তালার পীর শাহ জয়নুদ্দীন(রাঃ)মাজার ধ্বংস হবার পথে

তালা(সাতক্ষীরা)প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার মাগুরা ইউনিয়নে অবস্থিত পীর শাহ্ জয়নুদ্দীন (রাঃ) মাজার স্থম্ভো। তালা বাসীর গৌরভ এই মাজার শরীফটি। প্রায় প্রতি দিনেই হাজার হাজার মানুষের আগমন ঘটে মাজারটিতে। কিন্তু বেহাল অবস্থা কাটেনি মাজারটির।
সপ্তাহের যে কোন দিনে মাজারটিতে গেলে চোঁখে পড়বে হাজার হাজার মানুষের ঢল। ঢুকেই প্রথমে দেখতে পাবেন, রান্নারঘর তারপর পুকুর ও পাশে মাজার শরীফটি। প্রায় দুই বছর ধরে মাজারের চার পাশে পিলার করে রাখলেও হয়ে উঠেনি ছাদ করা। রয়েছে সেই পুরানো টিনের ছাওনি। বৃষ্টির মৌসুমে পানি পড়ে মাজারের মধ্যে। বড় বড় ফুটো হয়ে রয়েছে সেই টিনগুলি। তাই পুরানো চালটিকে ঢেকে রাখা হয়েছে পলিথিন দিয়ে।
তার পাশে রয়েছে পীর শাহ্ জয়নুদ্দীন (রাঃ) জামে মাসজিদ। কিন্তু অর্থের অভাবে কাজ সম্পন্ন হয়ে উঠেনি মাসজিদটির । মাসজিদের ছাঁদটি করা হলেও জানালা/দরজা করা হয়ে উঠেনি । মাজারের পিছনে রয়েছে একটি বসার ঘর। কিন্তু ভালোভাবে বসার কোন স্থান রাখা হয়নি বলে মনে করেন দর্শনার্থীরা।
সাত দিতে আসা তালা গোলালীর অমল বিশ্বাস বলেন, আমি প্রতি বছর সাগরে মাছ ধরতে যাই। যাওয়ার আগে পীরের মাজারে আসি দোয়া নিতে। পীর সাহেবের দোয়তে প্রতি বছর আমার ভালোভাবে যায়।
মাজারটিতে খাদেমের শেষ নেই। পূর্ব শরিক গন এই মাজারের খাদেম। আগে ছিল পাঁচ জন খাদেম এখন প্রায় ১৪ জন খাদেম এই দায়িত্ব পালন করে থাকেন। সেই সুত্রে গত বুধবার দায়িত্ব পালনরত খাদেম শেখ আব্দুল শাহিন জানান, প্রায় প্রতেক দিন হাজার হাজার মানুষ গরু, ছাগল, হাঁস/মুরগী নিয়ে আসে।এসে তাদের মতো রান্না করে নিয়ে যায়। মাজার থেকে মাটি পড়া নিয়ে যায়, বাতসা ও ধুপবাতি দিয়ে যায়। যার যা ইচ্ছে সে তা প্রার্থনা করে এবং তাদের প্রার্থনা সফল হলে আবার আসে। টাকা পয়সার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা কারো কাজ থেকে চেয়ে নেইনা যার যা ইচ্ছা সেই টাকা দিয়ে যায়।
অপর দিকে সাগরে যাওয়া এক মালিক বলেন, আমরা রুমাল পড়ে নিয়ে যাই এখন ১০০টাকা করে নেই, আসে যা দিতাম তাতেই হতো এখন সব জিনিসেই যেন রেট হয়ে গেছে ।
প্রতিবেদক পীর শাহ্ জয়নুদ্দীন (রাঃ) জামে মাসজীদে যোহরের নামাজ আদায় করার পরে পরিচয় হয় মাজারের অন্যতম খাদেম শেখ আব্দুল ওদুত’র সাথে তারপর তিনি বলেন, অর্থের অভাবে আমারা আমাদের মসজিদের কাজ শেষ করতে পারছিনা। মাজারের উপরে ছাওনিটা দিতে পারছিনা। বৃষ্টির সময় মাজারের মধ্যে পানিতে তলিয়ে যায়। এদিকে খেয়াল নেই কারো। অনেক আগে কিছু অনুদান পেয়েছিলাম তার কাজ করিয়ে রেখেছি।
স্থানীয় শেখ লুৎফর রহমান জানান, বহু দুর থেকে বিভিন্ন ধর্মের লোকজন এখানে আসে, তারা বিশ্বাস করে পীর সাহেব এখানে এখনো জীবিত আছেন, তাদের প্রার্থনাকে কবুল করবেন । প্রার্থনা কবুলের পরে তারা তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী হাজত দিয়ে যায়।
টাকার কথা জানতে চাইলে মাজারের অন্যতম খাদেম শেখ আব্দুল ওদুত বলেন, যার দিন থাকে সে ২০০টাকা মাজারের জন্য রাখে অন্য টাকা সে নেই। কেন নেই এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ আমাদের বাব দাদার জমি এখানে কাজ করে যেটা পাই তাই দিয়ে আমাদের সংসার চলে । প্রত্যেক দিন কেমন টাকা হয় এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কোন দিন ৫০০,৭০০,১০০০ বা তার বেশি হয় আবার মাঝ মধ্যে ২০০ এর কমও হয় কারন সব দিন সমান লোক আসে না। তিনি আরো বলেন, তালা উপজেলার গর্ব আমাদের মাজার। তাই সমাজের বিত্তবানরা যদি এগিয়ে আসে তাহলে আমরা এই মাজার শরীফ কে সুন্দর ভাবে সজ্জিত করতে পারবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.