‘এ রকম খেলতে থাকলে একই ফলই হবে’

ক্রীড়া প্রতিবেদক : ২১০ রানের জবাবে মাত্র ১৩৫-এ অলআউট। যেমন বোলিং তেমন ব্যাটিং!২০ ওভারের ম্যাচে ৭৫ রানে হার! বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার সবচেয়ে বড় জয় এটি। বাংলাদেশ ক্রিকেটকে বিধ্বস্ত করে ছাড়লো শ্রীলঙ্কা।

কেন এমন হচ্ছে? কেন দাঁড়াতে পাচ্ছে না টাইগাররা। কী হয়েছে দলের? ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ব্যখ্যা হলো,‘আমার মনে হয়, যে ভুলগুলা প্রতিনিয়ত করছি, তার মাশুল প্রতি ম্যাচেই দিচ্ছি। এটা থেকে বের হতে হবে। এছাড়া মনে হয় না কোন পথ আছে। এ রকম খেলতে থাকলে একই ফলই হবে।’

তিনি যোগ করেন,‘আমার মনে হয়, ভুলগুলো আসলে পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করতে না পারা। এর বাইরে ভুল দেখছি না। নিজস্ব কিছু পরিকল্পনা থাকতে হয় আর সাহসী হতে হয়। না হলে টিকে থাকা মুশকিল টি-টোয়েন্টিতে।’

দ্রুত সমস্যা চিহ্নিত করে তার সমাধান না করলে সামনে আরো বিপদ আছে বলে মনে করেন রিয়াদ। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন,‘নির্দিষ্ট পরিকল্পনা বলেন বা ট্যাকটিকাল কিছু, মাঠে সেসব প্রয়োগ করতে হবে। খুব শীঘ্রই আমাদের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করতে হবে এবং সেখান থেকে বের হতে হবে। নইলে আমরা বড় সমস্যায় পড়ে যাব।’

সিরিজটাকে খুবই হতাশার উল্লেখ করে রিয়াদ বলেন,‘টি-টোয়েন্টিতে ঝুঁকি নিতে হবে। পাওয়ার প্লেতে তারা বড় রান পেয়েছে। আমরা তিনটা উইকেট হারিয়েছি। এটা একটা ব্যবধান ছিল। টি-টোয়েন্টি প্রথম ছয় ওভার খুব গুরুত্বপূর্ণ। ২০০ চেজ করতে হলে পাওয়ার প্লেতে অবশ্যই ৬০/৬৫ রান করতে হবে। যেটা গত ম্যাচে হয়েছিল, দুর্ভাগ্যজনকভাবে এবার হয়নি। সব মিলিয়ে আমার কাছে খুব হতাশার সিরিজ।’

গত দুই ম্যাচে প্রায় ১০ জন খেলোয়াড় পরিবর্তন করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক ম্যাচে এতো বেশি পরিবর্তন ঠিক নয় বলে অনেকই সমালোচনা মুখর। তবে খারাপ ফলের জন্য এটাকে বড় কারণ বলে মনে করেন না রিয়াদ। বলছিলেন,‘আমার মনে হয় না (বেশি পরিবর্তনের কোনো প্রভাব)। যাদের সুযোগ দেওয়া হয়েছে তারা দলে আসার দাবি রাখে। চেষ্টা করছি ঠিক কম্বিনেশনটা তৈরি করতে, এর খোঁজে আছি এখনো।’

সবার সিদ্ধান্তেই দলে এমন পরিবর্তন আনা হয় বলে জানান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তিনি বলেন,‘টিম ম্যানেজমেন্ট থেকে আমাকে স্বাধীনতা দেওয়া ছিল। আমরা নিজেদের মধ্যে কথা বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। দলের জন্য যেটা ভালো মনে হয়েছে, যারা কোচিং স্টাফ ছিলেন, সবার পরামর্শেই দলটা করা হয়েছে। চাপিয়ে দেওয়া কিছু ছিল না।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.