1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বাস চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত সাধারণ মানুষের বেসরকারি হাসপাতালের সেবামূল্য সরকার নির্ধারণ করবে….স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশ যত অর্জন সব আওয়ামী লীগের হাতেই: ড. হাছান মাহমুদ কাল থেকে ৬ জেলায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ জাটকা সংরক্ষণে খাসোগি ইস্যুতে ৭৬ সৌদি নাগরিকের ভিসা নিষেধাজ্ঞা যুক্তরাষ্ট্রের ঢাকা-ওয়াশিংটন জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করবে ‘প্রবীণদের জীবনমান উন্নয়নে সামাজিক নিরাপত্তার পরিধি বাড়ানো হয়েছে’ জিয়ার অবদান অস্বীকার করা মানে স্বাধীনতাকেই অস্বীকার করা….মির্জা ফখরুল বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে বড় পতন, ৮ মাসে সর্বনিম্ন বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে আসছে প্রধানমন্ত্রী

কুমিল্লা মনের আলোয় প্রতিকূলতা জয়

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৭
  • ২৫ বার পড়া হয়েছে

কুমিল্লা আদালতের অ্যাডভোকেট সুলতান আহমেদ, নওয়াব ফয়জুন্নেছা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক সৈয়দ মোশারফ হোসেন চৌধুরী এবং রুপালী ব্যাংক কুমিল্লা আঞ্চলিক অফিসের কর্মকর্তা আবু নাঈম মামুন। তারা অন্য সবার মতো পৃথিবী দেখতে পান না। চলতে সাহায্যের প্রয়োজন হয় অন্য মানুষের। কিন্তু এই দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী মানুষ গুলো আজ নিজের পায়ে দাঁড়িয়েছেন। বোঝা না হয়ে পরিবারকেও সহযোগিতা করছেন।
এক.
দৃষ্টি প্রতিবন্ধী অ্যাডভোকেট সুলতান আহমেদ সহকারী নিয়ে বিচারকের কক্ষের দিকে ছুটছেন। তার চলাফেরা এতো সাবলীল- কাছে না গেলে বুঝা যাবে না তিনি দৃষ্টি প্রতিবন্ধী।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন সময়ে নিজের পছন্দে বিয়ে করেছেন। স্বামী-স্ত্রী দুইজনেই দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী। দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সুলতান আহমেদ ৭মাস বয়সে টাইফয়েডে হারিয়েছেন দৃষ্টি শক্তি। দরিদ্র কৃষক বাবার পক্ষে তার চিকিৎসা করা হয়ে উঠেনি। যে শিশুটির পরিবারের বোঝা হয়ে বেড়ে উঠার কথা, সে আজ পরিবারের ভরসাস্থল। একই কারণে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হয় তার স্ত্রী কোহিনূর বেগম।
সুলতান আহমেদ কুমিল্লা সদও উপজেলার অরণ্যপুর গ্রামে ১৯৭৫ সালের পয়লা আগস্ট জন্ম গ্রহণ করেন। সুরুজমিয়া ও আনোয়ারা বেগমের ৫ ছেলে ৩ মেয়ের মধ্যে তিনি ৩য়।
১৯৯০ সালে সুলতান কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুল থেকে প্রথম বিভাগে এসএসসি পাশ করেন। ১৯৯২ সালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে প্রথম বিভাগে এইচএসসি পাশ করেন।
১৯৯৭ সালে ঢাকা ইউনিভার্সিটি থেকে মাস্টার্স অব ল‘করেন।
২০০২ সাল থেকে কুমিল্লার আদালতে মামলা পরিচালনা শুরু করেন। কুমিল্লার প্রবীণ আইনজীবী অ্যাডভোকেট সৈয়দ আবদুল্লাহ পিন্টুর জুনিয়র হিসেবে কাজ শুরু করেন। এখন তিনি স্বচ্ছল মানুষ। নিজের পরিবারের খরচ মিটিয়ে বাবা-মায়ের দেখভাল করতে পারেন।
অ্যাডভোকেট সুলতানের সহকর্মী অ্যাডভোকেট স্বর্ণকমল নন্দী পলাশ জানান, তার স্মৃতি শক্তি অনেক ভালো। তিনি একবার মামলার ঘটনা শুনে মুখস্ত উপস্থাপন করতে পারেন।
অ্যাডভোকেট সুলতান বাসাভাড়া থাকেন নগরীর কাপ্তান বাজারে। বাসায় গিয়ে দেখা যায় অ্যাডভোকেট সুলতান কম্পিউটারে কাজ করছেন। তার স্ত্রী কোহিনূর বেগম রান্না করছেন।
কোহিনূর বেগম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইসলামের ইতিহাসে মাস্টার্স করেছেন।
তাদের ২টি ছেলে রয়েছে। বড় ছেলে সাফায়েত আহমেদ এবার এইচএসসি পাশ করেছেন। ছোট ছেলে শাহাদাত আহমেদ পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ে। অন্যান্য গুণের পাশাপাশি হারমোনিয়াম বাজিয়ে গান গাইতে পারেন অ্যাডভোকেট সুলতান ও তার স্ত্রী।
অ্যাডভোকেট সুলতান জানান,তিনি এখন কুমিল্লার আদালতের প্রত্যেকটি কক্ষ চেনেন। সবাই তাকে সম্মান ও স্নেহ করেন। দৃষ্টিহীন হওয়ায় তার কোনো দুঃখ নেই। সৃষ্টিকর্তা তাকে অনেক ভালো রেখেছেন। তিনি আরো জানান,মা-বাবার চেষ্টায় তিনি আজ এ পর্যায়েএসেছেন। তিনি বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ ফরিদা আক্তার নামের এক শিক্ষকের নিকট। যিনি তাকে সব সময় উৎসাহ যুগিয়েছেন। তিনি মনে করেন প্রতিবন্ধী শিশুদেও অভিভাবকরা অবহেলা না কওে গড়ে তুললে তারা হতে পারে সমাজের দায়িত্বশীল মানুষ।

দুই.
কুমিল্লা জেলার মেয়েদের সেরা স্কুল কুমিল্লা নওয়াব ফয়জুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। এ স্কুলের শিক্ষক সৈয়দ মোশারফ হোসেন চৌধুরী। এ স্কুলে অর্ধ শতাধিক শিক্ষক থাকলেও সবার আগ্রহ তাকে ঘিরে। তিনি সবার মতো ক্লাস নিচ্ছেন। শিক্ষক রুমে এসে আড্ডা দিচ্ছেন। সময় মতো স্কুলে আসছেন,ক্লাস নেয়া শেষে আবার ফিওে যাচ্ছেন নগরীর তালপুকুর পাড়ের বাসায়।
স্কুলে গিয়ে দেখা যায়,অন্য শিক্ষকদের সাথে মোশারফ হোসেন কম্পিউটার ল্যাবে লেপটপে কাজ করছেন। আবার ক্লাস নিচ্ছেন শিক্ষার্থীদের। নিকটে যাওয়া ছাড়া বুঝার উপায় নেই তিনি স্বাভাবিক নন। মোশারফ হোসেন ১৯৮৩সালের পয়লা জানুয়ারি কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার পূর্ব আশকামতা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম সৈয়দ হোচ্ছাম হায়দার চৌধুরী,মা ফিরোজা হায়দার ভূইয়া। তিনি ৪ভাই-বোনের মধ্যে তিনি ৩য়।
৪র্থ শ্রেণীতে পড়াকালীন সময়ে ফুটবল খেলতে গিয়ে চোখে আঘাত পান। ধীরে ধীরে তার চোখের আলো হারিয়ে যায়। অপারেশন করেও চোখ রক্ষা করা যায়নি। তার স্মৃতিতেএখনো আটকে আছে তার গ্রাম,স্কুলের খেলার মাঠ। দৃষ্টি শক্তি হারিয়ে যাওয়ার পর তিনি ভর্তি হন কুমিল্লা নগরীর ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুলের সমন্বিত অন্ধ শিক্ষাকার্যক্রমে ৩য় শ্রেণীতে। এ স্কুল থেকে ১৯৯৮সালে এসএসসি ও ২০০০সালে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। লোকপ্রশাসন বিভাগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্সের পর মাস্টার্স সম্পন্ন করেন ২০০৮সালে। ২০১২সালের ১৪জুন তিনি নওয়াব ফয়জুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে যোগদান করেন।
তিনি ২০০৯সালের ৩০জানুয়ারি বিয়ে করেন হাসিনা মজুমদারকে। তার সাড়ে ৭বছরের সৈয়দা তাসনিম চৌধুরী ও ৫বছর বয়সী সৈয়দাআফনান চৌধুরী নামের দুইটি মেয়ে রয়েছে।
সৈয়দ মোশারফ হোসেন চৌধুরীবলেন,অনুকূল পরিবেশ পেলে কোনো প্রতিবন্ধী সমাজের বোঝা হবেনা। তিনি তার এগিয়ে চলার পথে তার পরিবার এবংসমন্বিত অন্ধ শিক্ষা কার্যক্রমের রিসোর্স টিচার ফরিদা আক্তারের অবদানের কথা তুলে ধরেন। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীর কারণে তাকে বিসিএস পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে না দেয়া এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনে চাকুরির সুযোগ দেয়া হয়নি বলেও তিনি অভিযোগ করেন। তিনি সহকর্মী ও শিক্ষার্থী সবার সহযোগিতা পাচ্ছেন।
নওয়াব ফয়জুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার বলেন, সৈয়দ মোশারফ হোসেন চৌধুরী মেধা এবং যোগ্যতা দিয়ে তার প্রতিবন্ধকতা ঘুচিয়ে দিয়েছেন।

তিন.

চোখে দেখেন না,তিনি আবার ব্যাংকে চাকুরি করেন। বিষয়টি অনেকের নিকটই বিস্ময়কর। তিনি আবু নাঈম মামুন। ১৯৮৬সালের পয়লা জানুয়ারি তারজন্ম নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলার কৃষ্ণপুরগ্রামে। বাবা স্কুল শিক্ষক আবদুলমান্নান। মা খাদিজা আক্তার। ৬ভাই ২বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট।
দেড় বছর বয়সে টাইফয়েডে তিনি দৃষ্টি হারান। বাল্যকালে মামুন এলাকার স্কুলে গেলেও তাকে বই দেয়া হয়নি। তিনি কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে চলে আসেন। পওে তার মা তাকে মিরপুওে জাতীয় বিশেষ শিক্ষা কেন্দ্রে ভর্তি করে দেন। এখানে পঞ্চম শ্রেণীপাশের পর তিনি চলেআসেন কুমিল্লায়। এখানে ১৯৯৭সালে ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুলেএসে ভর্তি হন। ২০০২সালে এসএসসি পাশ করেন। ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে এইচএসসিএবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্র বিজ্ঞানে অনার্স মাস্টার্স করেন। ২০১৪ সালে তিনি রুপালী ব্যাংকে যোগদান করেন।
সহকর্মী ও উধর্বতন কর্মকর্তারা প্রথম দিন থেকে সহযোগিতা করায় তিনি কোনো অসুবিধায় পড়েননি বলে জানান। তিনি ফোন করে শাখা অফিসের এস্টেটমেন্ট গুলো সংগ্রহ করেন। তিনি ২০১২সালের ২২মার্চ চাঁদপুরে বিয়ে করেন। স্ত্রী হাজেরা আক্তার। তাদেরএকটি ছেলে সন্তান রয়েছে। নিজের পায়ে দাঁড়াতে পেরে তিনি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করেন।
ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট স্কুলের সমন্বিত অন্ধ শিক্ষাকার্যক্রমের সাবেক রিসোর্স টিচার ফরিদা আক্তার বলেন,প্রতিবন্ধীশিশুদের ভিক্ষাবৃত্তিতে লাগিয়ে করুণার পাত্র না কওে শিক্ষা দিয়ে মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। সুলতান,মোশারফ ও মামুনসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী শিক্ষায় সফলতার পাশাপাশি কর্মজীবনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমি তাদের সাফল্যে আনন্দিত।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!