চৌদ্দগ্রামে প্রতিহিংসার শিকার হয়ে ১টি পরিবারের মানবেতর জীবনযাপন

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ প্রতিবেশী কর্তৃক সরকারীভাবে নির্দিষ্ট পানি প্রবাহের রাস্তা বন্ধ করে দেওয়ায় কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে দীর্ঘ ৫ বছর ধরে পানিবন্ধী হয়ে একটি পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছে। পানি চলাচলের রাস্তাটি বন্ধ করে দেওয়ায় ভুক্তভোগী উপজেলার মুন্সিরহাট ইউনিয়নের বসন্তপুর গ্রামের মো ঃ বাবুল মিয়ার পরিবার বর্তমানে একঘরে হয়ে আছে। একদিকে দীর্ঘদিনের জমে থাকা পানি, যা ঘরের মেঝে পর্যন্ত বিদ্যমান আর অন্যদিকে রান্নাঘরের একেবারে পাশ ঘেঁষে প্রতিপক্ষের টয়লেট। জমে থাকা পানি ও রান্নাঘরের সাথেই লাগানো টয়লেটের দুর্গন্ধে বাবুল মিয়ার ঘরে মেহমানতো দুরের কথা প্রতিবেশীরাও আসতে চায় না। রান্নাঘরের সাথে টয়লেট বসানোয় দুর্গন্ধে কোনভাবেই রান্নাঘরে প্রবেশ করা যায় না। রান্নার কাজ না করায় দীর্ঘদিন ধরেই রান্নাঘরটিও পরিত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে।
সরেজমিনে পরিদর্শনে গেলে সাবেক ইউপি সদস্যসহ স্থানীয়রা জানায়, একই বাড়ীর প্রতিবেশী প্রতিপক্ষ আব্দুল কুদ্দুছের স্ত্রী জেবুন্নাহার বেগম (৪০) গ্রামে ঝগড়াটে মহিলা হিসেবে সুখ্যাত। যার কারণে স্থানীয় শালিশের রায়, ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক নির্দেশনা কোনটারই তোয়াক্কা করছে না রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া প্রতিবেশী জেবুন্নাহার বেগম। তাই স্থানীয়রা কিংবা সমাজের লোকজনও ভয়ে জেবুন্নাহারের এহেন কর্মকান্ডের সরাসরি প্রতিবাদ করতে সাহস পায় না। এদিকে জেবুন্নাহারের বিরুদ্ধে চলতি ডিসেম্বরের ১ ও ৪ তারিখে আরেক প্রতিবেশী মো ঃ আব্দুল মমিন ও জফুরা বেগমের দেওয়া অভিযোগ ও সাধারন ডায়েরির ভিত্তিতে জেবুন্নাহারকে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ আটক করে। এসময় জেবুন্নাহার পুলিশের হাত থেকে ছিটকে গিয়ে পানিতে ঝাঁপ দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। স্থানীয়রা আরও জানায়, ২ ছেলে ও ২ মেয়ে নিয়ে ভুক্তভোগী বাবুল মিয়ার পরিবারের ও স্থানীয়দের দেওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে পানি প্রবাহের রাস্তার বন্ধ অংশ খুলে দেওয়ার জন্য গত ২০১৬ সালের শেষ সময় বর্তমান ইউপি মেম্বার মাহফুজ আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেন। এ সময় তিনি দ্রুততর সময়ে এটি খুলে দেওয়ার জন্য বলেন কিন্তু আজ অবধিও তা অন্যায়ভাবে দখলে রেখে পানি যাওয়ার রাস্তা বন্ধ রেখেছে জেবুন্নাহার বেগম।
বাবুল মিয়া ও তার স্ত্রী মাঞ্জুমা বেগম জানান, শুধু পানি বন্ধ কিংবা টয়লেট নির্মাণ করেই ক্ষ্যান্ত হয়নি জেবুন্নাহার। তাদের বসতঘরের নিচ থেকেও অন্যায়ভাবে মাটি সরিয়ে ফেলেছে জেবুন্নাহার। এতে করে যে কোন সময় বসতঘরটিও ভেঙ্গে পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। তারা আরও জানান, ঝগড়াটে স্বভাবের কারণে মুলত সমাজের কেউ তার এসব অন্যায় কাজের প্রতিবাদ করার সাহস দেখায় না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.