উর্দু ছবির পর্দা নামান রাজ্জাক….আলমগীর

বিনোদ প্রতিবেদক: বাংলা চলচ্চিত্র চিরকাল নায়করাজ রাজ্জাকের কাছে ঋণী থাকবে। উর্দু ছবির যখন এই দেশে রমরমা ব্যবসা, তখন ওনার ছবিগুলো আমাদের বাংলা ছবি দেখতে শিখিয়েছে। এই কারণেই বলি যে আমরা চিরদিন ওনার কাছে ঋণী থাকব। উনি আমাদের সবার শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি ছিলেন।
রাজ্জাক আমাদের নায়কদের নায়ক। যাঁকে আজাচৌ (আহমদ জামান চৌধুরী) নায়করাজ উপাধি দিয়েছিলেন। এই টাইটেল আজাচৌ দিয়েছিলেন এবং আমরা সবাই সেটা মানতাম। আমরা আমাদের হৃদয় থেকে তাঁকে নায়করাজ হিসেবে মানতাম। অসাধারণ ভালো মানুষ ছিলেন তিনি।
ব্যক্তিগতভাবে আমি তাঁর খুব ঘনিষ্ঠ ছিলাম। তিনি আমার বন্ধু, আমার ফিলোসফার, আমার গাইড; যেটাকে এককথায় বলে ‘ফ্রেন্ড, ফিলোসফার অ্যান্ড গাইড’ ছিলেন। চলচ্চিত্র জীবনের শুরুতে ওনার সঙ্গে খুব ঘনিষ্ঠ ছিলাম। সুখে-দুঃখে একসঙ্গে দীর্ঘ সময় কাটিয়েছি। তখন মোবাইলের যুগ ছিল না। হয়তো বাসায় বসে আছি। উনি ফোন করলেন। জানতে চাইলেন, কী করছি। কিছু করছি না বললে বলতেন, ‘আসো, চলে আসো বাসায়।’ চলে যেতাম। বাসায় বসে আড্ডা মারতাম। এফডিসিতে দেখা হলে আড্ডা মারতাম। প্রায় প্রতিদিনই আমরা দেখা করতাম। কখনো কখনো ঘুরে বেড়াতাম।
শুরুর দিকে আমার তো গাড়ি ছিল না। ওনার একটা গাড়ি ছিল। গাড়িটির নম্বর আমার এখনো মনে আছে, ট্রিপল ফাইভ ওয়ান (৫৫৫১)। এই গাড়ি নিয়ে আমরা কখনো কুমিল্লা, কখনো চট্টগ্রাম, কখনো কক্সবাজার চলে গেছি। ঘুরতে কিংবা শুটিং করতে। এ রকম কত স্মৃতি আছে ওনার সঙ্গে।
শুরুর দিকে রাজ্জাক ভাইয়ের সঙ্গে আমি অনেক ছবিতে কাজ করেছি। সব ছবিতেই আমি রোমান্টিক নায়ক চরিত্র করেছি, উনি সিনিয়র রোল করেছেন। আবার অনেক ছবিতে ছোট ভাই-বড় ভাই, অনেক ছবিতে দুই বন্ধু; বিভিন্ন ধরনের চরিত্রে বেশ কিছু ছবিতে আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। সেসব মধুর স্মৃতি হয়ে রয়েছে। আমার জীবনের প্রথম ছবি ‘আমার জন্মভূমি’ ছবিতে রাজ্জাক ভাই ছিলেন। ‘অতিথি’, ‘অন্ধবিশ্বাস’ এ রকম অনেক ছবিতে রাজ্জাক ভাইয়ের সঙ্গে কাজ করেছি। সব ছবির নাম এক মুহূর্তে স্মরণ করতে পারছি না। তারপর কোনো এক অজানা কারণে অনেক দিন আমরা একসঙ্গে কাজ করিনি। প্রায় ১৫ বছরের একটা গ্যাপ ছিল। তারপর হঠাৎ করে মতিন রহমান তাঁর ‘অন্ধবিশ্বাস’ ছবিতে আমাকে ও রাজ্জাক ভাইকে কাস্ট করলেন। আবার অনেক ছবি করলাম একসঙ্গে। সেসবও মধুর স্মৃতি হয়ে আছে।
নায়করাজ নেই। ২০১৭ সালের ২১ আগস্ট তিনি ইন্তেকাল করেছেন। ওনার চলে যাওয়ার তিন বছর হলো। ওনাকে ফিল করি। এখন এফডিসিতে যে অবস্থা, যা চলছে, তাতে ওনার শূন্যতা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির সবাই ফিল করে। আরো বহু দিন ফিল করবে আশা করি। অন্তত আমি তো ফিল করব। রাজ্জাক ভাইকে এখনো অনেক মিস করি। আল্লাহ ওনাকে বেহেশত নসিব করুন। এই দোয়া করি।
লেখক : চিত্রনায়ক আলমগীর