জয়পুরহাট পিটিআই শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান হওয়ায় শিক্ষার্থীদের আনন্দ র‌্যালি

জয়পুরহাট সংবাদদাতা : শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিচালনায় সারাদেশের মধ্যে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহের মূল্যায়নে জয়পুরহাট পিটিআই শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি লাভ করায় সোমবার সকালে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা এক আনন্দ র‌্যালি বের করে।
১৯৮৪ সালে জেলা শহরের পশ্চিম প্রান্তে খনজনপুর এলাকায় ৪ দশমিক ১০ একর জমির ওপর গড়ে তোলা হয় জয়পুরহাট পিটিআই ভবন। এখানে ১ নং ভবনে রয়েছে ১৮টি কক্ষ, ৩৬ সিট বিশিষ্ট পুরুষ হোস্টেল ও ২৮ সিট বিশিষ্ট্য একটি মহিলা হোস্টেল। ২০১৭-১৮ সেশনে প্রশিক্ষণার্থী ছিলেন ১শ’ ৭৭ জন। যার মধ্যে ১শ’ ১৫ জন হচ্ছেন মহিলা। ২০১৮-১৯ সেশনে ১৭০ জন প্রশিক্ষাণার্থীর মধ্যে ৯৯ জন মহিলা রয়েছেন । প্রশিক্ষণার্থীরা হচ্ছেন বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক/ শিক্ষিকা। যে কোন কাজে সফলতার জন্য প্রয়োজন হয় দক্ষতার। সে কারণে প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নের জন্য এখানে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। এ প্রশিক্ষণের নাম দেয়া হয়েছে ডিপ্লোমা ইন প্রাইমারী এডুকেশন (ডিপিএড)। জয়পুরহাট পিটিআইতে একটি সমৃদ্ধ লাইব্রেরি রয়েছে। বিভিন্ন মনিষীর জীবন কাহিনী ও প্রাথমিক শিক্ষা ক্যারিকুলাম ও উন্নয়নমূলক বই রয়েছে ৩ হাজার ৫শ’ ৫১টি। শিক্ষকদের ডিজিটাল পদ্ধতিতে ট্রেনিং ও আইসিটি বিষয়ক ধারণা লাভের জন্য ২১টি কম্পিউটার ল্যাব রয়েছে এখানে।
অর্থ নয়, ইচ্ছা আর কাজের প্রতি আগ্রহ থাকলে একটি প্রতিষ্ঠানকে সুন্দর ও মনোরম পরিবেশে গড়ে তোলা সম্ভব বলে বাসস’কে জানান, জয়পুরহাট পিটিআইয়ের সুপারিনটেনডেন্ট মো. রেজাউল হক।
শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতির খবরে জয়পুরহাট পিটিআইতে প্রশিক্ষণার্থীরা তাৎক্ষণিকভাবে কেক কেটে উৎসব উদযাপন করেন। সোমবার শিক্ষার্থীদের আনন্দ র‌্যালিটি শহর প্রদক্ষিণ শেষে আবার পিটিআইতে ফিরে আসে। এখানে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. মোকাম্মেল হক। পিটিআইয়ের সুপারিনটেনডেন্ট মো. রেজাউল হকে সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী মো. তোফাজ্জল হোসন বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.