তালায় পেয়াজের দাম দ্বিগুণ, দিনমজুরদের মাথায় হাত

তাল(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি : তালায় গত এক মাসে বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। দেশি পেঁয়াজের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায় আর আমদানি করা পেঁয়াজের কেজি ৬০ টাকা। দেশীয় পেঁয়াজের উৎপাদন কম এবং ভারতে পেঁয়াজের দাম বেশি জানিয়ে পাইকাররা জানিয়েছেন, খুব শিগগির দাম কমার সম্ভাবনা দেখছেন না তাঁরা।
বাজারে এসে পেঁয়াজের দাম শুনেই আঁতকে উঠতে হচ্ছে ক্রেতাদের। এক মাস আগে দেশি পেঁয়াজের দাম ছিল প্রতি কেজি ৩৫ টাকা। তা এখন বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়। অন্যদিকে আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের দাম ছিল প্রতি কেজি ২৫ টাকা। এর দাম এখন বেড়ে কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়।
প্রতিবেদনে দেখা গেছে, এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিকেজি পেঁয়াজে দাম বেড়েছে ১০ থেকে ১৫ টাকা। আর এক মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ২০ থেকে ৩০ টাকা। যা শতাংশের হারে প্রায় ৫৫ শতাংশ।
বাজারে আসা একাধিক ক্রেতা জানান, বাজার করতে গেলে হিমশিম খেতে হয়। দ্রব্যমূল্যের দাম যদি কমত তাহলে স্বস্তি আসত।
অন্য এক ক্রেতা জানান, চাহিদা অনুযায়ী পেঁয়াজ কিনতে পারছেন না তিনি। আগে যত পেঁয়াজ লাগত তার চেয়ে কম পরিমাণে কিনতে হচ্ছে। এত টাকা দিয়ে তো পেঁয়াজ কেনা সম্ভব না বলে তিনি জানান।
পেঁয়াজের এমন দামে অসহায়ত্ব প্রকাশ করলেন খুচরা বিক্রেতারাও।
তালা উপজেলার বিভিন্ন বাজারের খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান, মোকামে বেশি দাম থাকলে তাঁদের কিছু করার থাকে না। পাইকারি যারা বিক্রি করে, তারাই বেশি দামে বিক্রি করে।
অন্যদিকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা জানান, এ বছর দেশে পেঁয়াজের উৎপাদন কমেছে, তাই দামটা এখন বাড়ছে। অন্যদিকে ভারতেও পেঁয়াজের দাম বাড়তি, তাই আমদানি করতে হচ্ছে বেশি দাম দিয়ে।
দাম নিয়ে মোকামের ব্যবসায়ীরা কারসাজি করে এমন অভিযোগ করে পাইকারীরা জানান, বৃষ্টির কারণে ভারতে কিছুটা দাম বেড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে দেশি পেঁয়াজে। তবে বড় ব্যবসায়ীরা সুযোগ বুঝে অধিক মুনাফার আশায় দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়িয়েছেন। সম্প্রতি বৃষ্টির কারণে ফরিদপুর, পাবনাসহ উৎপাদনকারী কয়েকটি এলাকায় প্রচুর পরিমাণে পেঁয়াজ নষ্ট হয়ে গেছে।

এছাড়া ভারতের পেঁয়াজের ওপর বাংলাদেশকে নির্ভর করতে হয় উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশের মত ভারতেও বৃষ্টিতে পেঁয়াজের উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে। তিনি আরো বলেন, দেশটিতে প্রায় ২০ জাতের পেঁয়াজের উৎপাদন হয়। তবে বাংলাদেশে যে কয়েক জাতের পেঁয়াজ আসে তার মধ্যে সাউথ, বেলুরিয়া পেঁয়াজ অন্যতম। কিন্তু এই দুটি জাতের পেঁয়াজই নষ্ট হয়েছে বেশি। সেজন্য দাম বেড়েছে বলে মনে করেন এই ব্যবসায়ী।
এক বিক্রয়ক্রর্মী বলেন, বৃষ্টি ছাড়াও মোকামের ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে মাল মজুদ করে। তারা নিজেরাই সংকট দেখিয়ে কয়েকদিন পেঁয়াজ বিক্রি করে না। তখনই দাম বেড়ে যায়।দেশে পেঁয়াজের সবচেয়ে বড় মোকাম হচ্ছে রাজশাহীর তাহেরপুর ও বানেশ্বর, ফরিদপুরের গোয়ালন্দ। এছাড়া পাবনায়ও একটি মোকাম রয়েছে। এসব মোকামে মাঝে মাঝে পেঁয়াজের সংকট দেখা দেয়। তখন পাইকারদের বেশি দাম দিয়ে কিনতে হয়।
মোকামের আড়তদাররা সিন্ডিকেট করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এই বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে প্রায়ই এমন অভিযোগ শোনা যায়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!