নবুওয়াত ও রিসালাত কি?

ইসলাম ডেস্ক : প্রতিটি মানুষ সৎপথে চলার যোগ্যতা নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। পরবর্তীতে প্রবৃত্তির তাড়নায়, শয়তানের প্ররোচনায় এবং পারিপার্শ্বিকতার প্রভাবে সাধারণত অসৎপথে পরিচালিত হয়। ফলে হিংসা-বিদ্বেষ, পরশ্রীকাতরতা, নিষ্ঠুরতা, হত্যা, লুণ্ঠন ইত্যাদির মতো অপরাধ সংঘঠিত হয় এবং এভাবইে ধীরে ধীরে কলুষিত হয় পৃথিবী। আবার কখনো মানুষ নিজেকে অতিক্ষমতাধর মনে করে সমাজে নানা ধরনের বিপর্যয় সৃষ্টি করে। ক্ষমতার বহিপ্রকাশ ঘটানোর লোভ সামলাতে না পেরে নিজে আহত হয় এবং আহত করেন অন্যকেও। এতে মানব সমাজে নেমে আসে নানা বিপর্যয়-অশান্তি। অত্যাচারী, সীমালংঘনকারীদের সীমাহীন তান্ডব লীলায় সমাজে নিরাপত্তার অভাব দেখা দেয়।

অত্যাচার, অনাচার ও পাপাচারে সমাজ হয়ে যায় চরমভাবে কলুষিত। ঘোর অন্ধকার তখন মানব সমাজকে আচ্ছন্ন করে নেয়। ভুলে যায় মানুষ তখন সৃষ্টিকর্তা মহান রাব্বুল আলামীনকে। সমাজকে এ অবক্ষয় থেকে মুক্ত করার জন্য যুগে যুগে আল্লাহ মহান প্রেরিত নবী-রাসূলগণের আগমন ঘটেছে এবং এই আগমনই হয়ে দাঁড়িয়েছে মানবার সংশোধনের এক অন্যতম উপায়। তাই মহান আল্লাহ্ মানবজাতিকে সঠিক ও সরল পথ প্রদর্শনের জন্য যুগে যুগে নবী ও রাসূলগণের এক সুমহান জামাআত পাঠিয়েছেন। নবী-রাসূলগণের আবির্ভাব না হলে সত্য ও আলোর সন্ধান মানুষ কোনক্রমেই লাভ করতে সক্ষম হতো না। প্রত্যেক নবী-রাসূলগণ আল্লাহ মহান কর্তৃক মনোনায়নগত যে দায়িত্ব নিয়ে ধরাতে আর্বিভাব করেছেন সেটাই মূলত নবুয়াত বা রিসালাত।

আল্লাহর সত্তা হলো অসীম। কিন্তু মানুষের জ্ঞানবুদ্ধি সীমাবদ্ধ। এই সীমাবদ্ধ জ্ঞান-বুদ্ধির দ্বারা আল্লাহর সত্তা ও গুণাবলীর পরিচয় লাভ করা আদৌ সম্ভব নয়। তাই আল্লাহ্ তাআলা একান্ত দয়াপরবশ হয়ে মানুষের হিদায়ত ও কল্যাণের জন্য এ পৃথিবীতে হজরত আদম (আ.) থেকে আরম্ভ করে আখিরী নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) পর্যন্ত আম্বিয়ায়ে কিরামের এক সুমহান কাফেলাকে প্রেরণ করেছেন। আর তাঁদেরকে দিয়েছেন দিক নির্দেশনারূপে বহু কিতাব ও সহিফা। নবী-রাসূল এবং তাঁদের প্রতি নাজিলকৃত কিতাবের মাধ্যমেই মানুষ আল্লাহ্কে চিনতে পারে, তাঁর হুকুম-আহ্কাম এবং তাঁর পছন্দনীয় পথ ও মত ইত্যাদি জানতে পারে।

হজরত মুজ্জাদিদে আলফে সানী শায়খ আহমাদ সরহিন্দি (রহ.) এ প্রসঙ্গে বলেন, মানুষের বিবেক-বুদ্ধি নবীগণের সহযোগিতা ও পথপ্রদর্শন ছাড়াও বিশ্ব স্রষ্টার অস্তিত্ব নির্ণয় করতে পারে বটে, কিন্তু আল্লাহর অস্তিত্বের সাথে তাঁর মৌলিক গুণাবলীর সঠিক পরিচিতি, তাঁর পবিত্রতা, নিষ্কলুষতা, ইত্যাদি বিষয়ে অবগত হওয়া নবী-রাসূলগণের সহযোগিতা ব্যতিরেকে আদৌ সম্ভব নয়। [মানসাবে নবুয়াত, মাওলান আবুল হাসান আলী নদভী (রহ.), পৃষ্ঠা-২২, বাংলা]

নবুওয়াত ও রিসালতের আবশ্যকতার কথা উল্লেখ করে প্রখ্যাত গবেষক আলিমগণ বলেন, এ কথা সর্বজন স্বীকৃত যে, এক বিশেষ পরীক্ষার উদ্দেশ্যেই আল্লাহ তাআলা মানবজাতিকে এ পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন এবং তাদের প্রতি বিভিন্ন দায়িত্ব ও বিধি-বিধান আরোপ করেছেন। সুতরাং মানুষ এই পরীক্ষা যেন সফলতার সাথে উত্তীর্ণ হতে পারে সে বিষয়ে সহযোগিতা করার জন্য নবী-রাসূলদের প্রেরণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.