নেয়ামতের ভাবনা

সৃষ্টিকর্তা আমাদেরকে অগণিত নেয়ামত দান করেছেন। তিনি নিজে বলেছেন, এত নেয়ামত মানুষকে সৃষ্টিজীবকে দিয়েছি যা গুণে কোনোদিন শেষ করা যাবে না। আমরা প্রতিটি মুহূর্তে আল্লাহর নেয়ামতের মুখাপেক্ষী। এই নেয়ামতের কৃতজ্ঞতা আদায় করা আমাদের কর্তব্য। আল্লাহর অবাধ্য না হওয়া, তার নির্দেশমতো চলাই হলো নেয়ামতের কৃতজ্ঞতা। তবে আল্লাহ আমাদের জন্য যেসব নেয়ামত দান করেছেন এগুলো নিয়ে ভাবাও ইবাদতে গণ্য। আমরা যখন তার নেয়ামতরাজি নিয়ে ভাবব তখন তার প্রতি কৃতজ্ঞতায় অন্তরটা ভরে আসবে। নিজের অজান্তেই স্রষ্টার প্রতি ভালোবাসা জন্ম নেবে। তখন আমরা আল্লাহর প্রিয় বান্দা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হতে পারব।

আমাদের প্রতি আল্লাহ পাকের এত বেশি পরিমাণ নেয়ামত বর্ষিত হয়ে চলেছে যার অনুমানটুকু করা সম্ভব নয়। প্রতি ক্ষণে ক্ষণে আমরা যে শ্বাস নিই, এটি আল্লাহ পাকের মহামূল্যবান নেয়ামত। এই নেয়ামত আমরা প্রতি মুহূর্তে ভোগ করে চলেছি। কোনো কোনো মুমূর্ষু রোগীকে একদম স্পর্শকাতর মুহূর্তে অক্সিজেন দেয়া হয়। অনেক চড়া মূল্যে সেই অক্সিজেন কিনতে হয়। কিন্তু তারপরও এটি ব্যবহার করে সেই প্রশান্তি পাওয়া যায় না যা পাওয়া যায় খোদাপ্রদত্ত প্রাকৃতিক অক্সিজেনের ক্ষেত্রে। বিষয়টি আমাদের কাছে অতি সাধারণ মনে হলেও এই শ্বাস নেয়া ছাড়া কেউ সামান্য সময়ও বাঁচতে পারবে না। এর মানে শ্বাস-প্রশ্বাসই প্রাণীর জীবন।

এমনিভাবে পানিও মহান আল্লাহ পাকের দেয়া এক মহা নেয়ামত। এটি এমন একটি অতুলনীয় নেয়ামত যার কোনো বিকল্প নেই। বাজারে নানা ধরনের কোমল পানীয় পাওয়া যায়। কিন্তু আল্লাহপ্রদত্ত সাদা পানির মধ্যে যে স্বাদ তা আর কোথাও খুঁজে পাওয়া যায় না। বিনা পয়সায় অপরিমেয় পানির ব্যবস্থা আল্লাহ আমাদের জন্য করে দিয়েছেন। এই সুন্দর পরিবেশ-প্রকৃতিও আল্লাহর দান। পাহাড়-পর্বত, নদী-নালা, সমুদ্র, গাছগাছালি সবকিছুর সমন্বয়ে মানুষের বসবাস উপযোগী যে, পৃথিবী আল্লাহ দান করেছেন সমস্ত মানুষ মিলে রাত-দিন অবিরতভাবে কৃতজ্ঞতা আদায় করতে থাকলেও তা শেষ হবে না। হজরত ঈসা (আ.) বলেন, আমি প্রভুর কী কৃতজ্ঞতা আদায় করব! কারণ আমার তো কিছু নেই, আমি যত কৃতজ্ঞতাই আদায় করিব সবই হলো তার দান। সুতরাং তারটা দিয়ে তার কৃতজ্ঞতা এতে আমার কৃতিত্ব কোথায়!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!