কুমিল্লায় পাগল মেলার নামে গাজাঁর মেলা, তরুনদের নেশার প্রতি আগ্রহ বাড়াতে এই আয়োজন

কুমিল্লা প্রতিনিধি ॥
কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের ভৈষেরকোট গ্রামে গত ২২ই অক্টোম্বও থেকে শুরু হয়েছে ৯ম বিশ^ পাগল মেলা । এখানে মেলার অন্যতম আর্কশন হলো প্রকাশ্যে মাটির পাত্র দিয়ে এবং সিগারেট এর সাথে মিশিয়ে গাজাঁ সেবন করা। চোলাই মদের সুব্যবস্থা রয়েছে এখানে। পাগলমেলার প্রধান ফটকে চোখ পড়বে ওয়াজ মাহফিলের কিন্তু একটু হেটে পূর্বদিকে গেলেই চোখে পড়বে সু-সজ্জিত পেন্ডল, গান বাজনাসহ অন্যরকম দৃশ্য ।
পাগলেরা দলে দলে আস্তানা ঘরেছে, তার সাথে প্রকাশ্যে গাজাঁ ও মদের জমজমাট আসর। পেন্ডেলে প্রবেশ করতেই একটি অন্যরকম আগরবাতির এবং গাজাঁর ধোয়ার মিশ্রনের সুগন্ধি নাকে আসবে আপনার ।
তবে পাগলের আসরে যারা বসে থাকবে তারা কিন্তু পাগল নয় উচ্চ থেকে নিন্মশ্রেনী এবং কী স্কুল কলেজ পড়–য়া ছাত্ররাও বসে তার আসরে, আর একেক জনের হাত বদলেই অবিরাম চলতে গাজাঁ সেবন ।
মাত্র আধা ঘন্টায় অনুসন্ধানে দেখা গেছে, শতশত তরুন এবং অপ্রাপ্ত বয়সের ছেলেরা তাদের কাছ থেকে বিনামূল্যে কিংবা সামান্য টাকার বিনিময়ে সেবন করছে গাজাঁ নামক সর্বনাশা এই মাদক । অনেক তরুন আবার একটু আড়াল হয়ে সেবন করছে ।
আরাফাত নামে কলেজ পড়–য়া ছাত্রককে প্রশ্ন করলে সে জানায়, আমি আজকে শখের বশে কেবল এটা করেছি, এখানে গাজাঁসেবনের ভাল নিরাপত্তার ব্যবস্থা আছে ।
আরাফাতের মত অনেক তরুনরাই কেবল শখের বশে গাজাঁ সেবন করছে কিন্তু তারা নিজেও জানেনা এভাবে হয়ত মাদক সেবনের সূচনা হয় । তারপর আবার এলাকার প্রভাবশালী নেতার বাড়িতে ।
মেলায় ছবি তোলা নিষিদ্ধ। একজন সাংবাদিক ক্যামেরা খুলে ছবি তুলতে গেলে সাথে সাথে ক্যামেরায় ছিনিয়ে নেয় মেলার এক কর্মী, মেলার কর্মীটি মোবাইল ফোন যোগাযোগ করল মোহনপুর ইউনিয়নের একজন জনপ্রতিনিধির সাথে, তিনিও হাজির কিছুক্ষন পর তিনি বলেন, কোন পত্রিকার সাংবাদিক আপনি? আমরা তো স্থানীয় পত্রিকাগুলোকে বিজ্ঞাপন দেই । বেশ মেনেজ করার অপচেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু বাহিরে দাড়িয়ে থাকা স্থানীয় সাংবাদিকরা এই বিষয়ে কিছুই বলছে না ।
যদি একজন জনপ্রতিনিধির বাড়ীতেই বসে গাজাঁর এই আসর, তাহলে বলা বাহুল্য যে সমাজ কী পরিমানে বিপদগ্রামী হচ্ছে ।
সহজেই বোঝা যায়, এই মেলার আয়োজকরা লোকচক্ষুর সামনেই মাদকের প্রতি আগ্রহ বাড়াচ্ছে তরুনদের ।
সচেতন অভিবাবকরা বলছে, একটা নিদিষ্ট পরিকল্পনা রয়েছে আয়োজকদের মাঝে, তারা সমাজের সকল তরুনদের কে মাদক সেবনে জন্য উদ্যগী করে তুলছে। যদি এই অবস্থা চলতে থাকে তবে কোনভাবেই হয়ত মাদকসেবনে বাধা দিয়ে রাখতে পারব না আমাদের সন্তানদের। মেলা নামে এই গাজাঁর মেলাকে বন্ধ করুন ।
এই বিষয়ে দেবিদ্বার সার্কেল সিনিয়র পুলিশ সুপার সেলিম মোহাম্মদ শেখ জানান, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে ।
সাথে ছবি আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.