চৌদ্দগ্রামে সবজি বিক্রেতাকে বিবস্ত্র করে শারিরীক নির্যাতন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জয়নাল আবেদীণ নামের এক সবজি বিক্রেতাকে বিবস্ত্র করে শারিরিক নির্যাতনের চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে। নির্যাতনের সময় সম্পূর্ণ উলঙ্গ অবস্থার বেশ কয়েকটি ভিডিও ক্লিপও তৈরি করেছে এলাকার চিহ্নিত বখাটে হিসেবে পরিচিত কিশোর গ্যাং নাজমুল শাকিল গ্রুপ। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও ক্ষোভের সৃষ্টি করেছে সাধারন মানুষের মনে। থানা সূত্রে এ ঘটনায় শাকিল নামে একজনকে আটক করা হয়েছে এবং মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানা যায়।
জানা যায়, ২৭ মার্চ রাত আনুমানিক সাড়ে বারটার সময় সবজি বিক্রেতা জয়নাল আবেদীনকে বাড়ি থেকে মোবাইলে কল এর মাধ্যমে ডাক দিয়ে বাড়ির পাশের খোলা ময়দানে চোখ বেঁধে নিয়ে গিয়ে বিবস্ত্র করে শারীরিক নির্যাতন করেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগীর নাম মো.জয়নাল আবেদীন। সে মাসকরা গ্রামের মো.আবদুল গণির বড় ছেলে। সে পেশায় একজন সবজি বিক্রেতা। স্থানীয় বাজার গুলোতে সবজি বিক্রি করেই সংসার চালাতো। স্থানীয় ও ভূক্তভোগীর পরিবার আরো সূত্রে জানা যায়, ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে কিশোর গ্যাং নাজমুল-শাকিল গ্রুপ। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, নাম প্রকাশ না করার শর্তে একতা বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, নাজমুল-শাকিল গ্রুপ বহুদিন ধরেই বিভিন্ন অপরাধের সাথে যুক্ত। এলাকায় চুরি-ছিনতাই সহ নানা অপরাধ করে বুক ফুলিয়ে চলাফেরা করতো তারা। এদের পেছনে কিছু অসাধু লোকের ছায়া রয়েছে তাই কেউ ভয়ে মুখ খুলছে না। একারণেই তারা বিভিন্ন সময়ে নানা অপরাধ করেও পার পেয়ে যাচ্ছে। এরা চিহিৃত অপরাধি। জয়নালের মত একজন সাধারণ ব্যবসায়ীকে অপহরণ করে নির্যাতনের ঘটনায় এলাকাবাসী আতঙ্কিত ও শঙ্কিত। সকলের নিরাপত্তার কথা ভেবে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী এঘটনায় প্রকৃত অপরাধীদের খুঁজে বের করে উপযুক্ত সাজা দিবে এটাই এখন এলাকাবাসীর প্রত্যাশা। জানা যায়, ঘটনার মূল হোতা নাজমুল উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের চাঁন্দকরা গ্রামের বিলায়েত হোসেনের ছেলে, শাকিল উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নের মাসকরা গ্রামের সিরাজ মিয়ার ছেলে এবং সাগর একই গ্রামের পেয়ার আহমদের ছেলে। এছাড়াও তাদের সাথে আরো অজ্ঞাতনামা দশ-বারো জন কিশোর ছিলো। জয়নাল আবেদীন এর বাবার সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি বলেন, আমার ছেলের সাথে কারো কোনো শত্রুতা নেই। ঘটনার দিন প্রতিদিনকার মতই সে স্থানীয় একতা বাজার থেকে সবজি বিক্রি শেষে বাড়িতে ফিরে। তখন প্রায় রাত সাড়ে এগারটা। বাড়িতে এসে রাতের খাবার শেষে ঘুমাতে যায় সে। কিছুক্ষণ পর দেখি বাড়ীর মেইন গেট খুলে সে বাহিরে যাচ্ছে। বিষয়টি আমার নজরে এলে তাকে জিজ্ঞেস করি এত রাতে কোথায় যাস? তখন সে উত্তর দেয়, পাশ্ববর্তী বাড়ীর শাকিল আমাকে মোবাইলে কল দিয়েছে। কি একটা বিপদে আছে, তাই একটু বাহিরে যাচ্ছি, এইতো দেখা করেই ফিরে আসছি। আমাকে এই কথা বলতে বলতেই সে বাহিরে চলে যায়। দীর্ঘক্ষণ ধরে বাড়ি ফিরছেনা দেখে এবং মোবাইলে কল দিয়েও কোনো সাড়া না পেয়ে আমি গেটের বাহিরে যাই এবং তাকে দেখতে না পেয়ে টর্চ হাতে রাস্তার দিকে খোঁজাখুঁজি শুরু করি। এমতাবস্থায় বাড়ীর পাশের ধান ক্ষেতের দিক থেকে চিৎকার এর আওয়াজ শুনে ছুটে গিয়ে দেখি আমার ছেলেকে নাজমুল, শাকিল, সাগরের নেতৃত্বে কতগুলো ছেলে মোটা কাপড় দিয়ে চোখ বেঁধে বিবস্ত্র করে বেদম প্রহার করছে। আমি বাধা দিলে তারা আমাকেও লাঠি দিয়ে আঘাত করে এবং এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এমতাবস্থায় আমিও চিৎকার দেওয়া শুরু করলে এলাকাবাসীর আগমনে ঘটনাস্থল থেকে সন্ত্রাসীরা দ্রুত পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে আমার ছেলেকে মারাত্মক আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ভর্তি দেন। পরদিন সকালে রোগির অবস্থা আশংকাজনক দেখলে রোগিকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাই। এখন পর্যন্ত সে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন রয়েছে। ডাক্তাররা বলছে তার শারীরিক অবস্থা ভালো না, তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যেতে হবে। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, শারীরিক নির্যাতনের মাত্রা এতটা তীব্র ছিল যে, শেষ পর্যন্ত তার পুরুষাঙ্গ অকেজোও হয়ে যেতে পারে। তার পুরুষাঙ্গে নির্মমভাবে বাঁশের কঞ্চি বা এ জাতীয় কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। সেখানে মারত্মক আঘাতের চিহৃ রয়েছে। এঘটনায় জয়নালের বাবা আবদুল গণি বাদী হয়ে ২৮ মার্চ মঙ্গলবার বিকালে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি অপহরণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল ফয়সল জানান, এ ঘটনায় শাকিল নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.