1. redsunbangladesh@yahoo.com : admin : Tofauil mahmaud
  2. mdbahar2348@gmail.com : Bahar Bhuiyan : Bahar Bhuiyan
  3. mdmizanm944@gmail.com : Mizan Hawlader : Mizan Hawlader
শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

আসল চ্যাম্পিয়ন তো বাংলাদেশিরাই

রিপোর্টারের নাম :
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২০ জুন, ২০১৭
  • ২ বার পড়া হয়েছে

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি শেষ। আমার ইউকে সফরও প্রায় শেষ। ঢাকার যানজট, তীব্র গরম, লোড শেডিং, কাদা, ধুলা, হাটু পানি; মন হচ্চে এসব বড্ড মিস করেছি গত ২৫ দিনে। চির চেনা ঢাকায় ফিরে যাবো, তর সইছে না! লন্ডনের আভিজাত্যে যে হাঁপিয়ে ওঠেছি!
ব্যস্ততার মধ্যেও গত ২৫ দিনে প্রবাসী ভাইদের সঙ্গে মিশেছি এবং তাদের অবস্থা জানার চেষ্টা করেছি। পরিবার পরিজন নিয়ে লন্ডনে তারা খুব ভালো আছেন। ইউরোপের বেশ কয়েকটা দেশের অর্থনীতিতে বড় ধস নামায় ব্রিটেনে চলে এসেছেন কয়েক লাখ মানুষ। যাদের মধ্যে আছেন হাজার হাজার বাংলাদেশিও।
এদের তো এখানে রীতিমত সোনায় সোহাগা অবস্থা। বাসা ভাড়া বাবদ, সম্তান, শিক্ষা ভাতা ইত্যাদি মিলে চারজনের একটা পরিবার বাংলাদেশি টাকায় লাখ দুযেক টাকা সরকার থেকে পাচ্ছেন প্রতি মাসে। এর বাইরে কাজও করছেন।
তারা জানান, এখানে খুব ভালো থাকলেও বাংলাদেশেরর দুর্দশায় তাদের মন কাঁদে। বাংলাদেশ নিয়ে তাদের হতাশা, অভিযোগের শেষ নেই। ক্রিকেট ছাড়া অন্য কিছুতে আদৌ বাংলাদেশের কোনো সম্ভাবনা আছে কীনা, এ ব্যাপারে তারা ঘোরতর সন্দিহান। কারো কারো অভিমত, বাংলাদেশ জনসংখ্যার ভারে ন্যূয়ে পড়া হতভাগা এক জনপদ। যেখানে পর্যাপ্ত খাবার নেই, মানুষের জীবনের মূল্য নেই। কোনো কিছু নেই।আমি বাংলাদেশের নানা ইতিবাচক দিক এবং সম্ভাবনা তুলে ধরেও তাদের আস্বস্ত করতে পারিনি।
যাদের আবার এই দেশে জন্ম, লেখাপড়া এবং বড় হওয়া তারা তো একেবারেই অন্যরকম। বাংলাদেশ অথবা বাংলাদেশ ক্রিকেট নিয়ে তাদের বেশিরভাগেরই কোনোরকম আগ্রহ নেই।এরা বাংলা বলতে পারেন না, এমনকি জীবনে একবার বাংলাদেশেও আসেননি। এরা চুটিয়ে ব্রিটিশ লাইফ উপভোগ করছেন।
এ কদিনে ইংল্যান্ডে বেশ কিছু বাংলাদেশি ভাইয়ের সঙ্গে সংখ্যতা গড়ে ওঠে আমার। মোস্তাক সাহেব তাদের একজন। বাঙালি যে এত পরিশ্রমী, এত বিনয়ী হতে পারে, মোস্তাক সাহেবের সঙ্গে পরিচয় না হলে জানা হতো না।
একদিন বিকালে তিনি আমাকে ফোন করে বললেন, ‘আজ আমার বাসায় আপনার ইফতারের দাওয়াত। আমি আপনাকে নিতে আসব।’ তিনি ব্যবসা করেন, নিজের কিছু ব্যবসাপাতি আছে জানতাম, কিন্তু তিনি যে এতটা ধনী সেটা বুঝার উপায় ছিল না।
যেতে যেতে জানলাম, গোটা তিনেক লেটেস্ট মডেলের মার্সিডিজ গাড়ি আছে তাদের। বাসায় ঢুকে তো আমি তো পুরোপুরি হতভম্ব, মাথা খরাপ হবার যোগাড়। ‘এটা কী বাসা, নাকি ফাইভ স্টার হোটেল?’ মোস্তাক সাহেব হাসলেন। দোতলা বাড়ি। এর সঙ্গে ফাইভ স্টার হোটেলকে মেলানো যায় না।
তবে বাংলাদেশে যে কয়েকটা ফাইভ স্টার হোটেল আছে তার চেয়ে অনেক গুণ বেশি সুসজ্জিত, গর্জিয়াস মোস্তাক সাহেবের বাড়িটি। কি তার ডাইনিং, কি তার ড্রয়িং, কি তার কিচেন রুম! রীতিমত অবিশ্বাস্য, বলে বোঝানোর উপায় নেই। বেড রুম তো নয়, যেন স্বর্গ! আমি বললাম,‘ ভাইজান, ‘আপনার বাসার ছবি তুলব। ঢাকায় ফিরে স্টোরি করব।’ মোস্তাক সাহেব বললেন,‘ না না। কী দরকার আছে?’
সুবিশাল ডাইনিং টেবিল। সেখানে সাজানো ২৫-৩০ ধরনের খাবার। নিজেকে অসহয় মনে হচ্ছিলো। বললাম,‘ ভাইজান, আমি গরীব, সাধারণ মানুষ। আমার জন্য এত কিছু কেন?’ তিনি বললেন,‘ আপনি তো আজ আমার মেহবান, তাই না? আসলে এত ব্যস্ত থাকি যে, কারো আতিথিয়েতা করার সময় হয়ে ওঠে না।’
একটু পরে তার স্ত্রী, ডাক্তার মেয়ে এবং ইঞ্জিনিয়ার ছেলে আসলেন। তারাও রোজা রেখেছেন। তারা সেভাবে বাংলায় কথা বলতে পারেন না। তবে বুঝতে পারেন। ইফতার ও নামাজ শেষ করে আমরা সবাই ড্রয়িং রুমে বসলাম।
আমজাদ সাহেবকে জিজ্ঞাস করলাম,‘ ভাইজান, আপনি এত ধনী হলেন কীভাবে?’ তিনি তার জীবনের ইতিহাস বলতে শুরু করলেন। জানালেন, শৈশবে এবং কৈশরের বেদনায়ক দিনগুলোর কথা। এমনও দিন গেছে যে, একবার চুলাও জ্বলেনি তার বাড়িতে। বললেন, কীভাবে তিনি অল্প বয়সে জীবনের ঝুকি নিয়ে লন্ডনে পাড়ি জমিয়েছেন। এসব কাহিনী যখন বলছিলেন, তখন তার দুই সন্তানের চোখ দিয়ে অঝোরে পানি ঝরছিলো।
‘আরে আমি তো স্ল্যামডগ মিলনিয়ারের বাবা।আমার কাছে স্ল্যামডগ মিলনিযার নাথিং। আমি তাদের এসব কষ্টের দিনগুলোর কথা বলি এ কারণে, তারা যেন অতীত ভুলে না যায। তাদের যেন মনে থাকে, তার বাবা কোথা থেকে এসেছে। তার পরিচয় কি, তার ধর্ম কি। ওরা লেখা পড়া শেষ করেছে। ওদের কখনও কাজ করতে দেইনি । ওদের কখনও কাজ করা লাগবেও না। আমি যা রেখে যাচ্ছি, তা যদি ঠিকমত দেখে রাখতে পারে তাহলে ওদের ৫০ প্রজন্মের চলে যাবে।’
‘বাংলাদেশ আমাকে দারিদ্র ছাড়াই কিছুই দিতে পারেনি। তবুও ওই দেশকে আমি বড্ড মিস করি। সময় পেলে ছুটে যাই। ঘুরে আসি। আমি ক্রিকেট খুব ভালো বুঝি না। তারপরেও মাঠে খেলা দেখতে গেছি। অনেককে টিকিট কিনে দিয়েছি। আমার দেশের ছেলেরা এখানে এসেছে। আমার মন বড় অস্থির হয়ে উঠছিলো। বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হলে খুব খুশি হতাম।’
আমি বললাম,‘ ভাইজান, সামনে তো সময় আছে। নিশ্চয়ই বাংলাদেশ একদিন চ্যাম্পিয়ন হবে। মন খারাপ করবেন না। মাশরাফিদের সামনে আপনারা তো প্রেরণা হিসেবে আছেনই। আপাতত আপনারাই আমাদের চ্যাম্পিয়ন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন

—-সম্পাদক মন্ডলীর

সম্পাদকও প্রকাশক: তোফায়েল মাহমুদ ভূঁইয়া (বাহার
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদক: হাজী মোঃ সাইফুল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: কামরুল হাসান রোকন
বার্তা সম্পাদক: শরীফ আহমেদ মজুমদার
নির্বাহী সম্পাদক: মোসা:আমেনা বেগম

উপদেষ্টা মন্ডলীর

সভাপতি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন মজুমদার,
প্রধান উপদেষ্টা সাজ্জাদুল কবীর,
উপদেষ্টা জাকির হোসেন মজুমদার,
উপদেষ্টা এ এস এম আনার উল্লাহ বাবলু ,
উপদেষ্টা শাকিল মোল্লা,
উপদেষ্টা এম মিজানুর রহমান

Copyright © 2020 www.comillabd.com কুমিল্লাবিডি ডট কম. All rights reserved.
প্রযুক্তি সহায়তায় মাল্টিকেয়ার
error: Content is protected !!