চীনে ভূমিধসে ১৪০ জনের চাপা পড়ার আশঙ্কা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় সিচুয়ান প্রদেশের একটি গ্রামে শনিবার ভোরে ভূমিধসের ঘটনায় কমপক্ষে ১৪০ জন মাটিচাপা পড়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। স্থানীয় কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, সেখানে জরুরি উদ্ধার তৎপরতা শুরু হয়েছে। শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ৬টা নাগাদ এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে সিচুয়ানের জিংমো গ্রামে। তবে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করছে স্থানীয় প্রশাসন।
মাওক্সিয়ান সরকারের নিউজ অফিস এক বিবৃতিতে জানায়, একটি পাহাড়ের এক পাশ ধসে পড়ে জিনমো গ্রামের প্রায় ৪০টি বাড়িঘর চাপা পড়েছে। এতে নদী তীরবর্তী বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। শুধু তাই নয়, গ্রামের মধ্যে দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর ২ কিলোমিটার এলাকা চাপা পড়ে গিয়েছে বোল্ডারে।
পর্যটন কেন্দ্রের জন্য বিখ্যাত চিনের এই পাহাড় ঘেরা গ্রামটি। গ্রামে ভিতরেও পর্যটকদের জন্য বেশ কিছু হোটেল রয়েছে। দুর্ঘটনার সময় গ্রামের বেশির ভাগ মানুষই ঘুমিয়ে ছিলেন। বেশ কয়েক দিন ধরে ওই এলাকায় ভারী বৃষ্টি হচ্ছিল। জারি ছিল ধসের সতর্কবার্তাও।
পাহাড়ে আটকে পড়াদের উদ্ধারে তৎপরতা চালাচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। পিপলস ডেইলির ছবিতে দেখা যাচ্ছে, বুলডোজার দিয়ে উদ্ধার তৎপরতা চালানো হচ্ছে।
স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিপাতের কারণে এই ভূমিধস হয়েছে। ঘটনাস্থলে রয়েছে কয়েক হাজার টন পাথরের টুকরো।
শনিবার থেকে ওই সড়কে শুধুমাত্র জরুরি সেবা ছাড়া সকল যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
চীনের পাহাড়ি এলাকাগুলোর ভূমিধস একটি নিয়মিত ঘটনা হেয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে বৃষ্টি হলে এই প্রবণতা আরো বাড়ে।
প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ওই গ্রামে সব মিলিয়ে লক্ষাধিক মানুষ থাকতেন। তবে পর্যটনের মৌসুম না হওয়ায় হোটেলগুলো প্রায় ফাঁকা ছিল। পুলিশ এবং উদ্ধারকারী দলের সঙ্গে গ্রামের লোকেরাও উদ্ধারকাজে হাত লাগিয়েছেন। ক্রেন দিয়ে বোল্ডার সরানোর কাজ চলছে। উদ্ধারকারীদের প্রাথমিক অনুমান, অন্তত ১৪০ জন চাপা পড়ে রয়েছেন বোল্ডারের নীচে। তবে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলেই আশঙ্কা করছেন তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!