কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের সেই ভন্ড কবিরাজ বাড়িতে প্রশাসনের অভিযান, চেম্বার সিলগালা

কুমিল্লা প্রতিনিধি :   কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের কালিকাপুর ইউনিয়নের আবদুল্লাহপুর গ্রামে অবস্থিত কথিত ওই কবিরাজ দুলাল চন্দ্রের বাড়িতে ও চেম্বারে অভিযান চালিয়ে চেম্বার সিলগালা ও নগদ ১ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছে প্রশাসন। চৌদ্দগ্রাম উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দীপন দেবনাথের নেতৃত্বে অভিযান কালে আবদুল্লাহপুর গ্রামে অবস্থিত তার বাড়িতে গিয়ে প্রথমেই ড্রামের মধ্যে জমিয়ে রাখা লতাপাতার পচা পানিসহ ড্রামগুলো ধ্বংস করা হয়।

পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ওই ভন্ড কবিরাজের দোকানটি (চেম্বার) সিলগালা করে তাকে এক লাখ টাকা অর্থদন্ড ও অনাদায়ে দুই মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়। পরে ওই প্রতারক কবিরাজ অর্থদন্ড পরিশোধ করেন।

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দীপন দেবনাথ বলেন, ‘শনিবার একটি জাতীয় দৈনিকে ওই ভন্ড কবিরাজের কর্মকান্ড নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে আমরা তার বাড়ি ও দোকানে অভিযান চালাই।

অভিযানে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাসিবুর রহমান, উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকোশলী মো.হাবিবুর রহমানসহ চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের সদস্যরা সহযোগিতা করেন।

উল্লেখ্য কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের আবদুল্লাহপুর গ্রামের ভন্ড কবিরাজ দুলাল চন্দ্র পাল তার বাড়িতে একটি টিনশেড ঘরে অন্তত ২০টি ড্রামের মধ্যে জমিয়ে রাখা লতাপাতার পচা পানি গত ২০ বছর ধরে সর্বরোগের চিকিৎসার নামে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিলেন। লতাপাতার ওই পচা পানি বোতলে ভরে পাশের রাজার বাজারে অবস্থিত নিজের দোকানে বিক্রি করতেন তিনি।

error: Content is protected !!