কুমিল্লায় ভুয়া ডিআইজি আটক

শরীফ আহমেদ মজুমদার,কুমিল্লা ।
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম ভুয়া ডিআইজি সেজে প্রতারণার অভিযোগে ফারুক (৩২) নামের এক যুবককে মহাসড়কের জগন্নাথদিঘী এলাকায় দেশ ট্রাভেলস থেকে আটক করেছে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ। আটককৃত ফারুক পাশ্ববর্তী নাঙ্গলকোট উপজেলার মৌকরা ইউনিয়নের সুরপুর গ্রামের লোকমান হোসেনের ছেলে। বৃহস্পতিবার (১২ এপ্রিল) দুপুরে প্রতারণার মামলায় তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়।
মামলা সূত্রে জানা যায়, ফারুক দীর্ঘদিন ধরেই পুলিশের জিআইজি সেজে গাড়িতে ভিআইপি সীট নেওয়াসহ বিভিন্ন প্রতারণা করে আসছে। আটককৃত ভুয়া ডিআইজি ফারুক বুধবার (১১ এপ্রিল) সকাল আনুমানিক ৮ ঘটিকায় দেশ ট্রাভেলস্ এর আরামবাগ শাখার কাউন্টার ম্যানাজার তোফাজ্জল হোসেন রিপনের ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন করে ডিআইজি পরিচয় দিয়ে তার জন্য দেশ ট্রাভেলস (এসি) এর গাড়িতে একটি সীট রাখার জন্য বলে। ম্যানাজার ডিআইজি পরিচয় পেয়ে দেশ ট্রাভেলস্ এর (ঢাকা-মেট্রো-ব-১৪-৮৯৭৬) গাড়িতে সীটের ব্যবস্থা করে। ১১ই এপ্রিল সকাল ১০ ঘটিকায় ঢাকা থেকে বাসটি ছাড়লে ফারুকের ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন করলে সে দাউদকান্দি টোল প্লাজা থেকে উঠবে বলে জানায় গাড়ির কর্তৃপক্ষকে। কিছু সময় পর গাড়ির ইনচার্জ কবিরুল ইসলাম আবারো ফারুকের ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন করলে সে জানায়, ক্যান্টেনম্যান্ট এলাকায় পুলিশের গোপনীয় কাজে ব্যস্থ আছে। তাই সে ক্যান্টেনম্যান্ট এলাকা থেকে উঠবে বলে জানায়। গাড়িটি ক্যান্টনম্যান্ট এলাকার কাছাকাছি এসে ইনচার্জ আবারো ফোন করলে বলে, সে চৌদ্দগ্রাম এলাকার গ্রীণ ভিউ রেষ্টুরেন্ট থেকে উঠিবে। অত:পর গ্রীনভিউ থেকেও সে না উঠলে কর্তৃপক্ষ আবারো তাকে ফোন করে। সে জানায় তার জন্য গ্রীন ভিউ থেকে একটি ভুনা খিচুরি নিয়ে তাকে যেন উপজেলার জগন্নাথদিঘী এলাকা থেকে উঠানো হয়। এদিকে বারবার স্থান পাল্টানোর কারণে গাড়ির ড্রাইভার ও অন্যদের সন্দেহ হলে তারা বিষয়টি দেশ ট্রাভেলস্ এর উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে। কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে গাড়ির ড্রাইভার ও ইনচার্জকে ডিআইজি ফারুকের পরিচয় নিশ্চিত হয়ে গাড়িতে উঠানোর জন্য নির্দেশ প্রদান করে। অত:পর গাড়িটি চৌদ্দগ্রাম জগন্নাথদিঘী এলাকায় আসলে তার নাম্বারে ফোন করলে সে গাড়িটিতে উঠে পড়ে। এসময় তাকে ডিআইজির পরিচয়পত্র প্রদানের কথা বললে সে বিভিন্ন ছলচাতুরির আশ্রয় নেয় এবং গাড়ির ড্রাইভার ও ইনচার্জকে বিভিন্ন হুমকি প্রদর্শন করে। তখন দেশ ট্রাভেলস কর্তৃপক্ষের সন্দেহ হলে তারা ফারুককে আটক করে চৌদ্দগ্রাম থানায় খবর দেয়। এসময় প্রতারণার খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি অপারেশন এসআই কমল কৃষ্ণের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মহাসড়কের জগন্নাথদিঘী এলাকা থেকে প্রতারণ ফারুককে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।
চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই রেজাউল করিম জানান, বিভিন্ন প্রতারণার ঘটনায় ফারুকের বিরুদ্ধে চৌদ্দগ্রাম থানায় প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!