চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে কুমিল্লার বিহারি পল্লীর বাসিন্দারা

কুমিল্লা প্রতিনিধি:কুমিল্লা নগরীর তিনটি বিহারি পল্লীর বাসিন্দারা চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন।
নগরীর রাণীর বাজার এলাকার নুনাবাদ কলোনি, ডিসি কার্যালয় সংলগ্ন মফিজাবাদ কলোনি এবং হাউজিং এলাকাসহ তিনটি ক্যাম্পে প্রায় দেশ শতাধিক বিহারি পরিবার রয়েছে। জলাবদ্ধতা, পানি নিষ্কাশন ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকা, প্রয়োজনের তুলনায় কম নিম্নমানের শৌচাগার এবং সীমাহীন মশার উপদ্রবে এসব পরিবারের সদস্যদের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, একটি কামরার ভেতরে রান্না, খাওয়া, ঘুম। সেখানেই ঠাসাঠাসি করে রাখা প্রয়োজনীয় আসবাবপত্র। প্রায় সব ঘরেই একই চিত্র। এ ছাড়া একই গোসলখানায় একাধিক নারী কিংবা একাধিক পুরুষকে গোসল করতে দেখা গেছে।
নুনাবাদ কলোনির ক্যাম্পে ৪৫ থেকে ৫০টি বিহারি পরিবার রয়েছে। এই ক্যাম্পটি সড়ক থেকে নিচু স্থানে হওয়ায় বৃষ্টির পানি জমে সরু গলিগুলোর ভেতর ময়লা ও দুর্গন্ধময় পরিবেশ সৃষ্টি হয়। তাছাড়া ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় নুনাবাদ কলোনি পুকুরের ময়লা পানি এবং বৃষ্টির পানি জমে ক্যাম্পে এক ধরনের জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। অতিরিক্ত বৃষ্টি হলে বসত ঘরসহ ক্যাম্পটি হাঁটু পানিতে তলিয়ে যায়। নষ্ট হয়ে পড়ে শৌচাগার, গোসলখানা এবং খাওয়ার পানির ব্যবস্থা। সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েন এখানে বসবাসকারী মানুষগুলো। এদিকে ময়লা ও দুর্গন্ধময় পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ায় ক্যাম্পটিতে বেড়েছে মশার উপদ্রব। মশার উৎপাতে জ্বর, এলার্জি এবং চর্মরোগসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়েছেন ক্যাম্পের বাসিন্দারা।
তাদের অভিযোগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং সিটি কর্পোরেশন কোনো খোঁজ খবর রাখেন না। জলাবদ্ধতা সৃষ্টি এবং ময়লা ময়লা ও দুর্গন্ধময় পরিবেশ থেকে বাঁচতে তারা একাধিকবার সিটি কর্পোরেশনের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও সমাধান পায়নি। ক্যাম্পে মশার উপদ্রবের কথা স্থানীয় কাউন্সিলরকে জানানো হলেও মশা নিধনে তিনি কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।
মুন্নি বেগম নামে এক বিহারী নারী জানান, তার শ্বশুর মো. ইসলাম কুমিল্লা সেনানিবাসে চাকরি করতেন। ভারত পাকিস্তান ভাগের সময় শ্বশুর ইসলাম মারা যান। পরবর্তীতে বাংলাদেশ সরকার তাদেরকে এখানে থাকতে জায়গাটুকু দেয়। ৬০-৬৫ বছর অতিক্রম করলেও তাদের জীবনের কোনো পরিবর্তন ঘটেনি। ক্যাম্পটিতে আগে পানি জমে থাকতো না। দুই বছর আগে নুনাবাদ পুকুরের পশ্চিম পাশ এবং বিসিকের সড়কগুলো উঁচু করায় ক্যাম্পটি নিচে পড়ে যায়। যার কারণে বর্তমানে সারা বছরই বসত ঘরের চারপাশ এবং প্রবেশ পথগুলো কাদা-পানিতে মাখামাখি হয়ে থাকে।
সোহেলা আফরুজ এবং তার স্বামী নূর আলম জানান, সামান্য বৃষ্টি হলেই তাদের বসত ঘরসহ পুরো ক্যাম্প পানিতে ডুবে যায়। ছেলে,মেয়ে এবং পরিবারের লোকজন নিয়ে দুর্ভোগে পড়তে হয়। এছাড়াও বন্ধ হয়ে পড়ে শৌচাগার, গোসলখানা এবং চলাচল ব্যবস্থাও।
আবিদ হোসেন নামে আরো এক বিহারী জানান, তাদের এই দুর্ভোগ কারো চোখে পড়ে না। ক্যাম্প থেকে পানি নিষ্কাশনের জন্য নেই কোনো ড্রেনেজ ব্যবস্থা। এখন স্থানীয়রা ড্রেনের উপর ঘর বাড়ি নির্মাণ করায় ক্যাম্পে পানি জমে থাকে সারা বছর।
এদিকে মফিজাবাদ কলোনি এবং হাউজিংয়ের বিহারি ক্যাম্পগুলোর একই দশা। মফিজাবাদ কলোনির এক বিহারি বাসিন্দা বলেন- স্বামী, ছেলে, ছেলে-বউ, মেয়ে, নাতি নিয়ে একই ঘরে থাকি। লজ্জাজনক হলেও তবু এভাবেই থাকতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। এখানে যে পরিমাণ মানুষ বাস করে তার বিপরীতে শৌচাগার অনেক কম। বেশি সমস্যায় রয়েছে নারীরা। সকালে কিংবা রাতে যখন লোকজনের তাড়াহুড়ো থাকে তখন শৌচাগারের সামনে লম্বা লাইন পড়ে যায়। এই ক্যাম্পেও ৬৫-৭০ বিহারি বসতি রয়েছে। ক্যাম্পের বাসিন্দাদের চিকিৎসা, পয়ঃনিষ্কাশন ও গ্যাসের মতো নাগরিক সেবার অবস্থা অত্যন্ত নাজুক।
বিহারী ক্যাম্পগুলোতে মশার উৎপাত এবং নানা সমস্যা সমাধানের বিষয়ে জানাতে চাইলে কুমিল্লার সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অনুপম বড়ুয়া বলেন, ডেঙ্গু রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখতে এডিস মশার প্রজনন স্থান ধ্বংস করতে গিয়ে কুমিল্লার নগর-মহানগরের প্রত্যেকটি স্থানে মশক নিধন অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এই কার্যক্রম থেকে বাদ যায়নি কুমিল্লার বিহারি কলোনিগুলোও। আমরা এখনো সর্বাত্মক চেষ্টা করে যাচ্ছি এই কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে। বিহারি ক্যাম্পগুলো ঘনবসতিপূর্ণ। এখানে নানা সমস্যা থাকতে পারে, তারপরও সমস্যাগুলো সমাধানের চেষ্টা করবো।