নাঙ্গলকোটে নিখোঁজের ৫ দিন পর লাশ উদ্ধার

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:
কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার রায়কোট উত্তর ইউপির ছুপুয়া গ্রামের খোরশেদ আলম (৫৫) নামের এক ব্যক্তি গত ৫ দিন আগে বাড়ী থেকে নিখোঁজ হয়। এলাকাবাসী বিষয়টি নিয়ে নিখোঁজের পরিবারকে সন্দেহ করে। গত সোমবার স্থানীয় সাংবাদিকরা নিখোঁজ ছুপুয়া গ্রামের মৃত. সেরাজুল হকের ছেলে খোরশেদ আলমের বাড়ীতে গিয়ে তার স্ত্রী, মেয়ের কাছে খোরশেদ আলমের তথ্য চাইলে তারা কোন তথ্য দিতে পারেনি। খোরশেদ আলমের ছবি ও মোবাইল নাম্বার তাদের কাছে নেই বলে জানান।
এ ঘটনায় সোমবার তার মেয়ে মুর্শিদা নিখোঁজের সন্ধানের দাবীতে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে নিখোঁজের ছেলে এ¯্রাফিল (১২) আমেরিকা প্রবাসী মাষ্টার রকিব উদ্দিনের পরিত্যাক্ত বাড়ীর ওয়াল থেকে লাফ দিয়ে কান্না অবস্থায় বের হয়ে যাওয়ার সময় ওই বাড়ীর ক্যায়ারটেকার আব্দুল মন্নান দেখে বাজারের লোকজনদেরকে বিষয়টি জানান। এ সময় বাজারের লোকজন মিলে বাড়ীতে গিয়ে তল্লাশি চালায়। একপর্যায়ে বাড়ীর পুকুর পাড়ের পশ্চিম কোনায় মাছি বনবন করতেছিল। তখন তারা দেখে মানুষের হাতের কনুই দেখা যায়। সাথে সাথে থানায় খবর দেন। খবর পেয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের উপস্থিতিতে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনার খুনিদের বিচারের দাবীতে স্থানীয় এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল করেন।
স্থানীয় ইউপি সদস্য একরাম, সালেহ আহম্মদ জানায়, নিহত খোরশেদ আলমের সাথে তার মেয়ে রশিদার শশুর একই গ্রামের মৃত. যৌবন আলীর পুত্র তাজুল ইসলামের সাথে ১৭ লক্ষ টাকা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। আগামী ১৭ নভেম্বর স্থানীয় ভাবে বিষযটি মিমাংসা হওয়ার কথা ছিল।
নিহতের বোন নেহেরা বেগম জানান, গত বৃহস্পতিবার ১১টার দিকে খোরশেদ তার কাছে বলে আমার শরীর খারাপ লাগছে। পরিবারের লোকজন তাকে হত্যা করতে পারে। এ ঘটানায় সিনিয়ির সহকারী পুলিশ সুপার মেহেদী হাছান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জাফর আহম্মদ মজুমদার বলেন, তদন্ত করে সঠিক অপরাধিদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানান।
এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, সন্দেহজনক তিন জনকে প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য স্ত্রী বাদল বেগম, ছেলে ই¯্রাফিল ও নিহতের শালিকার ছেলে পেয়ার আহম্মদকে আটক করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (মর্গে) প্রেরণ করা হয়েছে। থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!