফেসবুকে কে স্ট্যাটাস দিয়েছে।

হিন্দুদের ওপর আক্রমণের ঘটনার পর দিন এলাকার পরিস্থিতি অনেকটাই শান্ত। বিপুল সংখ্যক পুলিশ সেখানে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে। দুটি মামলার পর দুপুর পর্যন্ত ৫৩ জনকে আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজন জামায়াতের স্থানীয় পর্যায়ের নেতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!