1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন

নির্ঘুম রাত কাটে নোম্যান্স ল্যান্ডের রোহিঙ্গাদের

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : সোমবার, ৫ মার্চ, ২০১৮
  • ১ বার পড়া হয়েছে

সীমান্তের ওপারে মিয়ানমারের অতিরিক্ত সৈন্য সমাবেশ ও সীমান্তজুড়ে নতুন করে বাংকার খনন ঘটনায় শূন্যরেখায় আশ্রিত রোহিঙ্গা ও স্থানীয় গ্রামবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। রাতে ফাঁকা গুলিবর্ষণের ঘটনায় তাদের সেই আতঙ্ক আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে।

মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদেরকে যখন নিজ দেশে ফেরত দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে, সেই সময় বৃহস্পতিবার বান্দরবানের তমব্রুতে দুই দেশের শূন্য রেখায় অবস্থান নেয় কয়েকশো সেনা। এই শূন্য রেখাতেই অবস্থান করছে কয়েক হাজার রোহিঙ্গা, যাদেরকে দিয়েই প্রত্যাবাসন শুরুর কথা। আর সেখানে মিয়ানমারের সেনা মোতায়েনে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরু নিয়ে সংশয় দেখা দেয়।

এসব রোহিঙ্গা যেকোনো মুহূর্তে শূন্যরেখা থেকে চলে আসতে পারে বলে স্বীকার করে স্থানীয় চেয়ারম্যান একে জাহাঙ্গীর আজিজ ঢাকাটাইমসকে জানান, সীমান্ত এলাকায় মিয়ানমার সেনারা যে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে তাতে স্থানীয় গ্রামবাসীর মধ্যে দেখা দিয়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা।

শূন্যরেখায় আশ্রিত রোহিঙ্গা নেতা দিল মোহাম্মদ (৪০) সাংবাদিকদের জানান, গত কয়েক দিন ধরে সীমান্তের ওপারে কাঁটাতারের বেড়া সংলগ্ন এলাকা তুমুব্রু, তুমব্রু উত্তরপাড়া, টেকিবুনিয়া, কোয়াংচিবন, ফকিরাবাজার, কুমিরখালী, কাদিরবিলসহ বিস্ত্রীর্ণ সীমান্ত এলাকাজুড়ে মিয়ানমার সেনারা নতুন করে বাংকার খনন করছে। তারা রাতের আঁধারে সীমান্তের শূন্যরেখায় এসে মুহুর্মুহু ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করছে। যে কারণে এখানে থাকা মোটেই নিরাপদ নয় বলে ওই রোহিঙ্গা নেতা জানিয়েছেন।

গত এক সপ্তাহ ধরে নো-ম্যান্স ল্যান্ডে থাকা প্রায় ছয় হাজার রোহিঙ্গার নির্ঘুম রাত কাটছে। তারা পালাক্রমে পাহারা দিচ্ছে বলে জানা গেছে।

সীমান্তের জিরো পয়েন্ট এলাকায় বসবাসরত রোহিঙ্গা যুবক আব্দুস সালাম, বেলাল উদ্দিন শফিক মিয়াসহ কয়েকজনকে মিয়ানমার সৈন্যরা উঠিয়ে নিয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন রোহিঙ্গা নেতা জামাল উদ্দিন ও অপহৃতদের সহপাঠী ওসমান গনি।

জানা যায়, রোহিঙ্গা যুবক বেলাল উদ্দিন কয়েক মাস আগে স্থানীয়দের নিপীড়নের শিকার হয়ে সীমান্তের জিরো পয়েন্টে জীবন বাঁচাতে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় ইউপি মহিলা সদস্য খালেদা বেগম জানান, তিনি ইউনিয়ন পরিষদে যাওয়ার সময় এপার থেকে দেখেছেন ওপারে শূন্যরেখায় এসে মিয়ানমার সেনারা বাংকার খনন করছে। সেখানে বৈদ্যুতিক তার সংযোগ দিচ্ছে। এ নিয়ে তুমব্রু ও ঘুমধুম এলাকায় বসবাসরত মানুষের মাঝে ভয়ভীতির সৃষ্টি হয়েছে।

কক্সবাজার ৩৪ বিজিবির উপ-অধিনায়ক মেজর ইকবাল আহমেদ জানান, মিয়ানমার সেনারা সীমান্তজুড়ে বাংকার খনন ও অতিরিক্ত সৈন্য সমাবেশের বিষয়টি তিনি জেনেছেন। তিনি এও বলেছেন, এ নিয়ে বিজিবিদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!