নাঙ্গলকোটে ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে চলছে জমজমাট প্রচারনা

বারী উদ্দিন আহমেদ বাবর॥
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের ৮ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে চলছে জমজমাট প্রচারনা। আগামী ২৮ ডিসেম্বর এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইউনিয়নগুলোতে মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৯ হাজার ৭৩৩। এতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন চেয়ারম্যান ৩১ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৬৫ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২৯৮ জন প্রার্থী।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, চেয়ারম্যান প্রার্থী, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও সাধারণ সদস্য পদের প্রার্থীরা নিজ নিজ প্রতীকের লিফলেট বা হ্যান্ডবিল হাতে দিয়ে এলাকাবাসীর কাছে ভোট চাইছেন। নির্বাচনী প্রচারনার জন্য তৈরী করা পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে গেছে ইউপিগুলোর বিভিন্ন ওয়ার্ডের রাস্তাঘাট, হাট-বাজার। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে পারিবারিক আলোচনায় থাকছে নির্বাচনী আলোচনা।
গতকাল শুক্রবার চেয়ারম্যান পদে একমাত্র নারী প্রার্থী আদ্রা উত্তর ইউপির বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীক প্রার্থী মাহবুবা আক্তারকে দক্ষিণ শাকতলী গ্রামে প্রচারনা চালাতে দেখা গেছে। এসময় তিনি বলেন, তাঁকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করা হলে তিনি সব ধরনের অনিয়ম দূর করে আদ্রা উত্তর ইউপিকে স্বচ্ছ ও সুন্দ আধুনিক একটি মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলবেন।
একইভাবে, জোড্ডা পূর্ব ইউনিয়নের আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আনোয়ার হোসেন মিয়াজী হানগড়া গ্রামে প্রচারনা চালিয়েছেন। এসময় তিনি নৌকা প্রতীকে ভোট চেয়ে বলেন, আমাকে আপনারা ভোট দিয়ে নির্বাচিত করলে বর্তমান সরকারের উন্নয়নের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার হবে এ ইউনিয়ন। এছাড়া আমি সবসময় আপনাদের পাশে ছিলাম ভবিষ্যতেও থাকবো। আপনাদের মূল্যবান একটি ভোটই আমার বিজয় নিশ্চিত করতে পারে। এসময় তাঁর সাথে দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও ওই গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মুরব্বিরা উপস্থিত ছিলেন।
উপজেলা নির্বাচন কমিশনারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার আদ্রা, জোড্ডা, দৌলখাঁড় ও রায়কোট ইউনিয়কে বিভক্ত করে ৮ ইউনিয়নে রুপান্তর করা হয়। যারফলে ২০১৬ সালের অনুষ্ঠিতব্য ইউপি নির্বাচনে এসব ইউপির নির্বাচন স্থগিত ছিল। পরে সীমানা পুনঃনির্ধারন করে গেজেট প্রকাশের পর এবছর নির্বাচনের আয়োজন করা হয়। ৮ ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন চেয়ারম্যান ৩১ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৬৫ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ২৯৮ জন প্রার্থী। ৮ ইউপিতে মোট ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৯ হাজার ৭৩৩।
উপজেলার জোড্ডা পশ্চিম ইউনিয়নে আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. মাসুদ রানা ভূইয়া, বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মো. শাহাজাহান মজুমদার, জোড্ডা পূর্ব ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী শফিকুর রহমান চৌধূরী, আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. আনোয়ার হোসেন মিয়াজী, দৌলখাঁড় ইউনিয়নে আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. আবুল কালাম ভূইয়া, বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মো. মোশারফ হোসেন, বটতলী ইউনিয়নে আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এন.কে.এম সিরাজুল ইসলাম, বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী গোলাম মাওলা, আদ্রা উত্তর ইউনিয়নে আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. তাজুল ইসলাম, বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মাহবুবা আক্তার, আদ্রা দক্ষিণ ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মো. মাঈন উদ্দীন, আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবদুল ওহাব, রায়কোট উত্তর ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মো. ইদ্রিস মিয়া, আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম, রায়কোট দক্ষিণ ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মো. নজরুল ইসলাম মিনু, আ’লীগ সমর্থিত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মুজিবুর রহমান মুজিব প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।
এসব প্রার্থীরা নিজ নিজ ইউনিয়নের প্রতিটি বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন। রাত জেগে জেগে চলছে বিভিন্ন স্থানে পোষ্টার লাগানোর কাজ। প্রার্থীরা যোগ দিচ্ছেন দলীয়, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের বিভিন্ন কর্মসূচিতে। ভোটারদের মন জয় করতে নানা কৌশল অবলম্বন করছেন। সালাম আর কুশল বিনিময়ের পাশাপাশি প্রার্থীরা ভোটারদের সহযোগিতা কামনায় নিজ এলাকার বাইরে গিয়ে জুম্মার নামায আদায় করছেন। মসজিদ মাদ্রাসা উন্নয়নের জন্য সহযোগিতার করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। সব মিলিয়ে নির্বাচনকে সামনে রেখে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে নানা রকমে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.