এইচএসসি পরীক্ষা সম্পর্কিত নির্দেশনা

নিজস্ব সংবাদদাতা : এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার্থী শুরু হচ্ছে ২ এপ্রিল। এবছর পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে গতবারের তুলনায় এক লাখ ২৭ হাজার ৭৭১ জন বেশি।

বুধবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এই তথ্য জানান। এ সময় তিনি এইচএসসি পরীক্ষার বিভিন্ন দিক নির্দেশনা ও তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরেন।

পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে

২ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় এবার মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন, যা গত বছরের তুলনায় এক লাখ ২৭ হাজার ৭৭১ জন বেশি। পরীক্ষার্থী বৃদ্ধির হার ১০.৭৯ শতাংশ। ২০১৭ সালে পরীক্ষার্থী সংখ্যা ছিল ১১ লাখ ৮৩ হাজার ৬৮৬ জন।

এছাড়া মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বেড়েছে ৭৯টি। মোট কেন্দ্র বেড়েছে ৪৪টি। ২০১৮ সালে বিজ্ঞান বিভাগে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা দুই লাখ ৪২ হাজার ৪২৬ জন, ২০১৭ সালে এ সংখ্যা ছিল দুই লাখ ১৭ হাজার ৫২১জন। বৃদ্ধি পেয়েছে ২৪,৯০৫ জন।

পরীক্ষা কেন্দ্র সম্পর্কিত নির্দেশনা

পরীক্ষা শুরুর ৩০ (ত্রিশ) মিনিট পূর্বে পরীক্ষার্থীদের অবশ্যই পরীক্ষা কক্ষে আসন গ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ (পঁচিশ) মিনিট আগে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার মোবাইল নাম্বারে সেট কোড ব্যবহারের নির্দেশনা যাওয়ার পর প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খুলতে হবে।

কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ব্যতীত অন্য কেউ মোবাইল ফোন/ইলেকট্রনিক ডিভাইস নিয়ে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন না। কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছবি তোলা যায় না এমন মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। তৃতীয় পরীক্ষা ২ এপ্রিল ২০১৮ সোমবার থেকে শুরু হয়ে ১৩ মে ২০১৮ রবিবার এবং ব্যবহারিক পরীক্ষা ১৪ মে ২০১৮ থেকে শুরু হয়ে ২৩ মে ২০১৮ শেষ হবে।

২০১২ সালে শুধু বাংলা ১ম পত্রের সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ২০১৫ সাল পর্যন্ত ১৩টি বিষয়ের ২৫টি পত্রে সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৭ সাল থেকে সর্বমোট ২৮টি বিষয়ের ৫৪টি পত্রে সৃজনশীল পদ্ধতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

অতীতের ন্যায় সম্পূর্ণ নকলমুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বলে আশা করে পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ব্যতীত অন্যান্যদের কেন্দ্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, সেরিব্রাল পালসি জনিত প্রতিবন্ধী এবং যাদের হাত নেই এমন প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থী স্ক্রাইব (শ্রুতি লেখক) সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। এ ধরনের পরীক্ষার্থীদের এবং শ্রবণ প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীদের জন্য অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে।

বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন (অটিস্টিক এবং ডাউন সিনড্রোম বা সেরিব্রালপালসি আক্রান্ত) পরীক্ষার্থীদের ৩০ মিনিট অতিরিক্ত সময় এবং পরীক্ষার কক্ষে তার অভিভাবক/শিক্ষক/সাহায্যকারী নিয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি দেয়া হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে সার্বক্ষণিকভাবে সারাদেশের এইচএসসি ও সমমানের সকল পরীক্ষা তদারকির ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর মোট পরীক্ষার্থী, উপস্থিতি, অনুপস্থিতি ও বহিষ্কারসহ সার্বিক তথ্য আদান প্রদানের ক্ষেত্রে পূর্বের মতোই চালু রয়েছে। এর ফলে কেন্দ্রগুলোর সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করা সম্ভব হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.