ওসামাকে কোনো সহযোগিতা করেনি পাকিস্তান: সিআইএ দলিল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেন পাকিস্তান সরকারের কাছ থেকে কোনো সাহায্য পাননি বলে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা বা সিআইএ তার এক দলিলে উল্লেখ করেছে।পাকিস্তানের ইংরেজি দৈনিক এক্সপ্রেস ট্রিবিউন এ খবর দিয়েছে।

২০১১ সালের ২ মে দিবাগত রাতে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে অভিযান চালিয়ে আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেনকে হত্যার পর জব্দকৃত ৪ লাখ ৭০ হাজার নথি প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (সিআইএ)। গতকাল বুধবার প্রকাশিত নথিগুলো ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্স ডিরেক্টরের কার্যালয় থেকে প্রকাশিত সর্বশেষ অংশ।

এ নিয়ে চতুর্থবারের মতো সিআইএ বিন লাদেনের আস্তানায় অভিযান-সংক্রান্ত নথি প্রকাশ করল।

সিআইএর পরিচালক মাইক পম্পিও বলেন, সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর পরিকল্পনা ও কর্মকাণ্ড সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের জনসাধারণকে আরও বেশি জানার সুযোগ করে দিতে এসব নথি প্রকাশ করা হচ্ছে।

লাদেনের প্রকাশিত নথিগুলোর মধ্যে ভিডিও, অডিও ফাইল, তার চিঠিপত্র, আরবিতে লেখা শত শত দলিল-দস্তাবেজ রয়েছে।

সিআইএ প্রকাশিত দলিলে বলা হচ্ছে- অ্যাবোটাবাদে যে বাড়িতে বিন লাদেন থাকতেন সেখান থেকে সিলের অভিযানের সময় কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও দলিল-দস্তাবেজ উদ্ধার করা হয় কিন্তু পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী কিংবা সরকারের কাছ থেকে সহায়তা পাওয়ার বিষয়ে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের কমান্ডো বাহিনীর সিলের অভিযানের নিন্দা জানিয়ে সে সময় পাকিস্তান বলেছিল, এ ঘটনার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র পাকিস্তানের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করেছে। অভিযানের সময় লাদেনের বাসভবন থেকে চার লাখ ৪৭ হাজার ফাইল উদ্ধার করা হয়। তবে তাতে পাকিস্তান রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে দেয়া কোনো সহায়তার তথ্য নেই।

এছাড়া, অ্যাবোটাবাদে বসবাসের বিষয়ে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী সহায়তা করেছিল বলে যেসব জল্পনা রয়েছে সে বিষয়েও তেমন কোনো তথ্য নেই। ধারণা করা হচ্ছে- আগামী কয়েকদিনের মধ্যে এ বিষয়ে আরো নানা তথ্য-উপাত্ত ও বিশ্লেষণ বের হবে।

নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, লাদেনেকে হত্যার দিন পরিচালিত অভিযানে তার এক ঘনিষ্ঠ সহযোগীর মোবাইল উদ্ধার করা হয় যা থেকে হরকাতুল মুজাহিদিন নামে পাকিস্তানে নিষিদ্ধ ঘোষিত একটি সংগঠনের কয়েকজন নেতার সঙ্গে যোগাযোগের তথ্য পাওয়া গেছে।

সৌদি আরবে জন্ম নেয়া ওসামা বিন লাদেন আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী সংগঠন আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা। বিশেষ করে ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে টুইন টাওয়ারে সন্ত্রাসী হামলার পর বিশ্বজুড়ে ব্যাপক পরিচিতি পান তিনি। ২০১১ সালে অ্যাবোটাবাদ শহরে মার্কিন কমান্ডোদের হামলায় ওসামা বিন লাদেন নিহত হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!