গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় মন্দিরের নামে জমি দখলের চেষ্টা

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় মামলায় হেরে যাওয়ার ভয়ে ইস্কন মন্দিরের নাম ব্যবহার করে বিরোধীয় জমি দখলে রাখার চেষ্টা, বাধা দেওয়ায় পুলিশ প্রতিপক্ষের রোশানলে পড়েছে বলে পুলিশের পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সাধারন জনগন উদ্বেগ উৎকন্ঠা প্রকাশ করছেন।
দীর্ঘ দিন ধরে কোটালীপাড়া থানার সাথে স্থানীয় কয়েক জনের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধী থাকায় আদালতে মামলা চলছে এরই মধ্যে চিত্ত রঞ্জন বাড়ৈ মামলায় হেরে যাবার ভয়ে ইস্কন মন্দিরের নাম ব্যবহার করে সেখানে মূর্তির আকৃতি স্থাপন ও নির্মান কাজ করে জমি দখলে রাখার চেষ্টা করছেন খবর পেয়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে পুলিশ যখন বাধা প্রদান করে তখনই কতিপয় স্বার্থান্বেষী মহল সাম্প্রদায়িক বিষয়টিকে সামনে এনে অপপ্রচার করে প্রতিপক্ষ পুলিশকে প্রতিহত করার চেষ্টা করছে ফলে শান্তিকামী সাধারন মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে। কোটালীপাড়া থানা সূত্রে জানা গেছে ১৯১৯ সালে বৃটিশ সরকার বাংলা প্রদেশের পক্ষে ফরিদপুর পুলিশ বিভাগের কোটালীপাড়া থানার নামে ৪ একর ৭ শতাংশ জমি বরাদ্দ দেয় এবং ৪.৭ একর জমি আরএস,এস এ রেকর্ড এবং বি আর এস রেকর্ড সহ ২০১৬/২০১৭ অর্থ বছরের খাজনা কোটালীপাড়া থানার নামে পরিশোধ করা হয়। পরবর্তীতে কতিপয় স্বার্থান্বেষী লোক ভূয়া কাগজপত্র তৈরি করে চিত্ত রঞ্জন বাড়ৈ ও তার স্ত্রী মঞ্জু রানীর নিকট বিক্রি করে।
এদিকে গাজী কবিরুল ইসলাম, হেমায়েত উদ্দিন ও চিত্ত রঞ্জন বাড়ৈ গংয়েরা ভূয়া কাগজ পত্র সৃজন করে থানার জমি আত্মসাৎ এর চেষ্টার অপরাধে গত ০৬/০১/২০০৯ সালে তৎকালিন ওসি আবুল কাসেম বাদী হয়ে হেমায়েত উদ্দিন গাজী কবিরুল ইসলাম ও চিত্ত রঞ্জন বাড়ৈ গংয়েদের বিরুদ্ধে কোটালীপাড়া থানায় একটি জাল-জালিয়াতির মামলা করেন। সি আই ডি মামলাটি তদন্ত শেষে আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদলতে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে।
এছাড়াও চিত্ত রঞ্জন গংয়েরা কোটালীপাড়া থানার ওসি, এসপি ও ডি সি কে বিবাদী করে আদালতে পৃথক পৃথক ২টি মামলা করেন। মামলা দুটির মধ্যে গাজী কবিরুল ইসলাম গং দের ৬৮/২০০৮ নং দেঃ মামলার রায় পুলিশ বিভাগের পক্ষে গেলে কবিরুল গংয়েরা উচ্চ আদালতে আপিল করেন ও চিত্ত রঞ্জন গংদের ৬৯/২০০৮নং মামলার রায় পুলিশ বিভাগের বিপক্ষে গেলে পুলিশ উচ্চ আদালতে আপিল করেন। যা বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে।
বিচারাধীন মামলার জমিতে বিজ্ঞ আদালতের অনুমতি ছাড়া ক্রয়-বিক্রয়, দান, কোন স্থাপনা তৈরি বা মেরামত করার বিধান না থাকলেও আদালতের রায়ে হেরে যাওয়ার ভয়ে চিত্ত রঞ্জন বাড়ৈ আইনের কোন তোয়াক্কা না করে গোপনে রাতের অন্ধকারে বিরোধীয় তফসিল ভূমিতে থানা বাউন্ডারীর ভিতরে থাকা পুরাতন ভবনে টাইলস ও মূর্তি স্থাপনের চেষ্টা করে এবং ইস্কন মন্দিরের নাম ব্যবহার করে সাম্প্রদায়িক বিষয়টি সামনে নিয়ে আসে। এ সময় কোটালীপাড়া থানার ওসি মোহাম্মাদ কামরুল ফারুক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে বাধা প্রদান করে ২ জন নির্মান শ্রমিককে থানায় নিয়ে আসে এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ওসি কামরুল ফারুকের বিরুদ্ধে ধর্মীয় বিষয়টিকে পুঁজি করে ঘায়েল করার চেষ্টা করে।
এ নিয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র জয়ধর, চক্রধর মন্ডল, চিত্ত রঞ্জন বাড়ৈ, রমেশ বাড়ৈ, নিত্যানন্দ সাহা, মানিক লাল সাহা, পিংকু সাহা, গৌরঙ্গ সাহা, বিকাশ মেম্বর, অশোক কর্মকার, তুষার গাইন, সুশীল, সাগর বিশ্বাস ও অন্যান্য হিন্দু নেতারা দফায় দফায় বৈঠক করেছেন। ওই বৈঠকে চিত্তরঞ্জন বাড়ৈ অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ অন্যায়ভাবে আমাদের কাজে বাধা দিয়েছে। অধ্যক্ষ সর্বানন্দ বালা বলেন, “মঙ্গলবার সন্ধার আগে আমি মন্দিরে যাই সেখানে গিয়ে দেখি ওসি ও অন্যান্য পুলিশ সদস্যরা ছবি তুলতেছে কোন এক পুলিশ আমার ফোনটি নিয়ে সুইচ অফ করে দেয়”। প্রত্যক্ষদর্শী রীনা হালদার বলেন, “ওসি এখানকার লোকজন দেখে গালি-গালাজ করেছে”।
কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এ্যাডভোকেট সুভাষ জয়ধর বলেন, মামলা চলাকালীন অবস্থায় কোন সম্পত্তি হস্তান্তর আইনানুগ নহে তফসিল ভুক্ত জমি নিয়ে যুগ্ম জজ আদালত ও ফৌজদারী আদালতে মামলা রয়েছে।
কোটালীপড়া থানার ওসি মোহাম্মাদ কামরুল ফারুক বলেন, উচ্চ আদালতে বিচারাধীন মামলা থাকা অবস্থায় কোন পক্ষই বিরোধীয় জমিতে কাজ করতে পারবে না কিন্তু চিত্ত রঞ্জন বাড়ৈ আইন কানুনের কোন তোয়াক্কা না করে উক্ত জমিতে কাজ করছিল এমন সংবাদ পেয়ে শেখানে গিয়ে আমি তাদেরকে বাধা দেই। তাদের স্বার্থের ব্যাঘাত ঘটায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.