দেশে আসলেন খালেদা, অভ্যর্থনা জানালেন ফখরুল

চিকিৎসা শেষে তিন মাস পর ঢাকায় পৌঁছলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

বুধবার বিকাল পাঁচটা সাত মিনিটে তাকে বহনকারী বিমান হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়।

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান একথা জানিয়েছেন।

তিনি জানান, বিমানবন্দরের ভেতরে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর চেয়ারপারসনকে স্বাগত জানান।

জানা গেছে,দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যসহ কেন্দ্রীয় নেতাদের ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয়নি। যে কারণে তারা বাইরে অবস্থান করেন।

পরে খালেদা জিয়াকে বহনকারি গাড়ি বের হওয়ার সময় কেন্দ্রীয় ও হাজার হাজার নেতাকর্মী তাকে স্বাগত জানান।

খালেদা জিয়াকে সংবর্ধনা জানাতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছিল বিএনপি। কিন্তু তারা বিমানবন্দরে ঢুকতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেছেন।

খালেদা জিয়া আসার আগে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিআইপি টার্মিনালের প্রবেশপথে অপেক্ষমাণ সাংবাদিকদের মির্জা আব্বাস বলেন, ‘দলের চেয়ারপারসনকে সংবর্ধনা দিতে আমরা বিমানবন্দরে এসেছি। কিন্তু আমাদেরকে বিমানবন্দরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না।’

দেখা গেছে, ভেতরে ঢুকতে না পেরে ভিআইপি টার্মিনালের কাছে মসজিদের সামনে অপেক্ষায় ছিলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাস, দলের ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদসহ কেন্দ্রীয় নেতারা।

এদিকে দুপুর থেকে ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে ও গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকা থেকে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা বিমানবন্দর ও আশপাশের সড়কে অবস্থান নেন। এসময় তারা ব্যানার, ফেস্টুন হাতে নিয়ে দলের চেয়ারপারসনকে স্বাগত জানিয়ে স্লোগান দেন।
বিমানবন্দর থেকে সাড়ে ৫টার পর খালেদা জিয়া বিমানবন্দর থেকে গুলশানের বাসার উদ্দেশে রওনা হন।

অন্যদিকে খালেদা জিয়ার দেশে ফেরাকে কেন্দ্র করে টঙ্গী, উত্তরা, বিমানবন্দর,খিলক্ষেত, বনানীসহ আশপাশের এলাকায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে সাধারণ মানুষের ব্যাপক দুর্ভোগের শিকার হন। অনেকেই গাড়ি থেকে নেমে পায়ে হেঁটে গন্তব্যে যেতে দেখা যায়।

মঙ্গলবার রাত ১০টা ১৫ মিনিটে এমিরেটস এয়ালাইন্সের (ইকে-৫৮৬) একটি ফ্লাইটে তিনি দেশের পথে রওনা হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.