জেএসসি পরীক্ষার্থীকে হত্যা : গ্রেপ্তারদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

প্রাইভেট পড়ে আসার পথে জেএসসি পরীক্ষার্থী প্রিয়াংকাকে অপহরণ করে ধর্ষণের পর জবাই করে হত্যা করেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার শহিদুল্লাহ ডাকাত, হাসান ও উদরুতউল্লাহ স্বীকার করেছেন। অন্য একটি স্থানে হত্যার ঘটনা ঘটিয়ে বরাব কবরস্থান এলাকার দুই বাড়ির সীমানা প্রাচীরের ড্রেনে লাশ ফেলে রাখা হয়।

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন, রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন।

নিহত প্রিয়াংকা উপজেলার বরাব এলাকার ওষুধ ব্যবসায়ী মহিউদ্দিনের মেয়ে।

প্রিয়াংকা স্থানীয় হাজী আয়েত আলী ভুইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

ওসি ইসমাইল হোসেন জানান, এ হত্যাকাণ্ড ঘটনা ঘটিয়েছে চারজন। চারজনের মধ্যে শহিদুল্লাহ ডাকাত, হাসান ও উদরুতউল্লাহকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সুজন নামে আরো একজন পলাতক রয়েছে।

গ্রেপ্তার শহিদুল্লাহ ডাকাত ও হাসানের বাড়ি বরাব এলাকায় এবং উদরুতউল্লাহর বাড়ি খাদুন এলাকায়। বর্তমানে তারা পুলিশি রিমান্ডে রয়েছে। রিমান্ড শেষে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির জন্য নারায়ণগঞ্জ আদালতে নেয়া হবে।

এর আগে, প্রিয়াংকার পরিবারের অভিযোগে মাসুম মিয়া নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়। মাসুম মিয়া এ হত্যার সঙ্গে জড়িত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

বাবা মহিউদ্দিন, মা নাছিমা, বোন আমেনাসহ পরিবারের সদস্যরা জানান, তাদের ইচ্ছে ছিল প্রিয়াংকাকে উচ্চ লেখাপড়া করিয়ে একজন বিশেষজ্ঞ ডা. হিসেবে গড়ে তোলার। সেই ইচ্ছা আর পূরণ হলো না।

পরিবারের সদস্যদের দাবি, যারা প্রিয়াংকাকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে, তাদের অবিলম্বে ফাঁসি দিতে হবে। তাহলেই প্রিয়াংকার আত্মা শান্তি পাবে।

হাজী আয়েত আলী ভুইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বলেন, প্রিয়াংকা একজন ভালো ছাত্রী ছিল। সকল শিক্ষার্থীর সঙ্গে প্রিয়াংকা লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও ব্যস্ত সময় পার করত। নরপিচাশের মতো যারা এ ধরনের কাজ করেছে, তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, শহিদুল্লাহসহ তার লোকজন এলাকায় হত্যা, অপহরণ, ধর্ষণ, অস্ত্র, নারী নির্যাতন, মাদকসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করে আসছে। তাদের ভয়ে এলাকার কেউ টু-শব্দটিও করতে পারে না। এছাড়া শহিদুল্লাহ ডাকাতের বিরুদ্ধে রূপগঞ্জসহ বিভিন্ন থানায় ডজনখানেক মামলা রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৫ নভেম্বর সকালে বরাব কবরস্থান এলাকার দুই বাড়ির সীমানা প্রাচীরের পানির ড্রেনে জেএসসি পরীক্ষার্থী প্রিয়াংকার জবাই করা লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় প্রিয়াংকার বাবা মহিউদ্দিন বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.