1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ০১:২৪ অপরাহ্ন

তালা উপজেলার খেশরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি আর কখনো কি ঠিক হবে না

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : বুধবার, ৯ আগস্ট, ২০১৭
  • ৩১ বার পড়া হয়েছে

তালা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি : তালা উপজেলার খেশরা ইউনিয়নের ১৩৩ নং পশ্চিম খেশরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ক্লাস চলছে বাঁশের বেড়া ও গোলপাতার ছাউনি বিশিষ্ট ঘরে । কিন্তু তার চেয়ে বিষ্ময়ের ব্যাপার হলো , এ ঘরে একটু বৃষ্টি হলেই পানি পড়ে , ব্যাহত হয় স্কুলের লেখাপড়ার স্বাভাবিক পরিবেশ ।
সরেজমিন পরিদর্শনকালে প্রধান শিক্ষক মোঃ মহিউদ্দিন মোড়লের সাথে আলাপকালে জানা যায়, বিদ্যালয় অবকাঠামোগত বেহাল দশার নানা ব্যর্থতার ইতিহাস । তিনি জানান, ১৯৮২ সালে প্রতিষ্ঠিত স্কুলটি রেজিষ্টারর্ড স্কুল থাকাকালীন ১৯৯৪ সালে একটি ভবন নির্মিত হয় । সেখানে চলতে থাকে শিক্ষা কার্যক্রম । কিন্তু বিদ্যালয়ের ছাদে ফাটল দেখা দিলে তালা উপজেলার সহকরী শিক্ষা কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম ঝুকিপূর্ন ভবনে ক্লাস নিতে শিক্ষকদের নিষেধ করেন । বর্তমানে বিদ্যালয়টি ২০১৩ সালের সরকারী ঘোষনা অনুযায়ী সরকারী স্কুল । কিন্তু এ স্কুলের ভবনের প্রতিটি রুমের ছাদ ও দেয়ালে ফাটল দেখা দেয়ায় নতুন করে তৈরী করা গোলপাতার ঘরে চলছে শিক্ষা কার্যক্রম । সেটাও অনিরাপদ । একটু বৃষ্টি হলেই ক্লাসের ভিতরে পানি ঢুকে । ব্যহত হয় শিক্ষা কার্যক্রম । তাছাড়া শিক্ষকরা বসছেন, ফাঁটল ধরা ছাদের নীচে , জীবনের ঝুকি নিয়ে । ভবন নির্মানের ব্যাপারে কি ব্যবস্থা নিয়েছেন-এমন প্রশ্নের জবাবে প্রধান শিক্ষক বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান , উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা , জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এবং জাতীয় সংসদ সদস্য বরাবর ভবনের বেহাল দশা দুরিকরন এবং তা সংষ্কারের ব্যাপারে আবেদন করা হয়েছে । কিন্তু তাতে কোন ফল হয়নি ।
জানানযায় ,পরিকল্পনা ও উন্নয়ন মন্ত্রানলয়ের সহকরী পরিচালক বরাবর সংসদ সদস্যের ডিও লেটারেও তালা উপজেলার ১১টি স্কুলের নাম উল্লেখ করে , তা সংষ্কারের দাবি জানানো হয় । তাতেও কোন ফল মেলেনি । এরপরও কেঁটে গেছে ৩টি বছর । এছাড়া ৯ আগষ্ট’১৪ সালে দৈনিক পত্রদূত ও দৈনিক কাফেলায় এ বিষয়ে সংবাদ ছাপা হয় । তবুও টনক নড়েনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ।
বিদ্যালয়ের শিক্ষক বিশ্বজিৎ দাশ আক্ষেপ করে বলেন, আমাদের দূঃখ দেখার কেউ নেই । শিক্ষার্থীদের কয়েকজন অভিভাবক বলেন, আমাদের ছেলে-মেয়েরা চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে তাদের লেখা-পড়া চালিয়ে যাচ্ছে । একদিকে এ পরিবেশে লেখাপড়ার পরিবেশ ব্যহত হচ্ছে , অন্যদিকে তাদের মানসিক বিকাশে দেখা দিয়েছে চরম অনিশ্চয়তা । শিক্ষক , অভিভাবক এবং এলাকাবাসীর প্রশ্ন, এ সমস্যা সমাধানের উপায় কি ? কবে নাগাদ ফিরে আসবে লেখাপড়ার নিরাপদ ও সুষ্ঠু পরিবেশ? তাদের নির্লিপ্ত চোখ এসব প্রশ্নের উত্তরের দিকে চেয়ে আছে ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!