টিপু সুলতানের জন্মদিন ঘিরে ভারতে নতুন বিতর্ক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতে ব্রিটিশ শাসনের সময় অষ্টাদশ শতকের শেষ দিকে মহীশুরে রাজত্ব করেছিলেন টিপু সুলতান। তিনি একজন নায়ক নাকি খলনায়ক, তা নিয়ে নতুন করে রাজনৈতিক বিতর্ক শুরু হয়েছে।

মহীশুর কর্ণাটক রাজ্যের ভেতর। সেই রাজ্যে ক্ষমতাসীন কংগ্রেস আগামী মাসে মহা ধূমধামে টিপু সুলতানের জন্মদিন উদযাপন করতে চলেছে। কিন্তু বিরোধীদল বিজেপি এর তুমুল বিরোধিতা শুরু করছে।

বিজেপির অভিযোগ, রাজ্যে আসন্ন ভোটের কথা মাথায় রেখে সংখ্যালঘু মুসলিমদের ভোট টানতেই কংগ্রেস টিপু সুলতানের মতো একজন ‘খলনায়কে’র জন্মদিন পালন করছে। কর্ণাটকের বিজেপি নেতা ও কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রী অনন্ত কুমার হেগড়ে তো টিপু সুলতানকে একজন খুনি ও ‘কুখ্যাত ধর্ষণকারী’ বলতেও দ্বিধা করেননি। টিপু সুলতান গণহারে অসংখ্য নারীকে ধর্ষণ করেছিলেন বলেও তিনি দাবি করেছেন। টিপু সুলতানের জন্মদিন উদযাপন অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে স্থানীয় এমপি হিসেবে তার নাম থাকলে তিনি গিয়ে অনুষ্ঠানে বিরাট গণ্ডগোল বাঁধাবেন বলেও হুমকি দিয়ে রেখেছেন।

কিন্তু এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পড়েছে বিজেপির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী জগদীশ শেট্টার ও দলের অন্য নেতাদের পাঁচ বছরের পুরনো একটি ছবি। যেখানে তাদের টিপু সুলতানের মতো পাগড়ি পরে ও হাতে অবিকল তার ভঙ্গিতে তলোয়ার ধরে মঞ্চে ছবি তুলতে দেখা যাচ্ছে।

যে দল টিপু সুলতানকে একজন দেশবিরোধী অত্যাচারী শাসক হিসেবে তুলে ধরতে চাইছে, সেই বিজেপিকে এই ছবি বেশ অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছে। কর্ণাটক কংগ্রেসের সভাপতি দীনেশ গুন্ডু রাও প্রশ্ন ছুঁড়ে বলেন, ‘তাহলে বিজেপি নেতারা কি পাঁচ বছর আগে জানতেন না টিপু সুলতান একজন নিষ্ঠুর অত্যাচারী?’

টিপু সুলতানের জন্মদিন পালন করাটা কতটা যুক্তিযুক্ত, তা নিয়ে গত কয়েক বছর ধরেই কর্ণাটক ও তার পাশের রাজ্য তামিলনাড়ুতে বাকবিতণ্ডা চলছে। টিপু সুলতানের পক্ষে কথা বলে হুঁশিয়ারিও শুনতে হয়েছিল বিশিষ্ট কর্ণাটকি অভিনেতা ও নাট্যকার গিরিশ কারনাডকেও।

কর্ণাটকের বর্তমান কংগ্রেস সরকার অবশ্য শুরু থেকেই বলে আসছে টিপু সুলতানের জন্মজয়ন্তী পালনে অন্যায় কিছু নেই। কর্ণাটকের মন্ত্রী ও কংগ্রেস নেতা দীনেশ গুন্ডুরাওয়ের কথায়, ”রাজ্যের মহান সন্তান টিপু সুলতানের জন্য আমরা সবাই গর্বিত। তিনি সুশাসক ছিলেন, সাম্প্রদায়িক ছিলেন না। এই বীর যোদ্ধা ইংরেজের বিরুদ্ধে স্বাধীনতার লড়াইয়েও নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কর্ণাটকে রেশম চাষ থেকে অনেক সংস্কার শুরু হয়েছিল তার হাতেই। আর যে সব হত্যাকাণ্ডের কথা বলছেন সেরকম বিতর্ক তো গুজরাটে আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে নিয়েও আছে।’

এদিকে টিপু সুলতান যে বিতর্কিত, ঐতিহাসিকরাও তা অস্বীকার করেন না। দাক্ষিণাত্যের ইতিহাসের বিশেষজ্ঞ, অধ্যাপক শৌভিক মুখোপাধ্যায় অবশ্য মনে করেন এই বিতর্কের বীজ নিহিত আছে টিপু সুলতানকে নিয়ে সে আমলের লেখালেখির ভেতরে।

তিনি জানান, ‘টিপু সুলতানকে নিয়ে যাবতীয় গবেষণার মূল উৎস হল সে আমলে ব্রিটিশ সামরিক কর্মকর্তাদের রিপোর্ট। এখন শত্রুর সম্বন্ধে তারা যে খুব একটা ভাল কথা বলবেন না তা তো বলাই বাহুল্য। টিপু সুলতানের বিরুদ্ধে যেমন হিন্দু-নিধন বা মন্দির ধ্বংস করার অভিযোগ আছে তেমনি মারাঠাদের হাতে প্রায় ধ্বংস হতে যাওয়া শঙ্করাচার্যর প্রতিষ্ঠিত শৃঙ্গেরী মঠকে তিনিই কিন্তু পুনর্জন্ম দিয়েছিলেন।’

কিন্তু বিজেপি মনে করে টিপু সুলতানের হাতে যত হিন্দু বা কুর্গ এলাকায় যত খ্রিষ্টান মারা গেছেন তারপর তাকে মহান শাসক হিসেবে তুলে ধরাটাই চরম অন্যায়।

১৭৯৯ সালে শ্রীরঙ্গপতনমের যুদ্ধে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রাণ দেন টিপু সুলতান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!