কুমিল্লায় নিখোঁজের ৪১ দিন পর তরুনি উদ্ধার।

শরীফ আহমেদ মজুমদার,কুমিল্লা প্রতিনিধি: কুমিল্লা পিবিআই পুলিশ গত ৪১ দিনে তদন্ত শেষে অপহৃত নাদিয়া আক্তার (৩০) কে জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার বাইশগাও এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে। ভিকটিমের মা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (২০০০ সংশোধিত ২০০৩ এর ৭/৩০) বিজ্ঞ আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত উক্ত মামলাটি কুমিল্লা পিবিআই পুলিশকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। পিবিআই কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আপেল মাহমুদ এর নির্দেশে দীর্ঘ ৪১ দিন তদন্ত শেষে আজ (৫ নভেম্বর) সকাল ৭টায় মনোহরগঞ্জ থানার বাইশগাও এলাকায় থেকে পিবিআইয়ের পুলিশ অফিসার তৌহিদ ও মনির ভিকটিমকে উদ্ধার করে।অন্য একটি সূত্র থেকে জানা যায়, নাদিরা আক্তারের সাথে বিবাদীদের দীর্ঘদিন ধরে জায়গা সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এরই প্রেক্ষিতে গত ১২ জুন ২০১৭ ইং তারিখে প্রথমে নাদিয়া আক্তার বাদী হয়ে সদর দক্ষিণ থানায় তার ছেলে অনন্ত অপহরন হয়েছে মর্মে একটি মামলা দায়ের করলে ঐ মামলাটি মিথ্যা প্রতিয়মান হয়। পরে স্থানীয় ভাবে বসে বিষয়টি মিমাংসা হয় এবং স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিরা নাদিয়া আক্তারের প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করে। পরে পুনরায় গত ২১ সেপ্টেম্বর তার মা রোশনারা আক্তার নাদিয়া আক্তার অপহরণ হয়েছে মর্মে আরো একটি মামলা দায়ের করে (সদর দক্ষিন থানার মামলা নং-৩৩, ২১/০৯/১৭) । মামলার পর নাদিয়া আক্তারের মেয়ে জান্নাত আক্তার তার মাকে উদ্ধারের জন্য আইজিপি বরাবর সহ পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থাসহ বিভিন্ন মহলের লোকদের অবগত করলে পিবিআই পুলিশ গুরুত্বের সাথে কাজ করতে থাকে। মামলার এজাহারে উল্লেখিত তথ্য যাচাই বাছাইয়ে পুলিশের নিকট অপহরনের বিষয়টি সন্দেহাতীত মনে হচ্ছে।উক্ত ঘটনায় ভিকটিম উদ্ধারের পর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আপেল মাহমুদ সংবাদ সম্মেলনে জানান, তার নেতৃত্বে গঠিত বিশেষ টিম বিভিন্ন জায়গায় দফায় দফায় অভিযান চালিয়ে ভিকটিম নাদিরা আক্তারকে মনোহরগঞ্জ থানার বাশগাও এলাকা থেকে উদ্ধার করে। তবে বিষয়টি অপহরণ কিনা এই বিষয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। যার কারণে তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। অতি শীঘ্রই মামলার আসল রহস্য উদঘাটিত হবে।ভিকটিম নাদিয়া আক্তারের বড় বোন নাজমা জানান, আমার বোনকে মনোহরগঞ্জ বাঁইশগাও এলাকায় হাত পা বেধে কে বা কাহারা রেখে গেলে স্থানীয়রা বাড়ীতে নিয়ে যায় এবং পুলিশ সেখান থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে এবং বর্তমানে চিকিৎসা চলছে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.