চৌদ্দগ্রামে কবিরাজের হাতে ধর্ষনের শিকার প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) সংবাদদাতাঃ চৌদ্দগ্রামে কবিরাজ কর্তৃক ৭ বছর বয়সী প্রথম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষনের ঘটনা ঘটেছে। এসময় স্থানীয়রা ধর্ষককে আটক করে পুলিশে খবর দিলে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ ধর্ষনের অভিযোগে আটক মমতাজ উদ্দিন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মুন্সিরহাট ইউনিয়নের মেষতলী গ্রামে। বর্তমানে কবিরাজ মমতাজ থানা হেফাজতে রয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে এবং ভুক্তভোগীর পিতার দেওয়া তথ্যে জানা যায়, বরুড়ার সুধরা এলাকার মমতাজ উদ্দিন (৬০) দীর্ঘদিন ধরেই মুন্সিরহাট মেষতলী গ্রামে ভাড়া বাড়িতে বসবাস করে। সে মুন্সিরহাট এলাকায় ভ্রাম্যমান কবিরাজ হিসেবে কাজ করে। ঘটনার দিন গত বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে মেষতলী গ্রামের অটোচালকের শিশুকন্যাকে খেলার ছলে ঘরে নিয়ে যায় কবিরাজ। কিছুক্ষন পরে মেয়েটি কান্নারত অবস্থায় ১০ টাকার একটি নোট হাতে বেড়িয়ে পড়ে কবিরাজের ঘর থেকে। মেয়েটির কান্না দেখে এক প্রতিবেশীসহ মেয়ের মা রহিমা বেগম (ছদ্মনাম) মেয়েকে কান্নার কারণ জানতে চান। মেয়েটি কান্নারত অবস্থাতেই ব্যথাকে কাতর হয়ে বাথরুমে চলে যায়। বাধরুম থেকে বের হয়ে মেয়েটি কবিরাজ মমতাজ তাকে নির্যাতন করার ঘটনাটি জানায়।
ঘটনার পর পরই থানায় থাকা মেয়েটির মাতা আরও জানায়, কবিরাজ শিশুটির উপর নির্যাতন চালিয়ে তার হাতে ১০ টাকার একটি নোট ধরিয়ে দেয়। ঘটনায় তাৎক্ষনিক কবিরাজ ধর্ষণের বিষয়টি অস্বীকার করলেও পরে বাড়ীর কেয়াটেকারের নিকট ধর্ষণের বিষয়টি স্বীকার করে। এসময় স্থানীয়রা সাথে সাথেই ধর্ষককে একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে। পরে খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ ধর্ষক মমতাজকে আটক করে নিয়ে আসে।
এ বিষয়ে মুন্সিরহাট ইউপি চেয়ারম্যান মাহফুজ আলম জানান, ধর্ষনের ঘটনাটি শুনতে পেয়ে সাথে সাথেই বিষয়টি চৌদ্দগ্রাম থানা কতৃপক্ষকে অবহিত করি। বর্তমানে ধর্ষক থানা হেফাজতে রয়েছে বলেও জানতে পেরেছি।
চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই মোজাহের জানান, অভিযুক্ত কবিরাজকে আটক করে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!