এনবিআরকে যেসব পরামর্শ দিলেন সম্পাদকরা

কর দেওয়ার প্রক্রিয়া সহজ করা, গ্রাম অঞ্চলেও ট্যাক্স আইডি কার্ড দেওয়া, সহজে ট্যাক্স দেওয়ার বিষয়ে মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন দেওয়াসহ এনবিআরকে বিভিন্ন পরামর্শ দিয়েছে মিডিয়ার প্রতিনিধিরা।

বৃহস্পতিবার বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার সম্পাদক, প্রকাশক ও মালিকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান। অফিসার্স ক্লাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে এনবিআর।

দ্য ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেসের সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, আন্ডার ও ওভার ইনভয়েসিং এর মাধ্যমে যে পরিমাণ টাকা পাচার হচ্ছে এবং আমদানির মাধ্যমে যে টাকা পাচার হচ্ছে সে দিকে এনবিআরের নজর দেয়া দরকার। মানিলন্ডারিং বিষয়ে এনবিআর যে পদক্ষেপ নিয়েছে তা খুব একটা সফল হতে পারেনি। তিনি বলেন, জনগণ যদি জানতে পারে তাদের কর কোথায় ব্যবহার হচ্ছে তাহলে আরও বেশি ট্যাক্স দিতে আগ্রহী হবে।

চ্যানেল আইয়ের বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ বলেন, এনবিআর মেলার মাধ্যমে যে পরিবেশ সৃষ্টি করেছে তাতে মানুষ এখন স্বতঃস্ফূর্তভাবে কর দিতে চায়। এবারে দেখেছি কর মেলায় ভিড়ের কারণে অনেক মানুষ ঢুকতে পারেনি। এনবিআরকে ভবিষ্যতে বিষয়টি নিয়ে ভাবতে হবে। এসময় তিনি ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় আলাদা ক্যাটাগরিতে ট্যাক্স কার্ড এবং মিডিয়া হাউসকে আলাদা ট্যাক্স কার্ড দেওয়ার প্রস্তাব করেন।

মানবজমিন সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী বলেন, এনবিআরের কর সচেতনতা সামাজিক আন্দোলনে পরিণত হয়েছে। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এ আন্দোলন অনুপস্থিত। এ কারণে অনুপস্থিত না হলে প্যারাডাইস বা পানামা পেপার্সে বাংলাদেশিদের নাম স্থান পেত না। ট্যাক্স মানে ভয়ভীতি, আতঙ্ক। এটার কারণেই হয়ত যারা বিদেশে টাকা রেখেছেন তাদের নাম প্যারাডাইস বা পানামা পেপার্সে আসছে। আসত না যদি মানুষের মধ্যে আতঙ্ক কেটে যেত। আতঙ্ক কাটানো দরকার। বিগত কয়েক বছর যাবত এনবিআর করভীতি দূর করতে কাজ করছে।

ইত্তেফাকের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক তাসমিমা হোসেন বলেন, মানুষ কর বিষয়ে সচেতন হচ্ছে। তবে আরও কত সহজে ট্যাক্স দেওয়া যায় সেটা বের করতে হবে। সহজে ট্যাক্স দেওয়ার বিষয়ে মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন দেওয়া যেতে পারে।

বণিক বার্তার সম্পাদক দেওয়ান হানিফ মাহমুদ বলেন, সবচেয়ে বেশি কর আসে তামাকের ব্যবসা থেকে। এ থেকে এনবিআরকে বেরিয়ে আসা দরকার। আমাদের কর চ্যাম্পিয়ন হবে অন্য কোনো প্রোডাক্ট। কারণ তামাককে আমরা নিরুৎসাহিত করছি।

বিটিভির মহাপরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদ বলেন, গ্রামেও কর বিষয়ে সচেতনতা তৈরিতে এনবিআর যদি আমাদের কিছু সাজেস্ট করে তাহলে আমরা সেগুালো প্রচার করব।

জাতীয় অর্থনীতি সম্পাদক কিবরিয়া চৌধুরী বলেন, ছোটবেলা দেখেছি লাইনে দাঁড়িয়ে সিনেমা দেখতো। কিন্তু এখন আমরা দেখছি লাইনে দাঁড়িয়ে কর দেয়। এটা এনবিআরের বড় অর্জন।

বক্তব্য শেষে সম্পাদকদের ইনকাম ট্যাক্স আইডি কার্ড দেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!